কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


রাষ্ট্রপতির স্বপ্নের নান্দনিক সড়কে বদলে যাচ্ছে হাওরের দৃশ্যপট


 মাজহার মান্না | ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার, ১০:৫৩ | সম্পাদকের বাছাই  


কিশোরগঞ্জের হাওর এলাকায় পর্যটন সম্ভাবনার এক নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হয়েছে। একটি মাত্র সড়ক বদলে দিয়েছে হাওরের সামগ্রিক দৃশ্যপট। সড়কটি নির্মাণের স্বপ্ন দেখেছিলেন ‘ভাটির শার্দুল’ রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তাঁর হাত ধরেই হাওরের বিশাল জলরাশির বুকচিরে বাস্তবায়িত হয়েছে ৩৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটি।

তিন উপজেলা ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রামের মধ্যে সরাসরি সড়ক যোগাযোগের জন্য তৈরি করা নান্দনিক এই সড়কটি এখন হয়ে ওঠেছে সৌন্দর্য্যের এক দুর্নিবার আকর্ষণের নাম। সড়কটি দেখতে দেশের নানা প্রান্ত থেকে ছুটে আসছেন সৌন্দর্য্য আর ভ্রমণপিপাসুরা। হাজারো পর্যটকের পদচারণায় এখন মুখরিত হাওরের একসময়ের অবহেলিত আর প্রত্যন্ত এই জনপদ।

বাংলাদেশের কোথাও হাওরের মাঝখানে এত দীর্ঘ সড়ক নেই। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এঁর স্বপ্নের অলওয়েদার সড়কটি দেখতে ভিড় করছেন। রাস্তার দু’পাশে থৈ থৈ পানি, আকাশে সাদা মেঘের ভেলা। মেঘ আর জলের এই মনোরম মিতালির সামনে বিস্ময় নিয়ে তাকিয়ে থাকা। সড়কের পাশে বসে বুকভরে নির্মল বাতাস উপভোগ আর হাওরের অপরূপ সৌন্দর্য দেখে ক্ষণিকের জন্য পর্যটকদের হারিয়ে যায় মন।

দিগন্ত বিস্তৃত এ সড়ককে ঘিরে দুঃখ ঘুচেছে হাওরবাসীর। বর্ষায় কর্মহীন অনেক মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটেছে। এ জন্য হাওরের সৌন্দর্য উপভোগ করতে আসা হাজারো পর্যটক আর এলাকাবাসী সরকারের কাছে অপার এ লীলাভূমিকে দ্রুত পর্যটন এলাকা হিসেবে ঘোষণার জোর দাবি জানিয়েছেন।

করোনাভাইরাসের সময়েও সৌন্দর্য্য, বিনোদন আর প্রশান্তির এক অনন্য ঠিকানা হয়ে ওঠেছে হাওরের এ সড়কটি। কেবল হাওরের অলওয়েদার সড়কই নয়, মহামান্য রাষ্ট্রপতির বাড়ির পশ্চিমে তিন শতাধিক একর জায়গা নিয়ে মিনি ক্যান্টনমেন্টের প্রস্তাবিত নির্মাণাধীন জায়গার সৌন্দর্য উপভোগ করতেও অনেক ভিআইপিরা আসছেন মিঠামইনে। সচিব, যুগ্মসচিব থেকে শুরু করে বিচার বিভাগসহ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণ কেউ না কেউ প্রতি সপ্তাহে আসছেন। বিশেষ করে সাপ্তাহিক ছুটির দিনে পর্যটকদের উপচেপড়া ভিড় দেখা যায়। এরকম পরিস্থিতিতে ভিআইপিদের প্রটোকল দিতে হিমশিম খাচ্ছে স্থানীয় প্রশাসন।

সম্প্রতি বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সরকারের ৫টি মন্ত্রণালয়ের বর্তমান ও সাবেক সচিব, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যানসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ দৃষ্টিনন্দন সড়কসহ হাওর এলাকা পরিদর্শন করে গেছেন। এ সময় তারা নান্দনিক এ সড়ক নির্মাণের জন্য রাষ্ট্রপতিকে অভিনন্দন জানিয়ে হাওর এলাকাকে পর্যটন হিসেবে ঘোষণার সম্ভাব্যতা যাচাই করেছেন।

এদিকে প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে রাস্তার মনোরম দৃশ্য উপভোগ করতে শত শত ট্রলার মোটরসাইকেল নিয়ে পর্যটক ও পিকনিক পার্টির লোকজন হাওর ভ্রমণে যাচ্ছেন। তবে হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ সড়কের সৌন্দর্য রক্ষা ও রক্ষণাবেক্ষণের স্বার্থে প্রশাসন রাস্তার পাশে নৌ-চলাচল ও মোটরবাইক নিয়ে আসায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, পর্যটকদের ট্রলার যেন মিঠামইন বাজার ঘাটে রেখে রাস্তায় যেতে। কোনো মোটর বাইক নিয়ে যাওয়া যাবে না। এ আদেশ অমান্যকারীর বিরুদ্ধে প্রশাসনিকভাবে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মিঠামইন বাজারের লঞ্চঘাটে স্পিটবোট, ট্রলার, ইঞ্জিনচালিত নৌকা আর লঞ্চের বহর লেগেই থাকে। সেখান থেকে পর্যটকরা পায়ে হেঁটে অলওয়েদার সড়ক ও রাষ্ট্রপতির বাড়ি পরিদর্শন করছেন। প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শনার্থীর ভিড় লেগেই রয়েছে সেখানে।

প্রশাসনিকভাবে রাস্তায় পর্যটকদের মোটরবাইক ও সড়কের পাশে ইঞ্জিনচালিত ট্রলার নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে অটোরিকশা নিয়ে রাস্তায় চলাচল করার অনুমতি রয়েছে। তিন থানার পুলিশের নিরাপত্তায় রয়েছে অলওয়েদার সড়ক পর্যটন কেন্দ্র।

জানা গেছে, জেলার হাওরাঞ্চল ইটনা-মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় সরাসরি সড়ক যোগাযোগের জন্য ২০১৫ সাল থেকে ২০২০ সালের জুন মেয়াদে অলওয়েদার সড়কটি নির্মিত হয়েছে। এ রাস্তাটি স্থাপিত হওয়ায় এসব এলাকার আর্থসামাজিক অবস্থার অভূতপূর্ব উন্নতি হয়েছে। ৮৭৪ কোটি ৮ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সড়কে বহু মানুষ খুঁজে পেয়েছেন কর্মসংস্থান।

ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সড়ক নির্মাণের ফলে হাজারো মানুষের ভাগ্যের চাকা ঘুরেছে। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে লাভবান হয়েছেন এসব উপজেলার মানুষ। হাওরের বুকচিরে নির্মিত দীর্ঘ নান্দনিক সড়ক দেখতে হাজারো মানুষ ভিড় করেন। ফলে এলাকায় ক্ষুদ্র দোকানি, রেঁস্তোরা মালিক, নৌকার মাঝি, নসিমন-করিমন-লেগুনা-অটোরিকশা-মিশুকের চালক মিলিয়ে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য মানুষের।

বছরে ৬ মাস যে হাওরবাসী অলস বসে থাকতো এখন তারা পর্যটকদের সেবায় মহাব্যস্ত। ইটনা থেকে মিঠামইন ও অষ্টগ্রামের সড়ক দেখতে যেতে হয় পানি পথ পাড়ি দিয়ে। ফলে মাঝিরা খুঁজে পেয়েছেন আয়ের উৎস। সবাই ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সড়ক দেখতে আসছেন। একটি মাত্র রাস্তা কীভাবে একটি জনপদের অর্থনৈতিক অবস্থা বদলে দিচ্ছে তা বিষ্ময়কর। দিগন্তবিস্তৃৃত জলরাশি, নয়নাভিরাম সড়ক ও হাওরের অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখতে দেশের নানা প্রান্ত থেকে পর্যটকদের ঢল নামে সেখানে।

সরেজমিনে দেখা যায়, হাওরের মানুষ নানা পেশায় জড়িত। করিমগঞ্জের বালিখোলার মাঝি মোবারক হোসেন। শ্যালো ইঞ্জিনের ট্রলার তার। অন্যান্য সময় ট্রলার দিয়ে মাছ ধরতেন। কিন্তু এখন মানুষ পারাপার করে দৈনিক ৭০০০ থেকে ৮০০০ হাজার টাকা আয় করেন।

মাত্র ১৫ মিনিটে অটোরিকশা চালিয়ে অনেকে আয় করেন ৫০০ টাকা। মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম সড়কের বড় সেতুর কাছে যেতে ১৫ মিনিটের একটি অটোরিকশার ভাড়া ৫০০ টাকা। এতে করে অটোচালক কাজল মিয়ার প্রতিদিন গড়ে আয় ৩০০০ টাকা।

রমেন বিশ্বাস অলওয়েদার সড়কে বোতলজাত পানি বিক্রি করে প্রত্যেহ আয় করেন ৫০০ টাকা। রিকশাচালক আলমগীরের আয় ১৫০০ টাকা। রতিচন্দ্র বর্মন সড়কে সকালে আচার আর বিকেলে মুড়ি বিক্রি করে আয় করেন ২০০০ টাকা।

নওয়াব মিয়া মিঠামইনের ইসলামপুর ঘাটে অস্থায়ী দোকান বসিয়ে সকালে চা আর বিকেলে বুট-মুড়ি বিক্রিতে গড়ে আয় করেন ২০০০ টাকা। হাওরে পর্যটকের ভিড় লেগে থাকায় বর্ষা মৌসুমে বেকার বসে থাকা এমন অনেকের ভাগ্য খুলেছে।

মিঠামইনে অনেক হোটেল গড়ে উঠেছে। শুক্রবার ও শনিবার মিঠামইনে যেন মেলা বসে। এ সময় ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকার মাছ-ভাত বিক্রি হয়। অধিকাংশ মানুষকে হোটেলে খাওয়ার জন্য দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়।

এদিকে ভ্রমণে আসা লোকজনের অভিযোগের প্রেক্ষিতে মিঠামইন সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও রাষ্ট্রপতির ভাতিজা অ্যাডভোকেট শরীফ কামাল পর্যটকদের যাতায়াতের জন্য অটোরিকশা-মিশুকের ভাড়া নির্ধারণ করে দেয়াসহ খাবার হোটেলগুলোতে মূল্য ঠিক করে দিয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ জজকোর্টের আইনজীবী ও জেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক ঢাকা থেকে আসা কয়েকজনের একটি গ্রুপ নিয়ে ভ্রমণে এসেছেন। এ সময় তিনি বলেন, ইচ্ছা থাকলে উন্নয়ন সম্ভব মহামান্য রাষ্ট্রপতি তা দেখিয়েছেন। পর্যটকদের জন্য বাংলাদেশে এ সড়কটি নতুন মাত্রা যোগ করেছে। এত চমৎকার সড়ক সত্যিই বিস্ময়কর। হাওরের সতেজ মাছ খাওয়াসহ ঘুরে বেড়ানোর জন্য এলাকাটি অন্যতম পর্যটন স্থান বলে তিনি মনে করেন।

অনেক পর্যটক জানান, রাস্তার পাশে হাওরের মধ্যে হোটেল-মোটেল তৈরি করার একান্ত প্রয়োজন। কারণ এখানে সরকারি দুটি ডাকবাংলো ছাড়া রাত্রিযাপন করার মত ভালো কোনো হোটেল নেই। অনেক পর্যটক পরিবার-পরিজন নিয়ে এসে থাকার জায়গার অভাবে দিনব্যাপী ঘুরে নিজ নিজ গন্তব্যে চলে যেতে বাধ্য হন।

তাদের মতে, সড়কের দু’পাশে সাঁতার কাটার জন্য বিশাল জায়গা রয়েছে। এখানে হোটেল-মোটেল হলে মানুষ আর সমুদ্রপাড়ে যাবে না। তাছাড়া এই অলওয়েদার সড়ক হাওরের সৌন্দর্য্যকে মোহনীয় করে তুলেছে। পাশেই অত্যাধুনিক মেরিন একাডেমি নির্মাণ করা হচ্ছে। ক্যান্টনমেন্টের পাশে ঘোড়াউত্রার পুরাতন নদীতে হবে ক্যান্টনমেন্ট লেক। এ জন্য সাপ্তাহিক ছুটির দিনে হাওরে প্রচন্ড ভিড় লক্ষ্য করা যায়।

দিনের আলো থাকা পর্যন্ত অসাধারণ স্মৃতি সাথে নিয়ে যেতে ব্যস্ত থাকেন পর্যটকরা। এই অলওয়েদার সড়কটি আকর্ষণ বাড়িয়ে দিয়েছে পর্যটকদের কাছে। তাই তারা বহুদূর থেকে ছুটে আসছেন এই সড়কটি দেখবার জন্য। একটি সড়ক যে পর্যটকদের কাছে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হতে পারে হাওরের বুকে নির্মিত এই রাস্তাটি তার উজ্জ্বল উদাহরণ।

সমুদ্রে সূর্য ডোবার দৃশ্যের সঙ্গে অদ্ভুত মিল এখানে। সূর্যের সময় লালচে আকাশে ফুটে উঠে ভিন্ন রূপ। হাওরের ঢেউ আর বাতাসের শ-শ শব্দের দিগন্তবিস্তৃত এ সড়কের সৌন্দর্য ধরে রাখতে চান স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা। এ জন্য প্রশাসন ইতোমধ্যে নানামুখী  পদক্ষেপ নিয়েছে।

মিঠামইনের ইউএনও প্রভাংশু সোম মহান বলেন, অলওয়েদার সড়ক হাওরের সৌন্দর্য্যকে বৃদ্ধি করেছে। সড়কের কাজ এখনো শেষ হয়নি। এরই মধ্যে প্রতিদিন কোনো না কোনো ভিআইপি আসছেন মহামান্যের বাড়ি ও দৃষ্টিনন্দন সড়কটি দেখতে। মাঝে মাঝে পুলিশের প্রটোকল দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

এছাড়া সড়কটি নির্মিত হওয়ায় হাজারো মানুষের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। এর আগে এখানকার অনেক মানুষ দিনে ৫০০ টাকা আয় করতে পারতো না। অথচ এখন একই ব্যক্তি দিনে কমপক্ষে ২০০০ হাজার টাকা আয় করছেন।

তাঁর মতে, মিঠামইনে ১০ থেকে ১৫ হাজার মানুষের নতুন কর্মসংস্থান তৈরি হয়েছে। একইভাবে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে অষ্টগ্রাম ও ইটনায়ও। মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থা এত দ্রুত বদলে যাবে তা কল্পনাও করেনি। সবই সম্ভব হয়েছে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এঁর কল্যাণে।

কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য ও রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক বলেন, সড়কটি নির্মাণের ফলে পর্যটকরা এভাবে ভিড় করবেন প্রথমে আমরাও সেটি বুঝতে পারিনি। রাস্তাটি সত্যিকার অর্থে প্রয়োজনের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এ সড়কটি হওয়ার ফলে তিন উপজেলার মানুষের যোগাযোগসহ পরস্পরের প্রতি সম্প্রীতির বন্ধন সৃষ্টি হয়েছে।

ভ্রমণ করতে আসা পর্যটকদের জন্য আগামীতে হোটেল-মোটেল নির্মাণ করাসহ নানা সুযোগ-সুবিধা তৈরি করা হবে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, মানুষ এখন আর কুয়াকাটা সমুদ্র বন্দর যেতে চায় না। হানিমুনের জন্য এটাই উপযুক্ত স্থান বলে মনে করি। হাওর তথা দেশের এ সম্পদকে রক্ষা করার জন্য তিনি সকলে প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর