কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


অষ্টগ্রামে ১৭টি শহীদ পরিবার স্বীকৃতির অপেক্ষায়


 বিজয় কর রতন, মিঠামইন | ৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১১:৫২ | অষ্টগ্রাম 


১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী ১৩ জন সহযোদ্ধা এখনও শহীদ হিসেবে তালিকাভূক্ত হয়নি। তারা সকলেই কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলার দেওঘর ইউনিয়নের বাসিন্দা।

জানা যায়, ১৯৭১ সালে আনসার কমান্ডার ইলিয়াছ খানের নেতৃত্বে পাক হানাদার বাহিনী ও রাজাকার বাহিনীর বিরুদ্ধে এলাকায় প্রতিরোধ করায় আনসার বাহিনীর ১৭ জন সদস্যকে একে একে হত্যা করা হয়।

কিন্তু তাদের মধ্যে মাত্র কয়েকজনের নাম শহীদ পরিবারে তালিকাভূক্ত হলেও অন্যরা দীর্ঘদিন যাবৎ প্রক্রিয়াধীন থাকার পর বর্তমানে কার্যক্রম নিস্ক্রিয় হয়ে পড়েছে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মো. ইব্রাহীম মিয়া জানান, ৭১ সালে যারা আনসার বাহিনীতে ছিলেন এবং যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে তাদের হত্যা হয়েছে, তাদের পক্ষে একটি প্রত্যয়ন পত্র দেওয়া হয়।

শহীদ পরিবারের সন্তানগণ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবর দাখিল করেন। পরে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল তদন্ত সংস্থা বিষয়টি আমলে এনে কার্যক্রম শুরু করেন।

কিন্তু এরই মাঝে কয়েকজনের কাজ সু-সম্পন্ন হলেও অধিকাংশ শহীদ পরিবারের স্বীকৃতি মর্যাদা পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার ও দেওঘর কমান্ড বীর মুক্তিযোদ্ধা মমিনউল্লাহর সাথে কথা বললে তিনি জানান, পাক-বাহিনীর বিরুদ্ধে যখন তারা যুদ্ধে চলে যান, ফিরে এসে জানতে পারেন, রাজাকার আল-বদরের সহযোগিতায় পাক-বাহিনীদের হাতে ১৭ জন আনসারসহ অনেকেই প্রাণ দিয়েছেন।

ইতোমধ্যে এলাকার পলাতক সাজাপ্রাপ্ত কুখ্যাত রাজাকারের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থাসহ দ-িত হয়েছে। এসব রাজাকারের নেতৃত্বে পাক-বাহিনীদের গুলিতে প্রাণ দিতে হয়েছে মুক্তিকামী ১৭টি পরিবারের সদস্যদের।

আর সেই দাবি নিয়ে শহীদ আজিজুর রহমান খাঁর ছেলে মো. ছাবু খাঁন দীর্ঘদিন যাবত শহীদ পরিবার স্বীকৃতি পাওয়ার অপেক্ষায় আইনি প্রক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছেন।

একজন সহযোদ্ধার স্ত্রী বৃদ্ধ ছাবু খার মাতা মোছা. আলেহা খাতুন (৮০) জানান, এলাকার কিছু রাজাকারদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে তার চোখের সামনে থেকে ধরে নিয়ে তার স্বামীসহ অনেককেই সারি করে দাড়িয়ে এলোপাতাড়ি গুলি করা হয়েছে। এমনকি তাদের দ্ইু হাত পিছন দিয়ে বেঁধে শরীরে লাঠি মারতে মারতে নিয়ে যায়।

তিনি কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, তয়, মরার আগে যদি আমার স্বামীর সম্মানটা দেইখ্যা যাইতাম তাইলে শান্তি পাইতাম।

শহীদ মর্যাদায় পরিবারগুলোকে স্বীকৃতি দিতে সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন এসব পরিবারের সদস্যরা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর