কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শোক ও শক্তির পনেরো আগস্ট : এমপি তৌফিক


 প্রকৌশলী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক | ১৫ আগস্ট ২০২০, শনিবার, ১২:৪০ | সম্পাদকের বাছাই  


বাঙালি জাতির ইতিহাসে হিমালয়সম অতুলনীয় উচ্চতায় আসীন মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবর্ষের এই আগস্টে তাঁর বেদনা-জাগানিয়া বিদায়ের ৪৫ বছর স্পর্শ করলো। শাওনের শোকার্ত প্রহরে জাতির প্রতিটি সদস্যের হৃদয়ে ধ্বনিত হলো জনক হারানোর সুতীব্র দহন। পুরো বাংলাদেশ ক্রন্দনে একাকার যেন পদ্মা, মেঘনা, যমুনার বিরহী স্রোতের সমান্তরালে।

পঁচাত্তরের পনেরো আগস্টের অন্ধকারে বাংলাদেশ ও বাঙালির মহাকালের ইতিহাস বিদীর্ণ হয় চরম গ্লানি, বেদনা ও শোকে। ষড়যন্ত্রকারীদের ঘৃণ্য আক্রমণে রাজধানী ঢাকার ধানমন্ডির বাসভবনে সপরিবারে নিহত হন বাঙালি জাতির জনক, যার নেতৃত্বে ও সংগ্রামে অর্জিত হয়েছে স্বাধীন-সার্বভৌম স্বদেশ।

বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা ও নির্মাতা বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে জাতি সেদিন হারিয়েছে ত্যাগ ও সাহসের প্রতীক, বাংলার স্বাধীনতার স্বপ্নসারথি, মহিয়সী নারী, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবকে; বাংলাদেশের স্বাধীনতা লাভের আন্দোলন-সংগ্রামে যার অবদান অপরিসীম। হারিয়েছে শিশু রাসেলকে, যার কান্নার শব্দ শাওন রাতের নিস্তব্দতা ও অন্ধকার ভেদ করে গুঞ্জরিত হয়েছিল। তবুও মন গলেনি পাষণ্ড নরপিচাশদের। তাদের হাত থেকে রক্ষা পায়নি নিষ্পাপ শিশু রাসেল। জাতি হারিয়েছে যৌবনের লেলিহান শিখায় দীপ্ত কর্মবীর শেখ কামাল, শেখ জামাল এবং বঙ্গবন্ধু পরিবারের অধিকাংশ সদস্যদের।

হত্যাকারী, নরপিশাচরূপী-চক্রান্তকারীরা শুধু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করেই থামেনি, তাঁর মহত্তম আদর্শকেও চিরতরে মুছে দিতে এই কাপুরুষোচিত-বর্বর হত্যাকাণ্ডের বিচার বন্ধ করতে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করেছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতাপ্রিয় গণতান্ত্রিক জনতার স্বপ্নকে নস্যাৎ করে দিতে চেয়েছিল নরপশু ঘাতকের দল।

কিন্তু যাঁর ডাকে জেগে উঠে বাংলাদেশ, যাঁর অঙ্গুলিসংকেতে সংঘবদ্ধ হয় সমগ্র জাতিসত্তা, সেই মহাকালের মহানায়কের নাম মুছে ফেলা অসম্ভব। বরং বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এদেশের মানুষ মুজিব হারানোর শোককে শক্তিতে পরিণত করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করেছে। বিচারহীনতার সংস্কৃতি ভেঙে সুশাসনকে এগিয়ে নিয়েছে। হত্যা ও ষড়যন্ত্রের অপরাজনীতির চির অবসান ঘটিয়েছে।

১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার রাষ্ট্রক্ষমতায় আসার পর বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের উদ্যোগ নেওয়া হয়। হত্যাকারীদের আইনের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে নিয়মতান্ত্রিক বিচারিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ঘাতকদের ফাঁসির রায় কার্যকর করার মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করেন এদেশের মানুষের আশা-ভরসাস্থল বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। অনেক দেরিতে ও পাহাড়সম বাধাবিপত্তি পেরিয়ে নারকীয় এ হত্যাকাণ্ডের বিচার সম্পন্ন হয়।

বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত ও দণ্ডিত ১২ খুনির মধ্যে পাঁচজন বিদেশে এখনও পলাতক। আর ২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়। সম্প্রতি ঢাকার মিরপুরে গ্রেফতার হন ভারতে পলাতক ক্যাপ্টেন (অব.) আবদুল মাজেদ। এরপর তার রায়ও কার্যকর করা হয়। তবে দণ্ডিত বাকি খুনিরা এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে। তিনজনের অবস্থান সরকার জানলেও বাকি দুইজনের অবস্থানই অজানা। দণ্ডিত অবস্থায় জিম্বাবুয়েতে পলাতক আবদুল আজিজ পাশার মৃত্যু হয়েছে বলে শোনা যায়। আর বাকিদের অবস্থান জানা ও দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছেন সরকারের সংশ্লিষ্টরা।

এ হত্যাকাণ্ডের বিচারের মধ্য দিয়ে জাতি কলঙ্কমুক্ত হয়েছে। আবার শুরু হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় লাল-সবুজের বাংলার নবযাত্রা। বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন দেখেছিলেন তার বাস্তবায়ন তিনি করে যেতে পারেননি ঘাতকচক্রের ষড়যন্ত্র ও আঘাতের কারণে।

কিন্তু বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলা’ তথা সমৃদ্ধ, উন্নত, উদার, ধর্মনিরপেক্ষ, মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদমুক্ত বাংলাদেশের অগ্রযাত্রাকে ত্বরান্বিত করতে দিনরাত পরিশ্রম করে চলেছেন তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাঙালি জাতি ও বাংলাদেশের ইতিহাসের বেদনাবহ পনেরো আগস্টের শোক ইতিহাসের ধারায় পরিণত হয়েছে শক্তিতে। জাতির ঐক্য, অগ্রগতি ও সংগ্রামশীলতার শক্তিস্তম্ভ, বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু ও পনেরো আগস্টের শহিদদের প্রতি অসীম শ্রদ্ধা জানিয়ে বাঙালি জাতি প্রতিটি পনেরো আগস্টে শপথে বলীয়ান হয় জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর 'সোনার বাংলা' গড়ার ইস্পাত-দৃঢ় প্রত্যয়ে।

# প্রকৌশলী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক: জাতীয় সংসদ সদস্য, কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম)।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর