কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কদম্বতলে বংশী আর বাজে না, তবু ডেকে যায় নীপবন


 মাজহার মান্না | ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, শুক্রবার, ১১:৩১ | রকমারি 


বর্ষায় বাদল-দিনে কদম ফুটে। তবে একই সময় আরও অনেক ফুল ফুটে। সে যতই ফুটুক, কদম স্পেশাল। বর্ষাকে বাঙালি এ ফুল দিয়েই চেনে। ফুলটি ফুটলেই বোঝা যায়, বর্ষার কাল চলছে। অথবা বর্ষা শুরু হলেই চোখ খুঁজে বেড়ায় কদমের ফুল।

সুদৃশ্য পৃথিবী অদৃশ্য শত্রুর কাছে আজ ধরাশায়ী। এই মুহুর্তে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সংকটের নাম করোনা। পৃথিবীর মানচিত্রে এমন কোনো দেশ নেই যে, করোনা মহামারিতে আক্রান্ত হয়নি। আর এর মধ্য দিয়ে বিশ^ ব্যবস্থার এক বড় পরিবর্তনের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। পরিবেশ-প্রকৃতিতেও এসেছে বড় পরিবর্তন।

বিজ্ঞানীরা ধারণা করছেন, করোনা এক নতুন পৃথিবীর জন্ম দেবে। খুলে দেবে সম্ভাবনার নতুন নতুন দিগন্ত। কিন্তু সেই আশাবাদের মধ্যে আছে শঙ্কা, আছে উদ্বেগ।

প্রকৃতিতে এখন চলছে শরতকাল। বর্ষা বিদায় নিয়েছে অনেক আগে। তাহলে এই সময়ে এসে কেন কদমের কথা? কারণ আছে। সম্প্রতি বর্ষায় ফুলটিকে তেমন দেখা যাচ্ছে না। শহরে তো একদমই নয়। বর্ষা যাই যাই করছিল যখন, অল্প স্বল্প ফুটতে শুরু করে। আর এখন শরতের কালে এসে দেখা যাচ্ছে গাছভর্তি ফুল। বর্ষার কাল বিদায় নিলেও, বৃষ্টি অব্যাহত আছে। বৃষ্টির জলে ধোয়া ফুল মুগ্ধ করে রেখেছে প্রকৃতিকে।

এখন অধিকাংশ গাছেই ফুল। উপরের দিকে তাকাতেই মন ভাল হয়ে যায়। কানে বাজে: এসো নীপবনে ছায়াবীথিতলে, এসো করো ¯œান নবধারা জলে...। আর প্রেয়সী কদম্ব তলে ছুটে আসতে মরিয়া।

এই যেমন প্রেমিক পুরুষের জন্য আকুতি প্রকাশ করতে গিয়ে গ্রামীণ নারী গাইছে: প্রাণ সখিরে/ঐ শোন কদম্ব তলে বংশী বাজায় কে/বংশী বাজায় কে রে সখী/বংশী বাজায় কে/আমার মাথার বেনী বদল দেব/তারে আইনা দে...।

কদম ফুল দেখতে গোলাকার। ছোট টেনিস বলের মতো। মাংসল অংশটিকে আড়াল করে রাখে অপরূপ মঞ্জরি। পূর্ণ প্রস্ফুটত মঞ্জরিতে কমলা ও সাদা রং স্পষ্ট। ফুলের বৃতি সাদা। দল হলুদ। ফুলটিই পরে ফলে পরিণত হয়। কাঠবিড়ালী বেশ মজা করে খায়। এমনকি গ্রামের দুরন্ত ছেলেদের ফলটি খেতে আমি নিজেও দেখেছি। পাতাও বেশ সুন্দর। বড় এবং কিছুটা ডিম্বাকৃতির। বড় ও ঘন পাতার কারণে গাছের নিচটা ছায়াঘন ও সুশীতল থাকে। কদম গাছ দীর্ঘাকায় বৃক্ষ। সরল কা- উপরের দিকে বহু দূর পর্যন্ত উঠে যায়। শাখা-প্রশাখাও অনেক। এগুলো ভূমিভাগের সমান্তরালে প্রসারিত হয়।

করোনার কাল চলছে। জ্বর হচ্ছে প্রচুর মানুষের। কিন্তু অনেকেই জানেন না যে, কদম গাছের ছাল জ্বরের ওষুধ হিসেবে বেশ উপকারী। তবে সবার আগে ফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করা চাই। বলা চলে মৌসুম চলছে এখন। ফুলপ্রেমীরা আশপাশে তাকান উপভোগ করুন কদমের সৌন্দর্য।

সবশেষে প্রত্যাশা, সংকটের দীর্ঘতম রজনী শেষে একসময় ভোরের আলো ফুটবে। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় চলমান করোনাকাল অতিক্রম করে আমরা ফিরে যাবো স্বাভাবিক জীবনে। সেই দিনের জন্য আমাদের ধৈর্য্য ধারণ করে অপেক্ষায় থাকতেই হবে। এ জন্য করোনা মোকাবেলায় সকলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন।

# মাজহার মান্না: সাংবাদিক-লেখক ও কর আইনজীবী, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর