কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় বারোমাসি তরমুজ চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকের


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, রবিবার, ১:৪৭ | কৃষি 


এক সময়কার মৌসুমি ফল তরমুজ এখন পাওয়া যাচ্ছে বছর জুড়ে। বাইরে সবুজ, ভেতরে টকটকে লাল, খেতে সুস্বাদু ও মিষ্টি হওয়ায় ক্রেতাদের কাছে এর কদরও বাড়ছে। দাম একটু বেশি হলেও সারা বছর তরমুজের স্বাদ নিতে পারছেন ক্রেতারা। তাই ক্রেতাদের চাহিদা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলায় বারো মাসি তরমুজের আবাদও বেড়েছে।

গত বছর এখানে মাত্র এক বিঘা জমিতে তরমুজের আবাদ হয়েছিল। এ বছর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার অর্ধ-শতাধিক কৃষক তাদের জমিতে তরমুজের আবাদ করেছেন। অন্য ফসলের চেয়ে অনেক লাভজনক হওয়ায় কৃষকেরা তরমুজ আবাদে ঝুঁকছেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, তিন মাসের সময়কাল তরমুজ চাষের। এ সময়ের মধ্যেই তরমুজ বিক্রির উপযোগী হয়ে যায়। ৬০-৬৫ দিনের মধ্যে পরিপক্ক হয় তরমুজ। তখন থেকেই বিক্রি শুরু হয়ে চলে পুরো এক মাস।

প্রতিটি তরমুজ ৩-৪কেজি পর্যন্ত ওজনের হয়ে থাকে। আকারে যেমনই হোক পরিপক্ক সব তরমুজের স্বাদ ও মিষ্টতা একই। ইতোমধ্যে পুরোদমে চলছে তরমুজ বেচাকেনা। ক্রেতাদের আগ্রহ অনেক বেশি। তারা কৃষকদের জমিতে গিয়ে তরমুজ বাগান দেখছেন ও কিনছেন।

প্রতিদিনই তরমুজ বাগানে আগ্রহী ক্রেতাদের ভীড় লেগে আছে। এতে করে চাষিদের কষ্ট করে তরমুজ বাজারে নিতে হচ্ছে না। বাজার দরও বেশ ভালো। প্রতি কেজি তরমুজ বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০টাকা দরে। তরমুজ চাষ লাভজনক হওয়ায় কৃষকদের মাঝে দিনদিন এর আগ্রহ বাড়ছে।

উপজেলার আঙ্গিয়াদী গ্রামের তরমজু চাষি সালমা জানান, ১০ শতক জমিতে তরমুজ চাষে তার খরচ হয়েছে ২০-২৫ হাজার টাকা। ইতোমধ্যে ৫০ হাজার টাকার তরমুজ বিক্রি করেছেন। আরও প্রায় এক লাখ টাকার তরমুজ বিক্রি করতে পারবেন বলে তিনি আশা করছেন।

অল্প খরচে অধিক মুনাফা পাওয়ায় সারা বছরই তিনি এর আবাদ করবেন বলেও জানিয়েছেন।

কুমড়ী গ্রামের মাসুদ মিয়া পাশ্ববর্তী আঙ্গিয়াদী গ্রামে তরমুজ চাষ দেখে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগের পরামর্শে ১০ শতক জমিতে তরমুজ করেছেন। প্রথমবারই বাজিমাত করেছেন।

ফলন ও ক্রেতার চাহিদা দেখে তিনি পুরো জমিতেই তরমুজের আবাদ করতে পারলে আরো বেশি লাভবান হতেন বলে জানান।

আশরাফুল মোনায়েম নামের একজন ক্রেতা জানান, আঙ্গিয়াদী গ্রামের একটি বাগান থেকে তরমুজ কিনেছেন। অসময়ে সুমিষ্ট তরমুজ খেয়ে বাড়ির সকলে প্রশংসা করেছে। তাছাড়া এখানকার তরমুজগুলো বিষমুক্ত হওয়ায় নির্ভয়ে খাওয়া যায়।

আঙ্গিয়াদী ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ বলেন, প্রথম দিকে কৃষকদের অনেক চেষ্টার মাধ্যমে তরমুজ চাষে সম্পৃক্ত করা হয়েছে। ফসলটি লাভজনক হওয়ায় এখন তা খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। আগামি দিনে আশা করা যায়, অনান্য ফসলের মতো তরমুজও বছরজুড়ে কৃষকের মাঠে থাকবে।

এছাড়া এখানকার কৃষকেরা সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে তরমুজের আবাদ করে থাকেন। সম্পূর্ণ বিষমুক্ত হওয়ায় ক্রেতাদের মাঝেও এর কদর বাড়ছে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. আবদুস সামাদ বলেন, তরমুজসহ বিভিন্ন উচ্চ মূল্যের ফসল চাষে উদ্বুদ্ধ করতে উপজেলা পর্যায়ে কৃষকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কৃষক চাষাবাদের কলা কৌশল জেনে মাঠে প্রয়োগ করতে পারছেন। এতে এখানকার কৃষকেরা বেশ উপকৃত হচ্ছেন।

ভিডিও:




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর