কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সড়ক দুর্ঘটনা থামিয়ে দিলো শিল্পিত মানুষটিকে


 শাহ্ ইস্কান্দার আলী স্বপন | ৩০ আগস্ট ২০২০, রবিবার, ৬:২৮ | মত-দ্বিমত 


আজ (রোববার, ৩০ আগস্ট) দুপুরে একটি অনলাইনের সংবাদে চোখ আটকে গেলো। খবরটি এরকম, “সাভারে সড়ক দুর্ঘটনায় আব্দুস সালাম (৫৫) নামের এক চিত্রশিল্পী নিহত হয়েছেন। সকালে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের সাভারের হেমায়েতপুর বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় এই সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, সকালে হেমায়েতপুর বাসষ্ট্যান্ডে রাস্তা পার হচ্ছিলেন চিত্রশিল্পী আব্দুস সালাম। এসময় মহাসড়কে চলাচলরত দ্রুতগতির একটি যাত্রীবাহী বাস তাকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়।

পরে খবর পেয়ে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিত্রশিল্পী আব্দুস সালামকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে প্রেরণ করে। নিহত চিত্রশিল্পী কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের শোলাকিয়া খরমপট্টি এলাকার হাজী এরশাদুল হকের ছেলে। তিনি রাজধানীর কলাবাগান এলাকায় বসবাস করতেন।”

খবরটি পড়ে মনটা বিষন্ন হয়ে গেলো। ক'দিন ধরেই তাকে খুব মনে পড়ছিলো। আজ সকালে সাভারে সড়ক দুর্ঘটনায় আব্দুস সালামের মৃত্যু সংবাদ মনটা ভারী করে দিলো। আব্দুস সালাম আমার বন্ধু খরমপট্টি নিবাসী অধ্যাপক নজরুলের ছোটভাই।

আমাদের দূর্দান্ত কৈশোরে রাকিব, ফুয়াদ, মুক্তা, স্বপন, রায়হান, তপন, নজরুলের প্রামানিকের দেবে যাওয়া বাড়ির অন্ধকার গুহায় রত্ন আবিষ্কারের অভিযানের মতো প্রাত্যহিক এডভেঞ্চার ছিলো কখনো নির্মল আনন্দময়, কখনো ভয়ানক লোমহর্ষক। বিবাদে জড়িয়ে যাওয়াও ছিলো আমাদের নৈমিত্তিক বিষয় যা আমাদের একান্ত নিজস্ব ব্যাপার।

ছোট ভাইদের শ্রদ্ধাবোধের রেওয়াজ প্রচলিত ছিলো, তারা ছিলো আমাদের স্নেহাস্পদ আপন ছোট ভাইয়ের মতোই। একবার নজরুলের সংগে রাকিব সহ আমাদের বিবাদ ঘটে বিশালদেহী নজরুলের একহাত আগে থেকেই ভাঙা (প্লাষ্টার করা) ছিলো।

সালাম তখন বেশ বড়, ভাইকে একা এবং পঙ্গু দেখেও সে বড় ভাই কিংবা বড় ভাইয়ের বন্ধুদের বিবাদে জড়ালো না। অবশ্য সুঠাম ও দীর্ঘদেহী নজরুল এক হাতেই কাঠের চেলি উঠিয়ে আমাদের গাইটাল ফার্ম পর্যন্ত তাড়িয়ে এনে সেবারে সে বীরের মর্যাদা পেলো।

ফুয়াদের বাবা তখন বত্রিশ ভোকেশনাল ইনষ্টিটিউটের প্রিন্সিপাল সেই সুবাদে বত্রিশ থেকে শুরু করে শোলাকিয়া, খরমপট্টি, কুঠিগিদ্দী হয়ে গাইটাল পর্যন্ত ছিলো আমাদের বিচরণ ভূমি আর আমরা সবাই কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র।

অনেক বছর পর একদা সালামের সাথে দেখা সে জাতীয় পর্যায়ের আর্কিটেক্ট থাকে কলাবাগান। মাঠ, ঘাট, নদী-নালা, গাছপালা ও প্রকৃতির সাথে সৌন্দর্য বিজ্ঞান তথা নান্দনিক সৌন্দর্যের নিখুঁত সমন্বয়ক হয়ে উঠেছে আমাদের প্রিয় আব্দুস সালাম।

দেশের বিভিন্ন স্থানে তার কর্মযজ্ঞের বর্ণনা, সৌন্দর্য প্রিয়তা, কথার অসাধারণ বাচনশৈলী ও দেশকে নিয়ে তার পরিকল্পনা শুনে আমরা মোহাবিষ্ট হয়েছিলাম।

আমি মনে মনে সাধ করেছিলাম কখনো যদি বাড়ির আঙিনা বা বাগান সাজাই সালামের পরামর্শ নেবো। গত সপ্তাহে কিশোরগঞ্জ গিয়েছিলাম উদ্দেশ্য গাছপালা পরিবেষ্টিত এগ্রো ফার্ম করবো।

গতরাতেই ঢাকায় ফিরেছি, বার বার মনে পড়ছিলো সৌন্দর্যের নিখুঁত নির্দেশক আমাদের সালামের কথা। কিন্তু ভাগ্যের কি নির্মম লিখন, আজ সকাল না হাতেই ভারাক্রান্ত হলো মন, আমাদের প্রিয় আব্দুস সালাম নেই। কেবলি সৌন্দর্য বর্ধন করছে বিভিন্ন স্থানে তার নান্দনিক কর্মগুলো।

ছোটভাই আব্দুস সালামের জন্য দোয়া, মহান আল্লাহ তায়ালা তার বেহেশত নসীব করুন। আমিন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর