কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আমাদের গর্বের ফার্স্ট লেডি ভাটিমাতা মমতাময়ী


 শাহ্ ইস্কান্দার আলী স্বপন | ১ সেপ্টেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার, ৭:৫০ | নারী 


তিঁনি বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি, দল-মত-পথ ভেদে দেশের সকল মানুষের প্রিয় অভিভাবক ও শ্রদ্ধারপাত্র তিঁনি, তাঁকে নিয়ে লেখার স্পর্ধা আমার নেই। তবে ডেপুটি স্পিকার ও স্পিকার থাকাকালে এবং সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠান কিংবা অন্য কোন অনুষ্ঠানে তাঁর দেয়া উপদেশমূলক বক্তৃতায় কিশোরগঞ্জের হাওর অঞ্চলের সহজ সরল মানুষের কথোপকথনের মায়াময় বিনয়ের যে সরলতা ও এর সহজাত বৈশিষ্ট্যের স্বতঃসিদ্ধতা তিঁনি স্বতঃস্ফূর্তভাবে উপস্থাপন করেন তা দেশের মানুষের জন্য নিজ অঞ্চলের ভাষার প্রতি শ্রদ্ধা জন্মানোর এক অনুপম শিক্ষা।

এ শিক্ষা দেশের মানুযের জন্য কেবল জ্ঞান অর্জনের জন্যই নয়, বরং তাঁর উৎকৃষ্ট বাচনকৌশলে ইহা মানুষের জন্য পরম উপভোগ্য ও আকর্ষণীয় বটে। তাঁর জন্যই মিঠামইনের আঞ্চলিক ভাষা ও মিঠামইন নামটি এখন দেশ-বিদেশে প্রসিদ্ধ।

তিঁনি প্রায়শই বলে থাকেন যে, বঙ্গভবনে যাওয়ার পর তার ক্ষমতা সীমিত হয়েছে। কিন্তু মানুষ মনে করে তাঁর ব্যক্তিত্বের নিজস্ব আলো ও অনন্য কারিশমায় তিঁনি এখন আরো বেশি ক্ষমতাধর ও জনপ্রিয় ব্যক্তি হয়ে উঠেছেন।

তাঁর ব্যক্তি ও পরিবার কেন্দ্রিক উদাহরণভিত্তিক বক্তৃতাগুলো একদিকে মানুষকে সততা, ন্যায়পরায়ণতা, মনুষ্যত্ববোধ ও উন্নয়নের বাস্তবতার দিকে আহ্বান করছে, অন্যদিকে তেমনি রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পদে আসীন ব্যাক্তি হিসেবে তাঁর উপলব্ধি সরকার ও সরকার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিগণ যথাযথ বাস্তবায়নের মাধ্যমে কল্যাণমূখী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় জনকল্যাণে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে দেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন।

কিছুদিন আগে তিঁনি তাঁর স্ত্রী মিসেস রাশিদা হামিদ'র চিকিৎসার বিষয় উদ্বৃত করে রাষ্ট্রীয় খরচে ইনস্যুলিন ব্যবহার, এর দাম ও অবসরে যাওয়ার পর নিজ খরচে তা পরিশোধের অক্ষমতার কথা জনসমক্ষে বলেছিলেন। এর কিছু দিন পরই আমরা দেখেছি, একদিকে সদাশয় সরকার অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের চিকিৎসা ভাতা বৃদ্ধি করেছেন অন্যদিকে বিভিন্ন ফার্মাসিউটিকেলস্ কোম্পানি ইনস্যুলিনের দাম কমানোর বিষয়ে আলোচনায় বসেছেন।

তবে একটা কথা আমি স্পর্ধা নিয়েই বলছি, মিসেস রাশিদা হামিদ আমাদের গর্বের ফার্স্ট লেডি এবং মায়াবতী ভাটিমাতা, যিনি এখন দেশমাতা। তাঁর বিষয়ে তিঁনি যা কিছু বলতেই পারেন, যেহেতু তিঁনি তাঁর ২৫,০০০ টাকায় কাবিন করা ধর্মপত্নী।

কিন্তু তাঁকে এভাবে বললে আমরা কষ্ট পাই, কেননা দেশের ইতিহাসে পূর্ববর্তী ফার্স্ট লেডি গণের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ তাঁদের জামদানী শাড়ীর সমাহার আমরা স্বচক্ষে দেখেছি। সে হিসেবে আমাদের বর্তমান ফার্স্টলেডি শুধুই সাদা-মাঠা এক রাষ্ট্রপতি পত্নীই নন, সূফিত্ব বাদী ও পূণ্যবতীও বটে।

তাঁর প্রতি আমার একটু আলাদা দুর্বলতা ও জানাশুনা রয়েছে, যা মানুষকে না জানালে তাঁর মানবতা ও পরোপকার ও দেশের জন্য তাঁর অবদান অনুল্লেখিত থাকার কারণে আমি অকৃতজ্ঞ ব্যক্তিতে পরিণত হবো।

তিঁনি একজন মা, রত্নগর্ভা বটে। কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ ও দেশের সবচেয়ে জনসম্পৃক্ত জনপ্রিয় জননেতা ইঞ্জিনিয়ার রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, কিশোরগঞ্জ সদর-হোসেনপুরের জনপ্রিয় তরুণ নেতা জনাব রাসেল আহমেদ তুহিন এবং বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ব্যরিস্টার রিয়াদ আহমেদ তুষার তাঁরই সুসন্তান।

সন্তানের মতোই মায়ের আদরে আজীবন তিঁনি আগলে রেখেছেন ভাটি বাংলার বিশাল অঞ্চলের অসহায় মানুষদের। তাঁর মাতৃত্বের অবারিত আবেদন এখন স্পর্শ করে দেশের আপামর সন্তানেরে।

কিশোরগঞ্জ খরমপট্টির বাড়ি থেকে বঙ্গভবন, তিঁনি তাঁর নিপুণ হাতে অতি যত্নে বুনন করে চলেছেন মাতৃস্নেহের এক মায়াবী চাদর। সম্পর্কে তিঁনি আমার নানু। যেদিন তিঁনি দেশের ফার্স্ট লেডি হলেন, আমার শতবর্ষী বাবা আনসার বাহিনীর প্রতিষ্ঠাতা ও কিশোরগঞ্জের অষ্টবর্গে নিজ বাড়িতে মুক্তিযুদ্ধের প্রথম আশ্রয় শিবির প্রতিষ্ঠাকারী ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শাহ্ মাহ্তাব আলী বলেছিলেন, এ সম্মান তাঁর প্রাপ্তির ন্যায্যতা। বিধাতা তাঁর পাওনা তাঁকে বুঝিয়ে দিতে কাল বিলম্ব করেন নি।

বঙ্গমাতা মোছা: ফজিলাতুন্নেছা মুজিব যেমন দেশপ্রেমের ব্রত নিয়ে নিঃস্বার্থ ত্যাগের বিনিময়ে জনাব শেখ মুজিবুর রহমানকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান থেকে জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান হয়ে উঠেন একটি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় তাঁর অনুপ্রেরণা ও ছায়া সংগীর মতো ছিলেন।

ঠিক তেমনি মিসেস রাশিদা হামিদও এডভোকেট আবদুল হামিদ'কে ৭ বারের অপরাজিত সংসদ সদস্য থেকে ডেপুটি স্পিকার, ডেপুটি স্পিকার থেকে স্পিকার ও আজকের মহামান্য রাষ্ট্রপতি হওয়ার পেছনে অনুপ্রেরণা ও সার্বক্ষণিক ছায়া হিসেবে সংগে আছেন।

আমার স্কুল জীবন ও কৈশোরে মিসেস রাশিদা হামিদ ছিলেন আমার অভিভাবক ও অন্নদাতা। কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় আমাদের অষ্টবর্গের বাড়ি থেকে তিন মাইল দূর। মায়ের সকালের খাবার স্কুলে যেতে হেঁটেই হজম হতো।

সে যুগের শিক্ষার্থীদের টিফিন বক্স বহনের সুযোগ বা প্রচলন ছিলো না। চতুর্থ পিরিয়ডের পর টিফিন ঘন্টা বাজার অপেক্ষায় থাকতাম, কখন ছূটে যাবো খরমপট্টির বাড়ি-চৌচালা টিনের ঘর, সামনে খোলা বড় বারান্দা। বারান্দায় বিশাল ডাইনিং টেবিল, টেবিলে বৃহৎ আকৃতির ভাতের বোল, বড় বোলে আলু দিয়ে গরুর গোস্তের ছালুন, আরো বড় বোলে সুস্বাদু ডাল রসনা সাজিয়ে ক্ষুধানিবৃত্তি ধোঁয়া উড়াচ্ছে।

মহামান্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ তখন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পেশায় তিঁনি আইনজ্ঞ। নেতার কাছে কিংবা মামলার কাজে কিশোরগঞ্জে কোর্টে আসা সারি, সারি ভাটির সন্তান দুপুর হলেই এ বাড়িতে এসে লাইন ধরে বসে যেতো বারান্দায় ডাইনিং টেবিলে সাজানো সারি, সারি চেয়ারে, সংগে আমিও। একদিন নয়, এক মাস নয়, এক বছরও নয় কিশোরগঞ্জের শিক্ষা জীবনের পুরো সাত বছর আমার মধ্যাহ্ন ভোজন ছিলো আমাদের আজকের ফার্স্ট লেডি মিসেস রাশিদা হামিদ'র স্নেহের দান।

তিঁনি নিজ হাতে পাক করতেন। তাঁর হাতের সুস্বাদু খাবার পছন্দ করতেন ভাটির জনক আমাদের মহামান্য রাষ্ট্রপতি আর তাঁর ভাটির সন্তানেরা। কী সৌভাগ্য আমার! কী ধৈর্য্য তাঁর! এতো বছরেও যাঁর চোখে মুখে দেখা দেয়নি বিরক্তি রেখা।

সেদিন বঙ্গভবন গেলাম বহুবছর পর সেই চেনা খাবার, পাতলা সুস্বাদু ডাল। এখন যে আর তাঁর রাঁধার সুযোগ নেই, রাজবাবুর্চিকে নিজের মতো করে শিখিয়ে রেখেছেন যেন পেট ভরে খেতে পারেন ভাটির জনক আর তাঁর আপামর সন্তানেরা।

যাঁর পায়ের স্পর্শে আজ আমি প্রতিষ্ঠিত তাঁর জন্য বঙ্গভবনে কি নিয়ে যাবো ভাবছিলাম! অবশেষে মিলে গেলো আড়াই'শ টাকা দামে একজোড়া জিওর্দানো আরামদায়ক সাইন্টিফিক মোজা। আমার স্ত্রী অধ্যাপক লাইজু আক্তার নিজ হাতে তাকে মোজা জোড়া পরিয়ে দিলেন। আমার মা মারা গিয়েছেন বহু বছর আগে, আমি যেনো তাঁর পায়ের নীচে মাতৃস্নেহ বোধ করলাম।

তিঁনি মিসেসে রাশিদা হামিদ। বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতির পত্নী। আমাদের গর্বের ফার্স্ট লেডি, তিঁনিই ভাটিমাতা। বাংলাদেশের আপামর সন্তানের মমতাময়ী, মহীয়সী মাতা।

আমি তাঁর সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘ জীবন কামনা করি। করুণাময় আল্লাহ তালা তাঁর পরিবার ও সন্তানদের নিরাপদ রাখুন এবং সম্মানিত করুন। আমিন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর