কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


এখনই চেয়ারে বসতে পারছেন না রফিকুল ইসলাম রেনু


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০, শনিবার, ১০:৫০ | এক্সক্লুসিভ 


কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রেনুকে অপসারণ করে পদটি শূন্য ঘোষণা করে গত ৬ আগস্ট স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের জারি করা প্রজ্ঞাপন স্থগিত করেছেন উচ্চ আদালত।

তবে গত ১৭ আগস্ট প্রদত্ত এই স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে সরকার আপীল করার অর্থাৎ স্থগিতাদেশ Vacate করার আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করায় আদালতের পরবর্তি আদেশ/নির্দেশনা পাওয়ার আগে মো. রফিকুল ইসলাম রেনু পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালনের সুযোগ পাচ্ছেন না।

গত ৮ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপজেলা-২ শাখা থেকে মো. রফিকুল ইসলাম রেনুকে এ সংক্রান্ত একটি পত্র প্রদান করা হয়েছে।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, “মো. রফিকুল ইসলাম (রেনু), চেয়ারম্যান (অপসারণকৃত), উপজেলা পরিষদ, পাকুন্দিয়া, কে তাঁর স্বীয় পদ হতে অপসারন আদেশ স্থগিত সংক্রান্ত মাননীয় হাইকোর্ট বিভাগের ৪০০৫/২০২০ নং রিট পিটিশন মামলায় গত ১৭/০৮/২০২০ তারিখে প্রদত্ত স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে সরকার আপীল করার অর্থাৎ স্থগিতাদেশ Vacate করার আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। ফলে মাননীয় আদালতের পরবর্তি আদেশ/নির্দেশনা পাওয়ার পর পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালনের জন্য সুযোগ চেয়ে দাখিলকৃত তার আবেদনের বিষয়ে পরবর্তি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, গত ১৭ আগস্ট উচ্চ আদালত অপসারণের প্রজ্ঞাপন স্থগিত করার পর স্থগিতাদেশের প্রেক্ষিতে পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালনের জন্য সুযোগ চেয়ে গত ২ সেপ্টেম্বর মো. রফিকুল ইসলাম রেনু আবেদন করেন।

এই আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ৮ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপজেলা-২ শাখা থেকে পত্রটি প্রদান করা হয়।

কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও পাকুন্দিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারকেও এই পত্রের অনুলিপি প্রদান করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে পাকুন্দিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নাহিদ হাসান বলেন, পত্র অনুযায়ী মাননীয় আদালতের পরবর্তি আদেশ/নির্দেশনা পাওয়ার আগে মো. রফিকুল ইসলাম (রেনু)-র পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করার সুযোগ নেই।

প্রসঙ্গত, গত ৬ আগস্ট স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপজেলা-২ শাখা থেকে পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রেনুকে অপসারণ করে পদটি শূন্য ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

উপজেলা পরিষদ আইন, ১৯৯৮[উপজেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন, ২০১১] এর ১৩ক ধারা অনুসারে কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো.রফিকুল ইসলাম (রেনু) কে পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদ হতে অপসারণ করে পদটি শূন্য ঘোষণা করা হলো; এবং পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান-১কে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পরিষদের আর্থিক ক্ষমতা প্রদান করা হলো।

এ আদেশ জনস্বার্থে জারী করা হলো এবং অবলিম্বে তা কার্যকর হবে।

প্রজ্ঞাপনে আরো উল্লেখ করা হয়, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো.রফিকুল ইসলাম রেনুর বিরুদ্ধে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার বরাবর উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যানদ্বয়, পাকুন্দিয়া পৌরসভার মেয়র ও সকল ইউপি চেয়ারম্যানগণের আনীত অনাস্থা প্রস্তাবে বর্ণিত অভিযোগ উপজেলা পরিষদ আইন-১৯৯৮[উপজেলা পরিষদ(সংশোধন) আইন, ২০১১দ্বারা সংশোধিত] এর ১৩(খ) ও ১৩(গ) ধারার স্পষ্ট লঙ্ঘন এবং যেহেতু আনীত অনাস্থা প্রস্তাবের বিষয়ে সরেজমিন তদন্তকালে প্রস্তাবটি পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চার-পঞ্চমাংশের বেশী সদস্যের ভোটে গৃহীত হয়েছে, সেহেতু সরকার উপযুক্ত বিবেচনা করে অনাস্থা প্রস্তাবটি অনুমোদন করেছেন।

পরবর্তিতে গত ২৪ আগস্ট পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদ শূন্য হওয়ায় নির্বাচন অনুষ্ঠান প্রসঙ্গে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব বরাবরে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপজেলা-২ শাখা থেকে একটি পত্র প্রেরণ করা হয়।

এদিকে গত ৬ আগস্ট জারি করা প্রজ্ঞাপনের কার্যকারিতার ব্যাপারে স্থগিতাদেশ চেয়ে মো. রফিকুল ইসলাম রেনু হাইকোর্ট বিভাগে রিট পিটিশন দাখিল করেন। বিচারপতি উবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এ.কে.এম. জহিরুল হক এর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ গত ১৭ আগস্ট রিটের শুনানি শেষে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনের কার্যকারিতা রিট নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত স্থগিতাদেশ প্রদান করে আদেশ দেন।

অন্যদিকে এর আগে গত ৫ জুলাই স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রেনুকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

একই প্রজ্ঞাপনে প্যানেল চেয়ারম্যান-১ কে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পরিষদের আর্থিক ক্ষমতা প্রদান করার বিষয়টিও উল্লেখ করা হয়।

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়, যেহেতু মো. রফিকুল ইসলাম (রেনু), চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ এর বিরুদ্ধে জনৈক বীর মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যার অপরাধে দায়েরকৃত দায়রা মামলা নং-১০৯/০১ (পাকুন্দিয়া থানার মামলা-১৫(৬)৯৯, জিআর-২৪৯(২)৯৯) এ বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক অভিযোগপত্র গৃহীত হয়ে বর্তমানে অতিরিক্ত দায়রা জজ ২য় আদালত, কিশোরগঞ্জে বিচারাধীন আছে এবং

যেহেতু হত্যা মামলার একজন আসামী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে আসীন থাকলে পরিষদের প্রতি জনসাধারণের শ্রদ্ধা ও আস্থা বিঘ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে যা পরিষদ বা রাষ্ট্রের স্বার্থের হানিকর তথা জনস্বার্থের পরিপন্থী।

সেহেতু সরকার জনস্বার্থে তাকে তার স্বীয় পদ হতে সাময়িক বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন;

এমতাবস্থায় উপজেলা পরিষদ আইন ১৯৯৮ [উপজেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন, ২০১১] এর ১৩খ(১) ধারা অনুসারে কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রেনুকে পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদ হতে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো এবং পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান-১কে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পরিষদের আর্থিক ক্ষমতা প্রদান করা হলো।

পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রেনুকে সাময়িক বরখাস্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি করার পর সাময়িক বরখাস্তের আদেশটিও হাইকোর্ট স্থগিত করে। এছাড়া হাইকোর্টের আদেশ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও পাকুন্দিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে পত্র প্রেরণ করা হয়।

গত ২৭ জুলাই স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক পত্রে বিষয়টি জানানো হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ২৪ মার্চ পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্মআহ্বায়ক মো. রফিকুল ইসলাম রেনু দ্বিতীয় বারের মতো উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর