কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বন্ধুবৃত্তের ঝরে যাওয়া ফুল - বুলবুল


 শাহ্ ইস্কান্দার আলী স্বপন | ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৭:৪০ | মত-দ্বিমত 


ছেলেবেলায় বুলবুলের সাথে চেনা জানা অল্প বিস্তর ছিলো বৈকি। তখন কেবল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছি। ময়মনসিংহ হয়ে বাসে চড়ে শম্ভুগঞ্জ ফেরী পাড়ি দিয়ে ঢাকা যেতে হয় না আর।

সম্প্রতি চালু হওয়া কিশোরগঞ্জ-ঢাকা লাক্সারী ট্রেন এগারোসিন্দুর কম্পার্টমেন্টে বসে বই পড়ছি। চোখ তুলে তাকিয়ে দেখি সামনের সীটে বসা  হ্যান্ডসাম যুবক বুলবুল। তখনই সে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। তার শাহ্জাদী জর্দা কিশোরগঞ্জের প্রতিঘরে পরিচিত ও জনপ্রিয় ব্র্যান্ড।

একটু একটু করে আমাদের মধ্যে  কথা শুরু হলো, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে না পারায় কিছুটা আফসোস মনে নিয়েও অল্প বয়সেই পড়াশুনার পাশাপাশি ব্যবসা আর সামাজিক ভাবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার অসামান্য যোগ্যতা আর প্রত্যয় মুহুর্তেই বুলবুলের ফর্সা চেহারায় গোলাপি মুখাবয়বে রোদ্দুরের উজ্জ্বলতায় ভরিয়ে দিলো।

দিন যায়, রাত আসে সময়ের বিবর্তনে প্রতিটি মানুষ তার অবস্থান, আপন সত্বা ও পরিবারের নিজস্ব বৃত্তে ঘোরপাক খায়, নিয়তির সময় নিরবে গড়িয়ে যায়।

বিশ্ববিদ্যালয় শেষ করে প্রথমে চাকুরী ও পড়ে স্বীয় ব্যবসায় সময় দিতে গিয়ে নিজের অজান্তেই ঢাকার বাসিন্দা হয়ে যাই। ক্রমশ: ঝাপসা হয় প্রিয় স্মৃতি, জন্মভিটা অষ্টবর্গের শাহ্ বাড়ি, মেটোপথে মল্লিকপুর ফ্রি প্রাইমারী স্কুল, অনেকদূর হেঁটে যেয়ে বারহাটির গোপাটের শেষ প্রান্ত, পাকা রাস্তায় মাত্র চার আনার বিনিময়ে কিংবা পয়সা ছাড়াই রিকসা চালকের জন্য নির্ধারিত সীটে বসিয়ে কিশোরগঞ্জ সরকারি উচ্চ বালক বিদ্যালয়ে পৌঁছে দেয়া রিকসা চালকের ঔদার্য, প্রিয় শিক্ষক, বাল্যবন্ধু, চেনা শহর, চেনা মানুষ সবকিছু।

বয়স বাড়ে, অবচেতন মন ডুকরে কাঁদে গোপনে খুঁজে সে আপন শৈশব, কৈশোর আর উড্ডীন যৌবন। ফিরে পেতে চায়, যেতে চায় সে আপন ঠিকানায়।

হঠাৎ একদিন বুলবুলের সাথে দেখা, সে যেনো গোলাপের ডালে সবুজ পাতার আড়ালে এক বৃত্ত, অনেক পাঁপড়ি ধরে রেখেছে বন্ধুত্বের অনড় টানে বন্ধুবৃত্ত নামক বন্ধুদের দ্বারা পরিচালিত এক সামাজিক সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও আহবায়ক মো. মাহবুবুর রহমান বুলবুল। তার আহ্বানের সুযোগ হাতছাড়া না করে আমি অংশ নিলাম। মাজু, রতন, স্বপন, হেলাল, মাকসুদ, এমদাদ, ভাজন আরো অনেক বন্ধু আমাদের এই বন্ধুবৃত্তে।

যখনি যুক্ত হলাম মনে হলো যেনো নিমেষেই কেটে গেলো কিশোরগঞ্জের সাথে যুগান্তরের দূরত্ব।

কিশোরগঞ্জ এলেই চলে যাই বড়বাজার বুলবুলের গদি, বুলবুলকে ঘিরে সকল বন্ধুরা পড়ন্ত বিকেলে পড়ন্ত সময়ের সরেস আড্ডায় মেতে যাই, আড্ডার ফাঁকে কাঁচা মরিচ দিয়ে গরম সিংগাড়া, পানপট্টির মিষ্টি জিলাপি আর গজা, চিনি মাখানো গরম গজা বুলবুলের ভীষণ প্রিয়।

তার উচ্চ ডায়াবেটিক ভাবীর বারণ ভুলে সখ করে পেট পুরে খেয়ে নেয় পরম তৃপ্তিতে, সাথে আমরাও। রাত দশটার পর শহীদী মসজিদের সামনে চা স্টলে বা পাকা মেঝেতে বসে সকল বন্ধুরা মিলে চায়ের আড্ডায় পারিবারিক আর জাগতিক গল্প।

আমার যেহেতু শহরে বাসস্থান নেই দেখা পেলেই বুলবুল তার বাসায় নিয়ে যেতো। সে ফিসারীর ব্যবসায়ী, ঘরে তার সদ্যধৃত নানা রকম মাছ, ভাবী পাকা রাঁধুনি বড় বড় কাল্লা (ফলুই) মাছ চমৎকার করে ভেজে পরিবেশন করতেন, আর ঢাকা যাওয়ার পথে খাওয়ার জন্য বক্সে করে গাড়িতে দিয়ে দিতেন। আমি ইচ্ছে করেই না খেয়ে বাসায় নিয়ে ফিরতাম, এই মাছভাজা আমার ছেলে-মেয়ের ভীষণ পছন্দ। বাক্স খুলে ওরা দুভাই বোন কাড়াকাড়ি করে খেতো।

প্রথমবার ব্রেন স্ট্রোক হওয়ার পরই বুলবুলের বাক শক্তি কমে যায়। সিংগাপুর, থাইল্যান্ড সহ আমাদের দেশি প্রখ্যাত ডাক্তার দীন মোহাম্মদ তার চিকিৎসা করেন। কিন্তু তাতে তার স্বাস্থ্যের তেমন উন্নতি হচ্ছিলো না। অবশেষে আমার পরামর্শে ও ভাবীর আগ্রহে ঢাকায় এপোলোতে ডা. সঞ্জীব কুমার দাস'র চিকিৎসায় বাকশক্তি কিছুটা ফিরে পায়।

বুলবুলের অসাধারণ ধৈর্য ও মনোবল তার বন্ধুপ্রীতি অসামান্য বন্ধুদের ভালো মন্দের খোঁজ নেয়া তাদের উপকারে এগিয়ে আসা ছিলো তার স্বভাবজাত প্রবণতা। আমার বৃদ্ধ বাবাকে দেখার জন্য প্রায়শই বুলবুল চলে যেতো আমাদের অষ্টবর্গের বাড়ি, বন্ধুর বাবার প্রতি কি অসাধারণ শ্রদ্ধা আর দায়িত্ব তার!

দীর্ঘ দিনের অসুস্থ্যতা নিয়েও সে দেশে ও দেশের বাইরে আমাদের ভ্রমণ, পিকনিক কিংবা সংগঠনের মিটিংগুলোতে শতভাগ উপস্থিত থেকে আনন্দঘন পরিবেশ সৃষ্টি করে সকলের প্রিয়ভাজন হয়েছে।

মো. মাহবুবুর রহমান বুলবুল ছিলো বহুমুখী ব্যবসা ও শিল্প প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তা। কিশোরগঞ্জে বসবাস করলেও দেশ বিদেশে উদ্ভাবিত সকল ব্যবসার সম্যক ধারণা রাখতো বুলবুল। জীবনভর সে  নিজের ব্যবসায়ী সাফল্য ও সুখ্যাতির পাশাপাশি শিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত ও অশিক্ষিত অসংখ্য মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে বাংলাদেশে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

জীবনের শেষ সময়েও অসুস্থতাকালীন অবসরে না গিয়ে বুলবুল তার সমগ্র ব্যবসার সাথে বৈশ্বিক ব্র্যান্ড নেসলের ডিস্ট্রিবিউশনের মতো সম্মানজনক ব্যবসাটিও দক্ষতার সাথে তার জীবনের শেষ দিনটি পর্যন্ত পরিচালিত করে।

ধর্মপ্রাণ বুলবুল পাঁচ ওয়াক্ত নামাজি হজ্বব্রত পালনকারী ও পরোপকারী ও অত্যন্ত বন্ধুবৎসল মানুষ ছিলো।

নিয়তির কি নির্মম নিয়ম, কাল (রোববার, ২০ সেপ্টেম্বর) সকালে ঘুম ভেঙে শুনি, প্রিয় বন্ধু বুলবুল নেই।

যে বন্ধুটি চিকিৎসার জন্য ঢাকার এপোলো হাসপাতালে এক ঘন্টার জন্য এলে প্রবল আগ্রহে আমি সেখানে পৌঁছে যেতাম, ডাক্তারের সাথে কথা বলতাম, তার ভালো মন্দ জেনে আশ্বস্ত হতাম সেই বন্ধুটির মৃত্যু সংবাদ পেয়েও নিজের অসুস্থতা জনিত কারণে তাকে শেষ দেখার সুযোগটিও পেলাম না।

বুলবুল কিশোরগঞ্জের এক অদম্য সাহসী উদ্যোক্তা, সৎ ব্যবসায়ী ও সফল শিল্পপতি। বুলবুলের স্মৃতি ও তার কর্মযজ্ঞ কিশোরগঞ্জের বহুমুখী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান স্থাপন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও শিল্পায়নের উন্নয়নে মাইল ফলক হয়ে থাকবে।

আমি বুলবুলের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি ও তার স্ত্রী ও পুত্র কন্যা যেনো এই শোক সইতে পারেন, তার জন্য পরম করুণাময় আল্লহ্তালার কাছে প্রার্থনা করছি। আমিন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর