কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


জাতির জনকের রক্তের ঋণ শোধ হবার নয়


 মোঃ জসিম উদ্দিন | ১৫ আগস্ট ২০২০, শনিবার, ২:০৪ | মত-দ্বিমত 


আজ ১৫ আগস্ট ২০২০ খ্রি.। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস। গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় জাতি আজ তাঁকে স্মরণ করছে।

১৯৭৫ সালের এই দিনে বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান, শতাব্দীর মহানায়ক, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি ও স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে তাঁর ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরের বাড়িতে একদল বিপথগামী সেনা সদস্য রাতের আঁধারে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করে। মানব সভ্যতা তথা বাঙালি জাতির ইতিহাসে এই দিবসটি তাই সবচেয়ে জঘন্য, কলঙ্কময়, শোকাবহ ও বেদনাদায়ক।

১৫ আগস্টের সেই দিনে ভোরের আলো ফুটে উঠার আগেই ঘাতকের বিধ্বংসী বুলেটের আঘাতে ৩২ নম্বরের সিঁড়িতে জনকের নিথর দেহ লুটিয়ে পড়ে! তারা হত্যা করে সকল আন্দোলন সংগ্রামে প্রেরণাদানকারী তাঁর প্রিয়তমা সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবকে।

পিশাচদের রাইফেলের নিশানা থেকে জীবন বাঁচাতে করুণ আকুতি করেও রেহাই পায়নি বঙ্গবন্ধুর অতি আদরের শিশুপুত্র রাসেল। অতপর ঘাতকেরা শেখ কামাল, শেখ জামাল, তাদের প্রিয়তমা স্ত্রীদের সহ একে একে পরিবারের সকলকে হত্যা করে।

সেই দিন বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের নিষ্প্রাণ দেহের রক্তে ভেসে যায় ৫৬ হাজার বর্গ মাইলের সোনার বাংলার সবুজ চত্বর। ভোরের পাখিরা নিস্তব্ধ! পদ্মা, মেঘনা, যমুনা সহ হাজার নদীর কলতানে যেন রক্তগঙ্গা প্রবাহিত! মুয়াজ্জিনের আজানের ধ্বনিতে, বাতাসে ভেসে আসে বিষাদময় সুর!

ভোরের পূর্ব আকাশে রক্তিম সূর্য উঠে! রেড়িও স্টেশনে স্বঘোষিত খুনিদের নিষ্ঠুর আস্ফালন মানুষকে হতবাক করে। ততক্ষণে বাংলার মানুষের কাছে তাদের প্রিয় ও মহান নেতার শহীদ হওয়ার খবর পৌঁছে যায়। সারা জাতি তখন শোকে মুহ্যমান, বেদনায় নীলকণ্ঠ, নীরব, নিস্তব্ধ। এ যেন জনকহীন এক অন্য রকম বাংলাদেশ!

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সংঘটিত এই নির্মম ও ভয়াবহ হত্যাকাণ্ড বিশ্ববাসীকে হতবাক, স্তম্ভিত ও বাকরোধ করে দেয়। এই হত্যাকাণ্ড আমাদেরকে বিশ্ব মানবতার মুক্তির দূত ইসলামের নবী হজরত মুহাম্মদ (সঃ) এর প্রিয় দৌহিত্র ইমাম হোসেন ও তাঁর পরিবারের সকল শহীদের কথা স্মরণ করিয়ে দেয় যারা নিষ্ঠুর ইয়াজিদ বাহিনীর হাতে কারবালা প্রান্তরে নির্মম হত্যার শিকার হয়েছিলেন।

১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ড স্মরণ করিয়ে দেয় ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন পলাশীর প্রান্তরে বিশ্বাসঘাতক মীরজাফর সহ কতিপয় দেশদ্রোহীর কারণে বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজউদ্দৌলার পরাজয় এবং তাঁর পরিবারের নিষ্ঠুর ও বেদনাদায়ক পরিণতি!

এ কথা আমরা সবাই জানি, বঙ্গবন্ধু মুজিব ৫২ সালের ভাযা আন্দোলন থেকে শুরু করে ,৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট, ৫৬ সালের সংবিধান প্রণয়ন, ৫৮ সালের সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলন, ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান, বাঙালির মুক্তির সনদ ৬৬ সালের ছয়দফা সহ সর্বোপরি ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রধান সেনানী হিসেবে নেতৃত্ব দেন।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু যে পাকিস্তানের অপশাসন ও শোষণের বিরুদ্ধ বাঙালির ন্যায্য অধিকার আদায়ের জন্য আজীবন লড়াই সংগ্রাম করেছন সেই পাক মিলিটারি হিমালয়সম বাঙালির এ প্রাণের নেতাকে অসংখ্যবার কারাবন্দী করলেও হত্যা করার সাহস পায়নি!

তাই বাঙালি জাতির জন্য সবচেয়ে দুর্ভাগ্য ও দুঃখজনক ব্যাপার হলো, জাতির জনকের আজীবন সংগ্রাম ও লালিত স্বপ্নের স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের মাটিতে তাঁরই হাতে গড়া সেনাবাহিনীর কতিপয় উচ্চাবিলাসী সদস্য রাতের আঁধারে পেছন দরজা দিয়ে তাঁকে হত্যা করে। কলঙ্কের কালিমা লেপন করে দেয় জাতির ললাটে। বিশ্ব ইতিহাসে এমন বর্বর ও কাপুরুষোচিত ঘটনার নজির নেই বললেই চলে।

তবে কি ১৫ আগস্টের সংঘটিত এ জঘন্য হত্যাকাণ্ড, শুধু নিছক একটি ঘটনা? নিশ্চয় তা নয়। হত্যাকারীরা এই হত্যাকাণ্ডটি সংঘটিত করে শুধু বঙ্গবন্ধু নয়, তাঁব আদর্শের প্রতি কুঠারাঘাত করতে প্রয়াস পায়। জাতিকে আবার পরাধীনতার শৃঙ্খল পরানোর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। এ হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে তারা বাঙ্গালী জাতির শৌর্যবীর্যকে চ্যালেঞ্জের মুখে ঠেলে দেয়। সত্যিকার অর্থ বঙ্গবন্ধুর হত্যার পেছনে স্বাধীনতা বিরোধী দেশীয় পরাজিত শক্তি ও আন্তর্জাতিক কুচক্রী মহলের গভীর যড়যন্ত্র ও মদদ ছিলো। যার মাধ্যমে দেশকে তারা বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের বিপরীত দিকে ঠেলে দিতে চেয়েছিল।

এছাড়া ৭৫ পরবর্তী শাসকগোষ্ঠী বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবার সদস্যের হত্যার বিচারের কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি বরং এই হত্যার বিচারের পথ রহিত করতে কুখ্যাত ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স জারি করে এবং তা আইনে পরিণত করে।

দীর্ঘ ২১ বছর পর জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালে গণতান্ত্রিক ভাবে নির্বাচিত হয়ে বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসেন এবং তাঁর নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি সরকার গঠন করে। ১৯৯৬ সালের ১৪ নভেম্বর খুনিদের বিচার প্রক্রিয়া শুরু করতে পার্লামেন্টে ইনডেমনিটি আইনটি বাতিল করে।

১৯৯৭ সালের ১৫ জানুয়ারি সিআইডি এই মামলায় ২০ জন আসামীকে অভিযুক্ত করে মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে চার্জশীট দাখিল করে এবং একই বছর ১২ মার্চ ৬ আসামীর উপস্থিতিতে আদালতে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার কাজ শুরু হয়।

দীর্ঘ বিচারিক প্রক্রিয়া শেষে ২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি আপীল রায়ের বিরুদ্ধে করা আসামীদের রিভিউ খারিজ হয়ে গেলে, ২০১০ সালের ২৮ জানুয়ারি দীর্ঘ ৩৪ বছর পর ৫ আসামীর ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়।

জাতির জনকের এ হত্যার ন্যায় ভিত্তিক বিচারের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতি আবার ঘুরে দাঁড়ায়। লাল সবুজের উড্ডীন পতাকাটি তার জৌলুস ও উজ্জ্বলতা ফিরে পায়। বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে দেশ বেরিয়ে আসে। সর্বোপরি এই রায় কার্যকর করার মাধ্যমে বাঙালি জাতিকে দায়মুক্তি করা হয়।

তবে এখনো পরাজিত শক্তি, সুবিধাবাদী, জঙ্গিগোষ্ঠী ও স্বার্থান্বেষী মহলের ষড়যন্ত্র থেমে নেই। সুযোগে তারা সরকারের ভালো অর্জন গুলোকে ম্লান করে দেয়ার অপচেষ্টা চালাবে। এদের অনেকেই সমাজ, রাষ্ট্র ও সংগঠনের ভেতরে-বাইরে সক্রিয় রয়েছে। তাই এদের বিষয়ে সতর্ক ও সাবধান থাকা জরুরি।

আজ শোকাবহ এই দিনে জাতির জনকের প্রতি প্রকৃত ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা জানাতে হলে, প্রথমত, এই মহান নেতাকে আমাদের আত্মস্ত করতে হবে, অন্তরে ধারণ করতে হবে তাঁর রাজনীতির দর্শন ও আদর্শের মূলমন্ত্র গুলো। সমস্ত লোভ লালসা, দুর্নীতি ও ব্যক্তি স্বার্থের উর্ধ্বে উঠে দেশের বঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। কারণ সমানাধিকার, সাম্য, ন্যায় ভিত্তিক একটি মানবিক রাষ্ট্র বিনির্মাণই ছিল বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন। তাঁর নিশ্বাস ও বিশ্বাসে ছিলো শুধূ স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। ফাঁসির মঞ্চে দাঁড়িয়েও বাঙালির অধিকার, স্বাধীনতা ও মুক্তির প্রশ্নে তিনি ছিলেন নির্ভীক, আপসহীন এবং অবিচল।

তাইতো বাঙালি জাতি কোন দিন তাঁর রক্তের ঋণ শোধ করতে পারবে না।

তবে আমরা যদি জাতির জনকের স্বপ্নের সিঁড়ি বেয়ে, সংবিধানে তাঁরই দেখানো পথ ধরে তাঁর কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ নির্মাণে সকলেই স্ব স্ব অবস্থান থেকে অংশ নেই এবং একটি আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেরে নিজেদেরকে গড়ে তুলতে পারি, তবে ইহাই হবে জাতির জনকের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের মূল পথ।

তাই আত্মপ্রচার নয়, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শনের আত্মোপলোদ্ধির মাধ্যমে তাঁর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়াই হোক জাতীয় শোক দিবসে আমাদের সকলের শপথ ও তেজোদীপ্ত অঙ্গীকার।

পরিশেষে খুনি ষড়যন্ত্রকারীদের উদ্দেশে বলবো, যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে তাঁকে চিরতরে বাংলার মাটি থেকে মুছে ফেলতে চেয়েছিল, নিশ্চয় তারা আজ ইতিহাসের আস্তকুঁড়ে। বাংলার মাটিতে খুনীদের ঠাঁই নেই। এই কোমল মাটি আর বাঙালি জাতিসত্তায় শুধুই মুজিব, অম্লান মুজিব, চিরভাস্বর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ইহাই বাংলাদেশের ইতিহাসের সত্য ও অমোঘ বাণী, “মুজিব মানেই বাংলাদেশ”।

# মোঃ জসিম উদ্দিন, লেকচারার, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ, রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সরকারি কলেজ, ইটনা, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর