kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

গানকে ঘিরেই স্বপ্ন-সাধনা বাউল সোহেল সরকারের



 স্টাফ রিপোর্টার | ১৫ জানুয়ারি ২০১৮, সোমবার, ১২:০১ | ভিডিও খবর  


গানকে ঘিরেই সব স্বপ্ন-সাধনা বাউল এফ এম সোহেল সরকারের। গানের মাঝেই আত্মপরিচয় খোঁজে বেড়ান এই তরুণ। বাউল গানের বাউলিয়ানায় মাতান ভক্ত-শ্রোতাদের। কিশোরগঞ্জের তরুণ এই বাউলশিল্পী তার দরাজ গলার গান দিয়ে সাড়া জাগিয়ে চলেছেন প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে ব্যস্ত নগর সর্বত্র।

পালা গান, মুর্শিদী গান আর বিচ্ছেদ গানের ঝংকারই কেবল নয়, তাঁর বেহালার সুরে বিমোহিত হন আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা। শ্রোতাপ্রিয় এই বাউল গানের শিল্পীর পুরো নাম ফকির মো. আশরাফ হোসেন সোহেল উরফে বাউল এফএম সোহেল সরকার।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বাদে শোলাকিয়া ফকির বাড়ীর মরহুম ফকির মো. হাবিবুর রহমানের ছেলে ফকির মো. আশরাফ হোসেন সোহেল উরফে বাউল এফএম সোহেল সরকারের এখন পর্যন্ত তিনটি ভিডিও অ্যালবাম বের হয়েছে। আরো দু’টি ভিডিও অ্যালবাম বের হওয়ার পথে রয়েছে।

বাউল শিল্পী হিসেবে আত্মপ্রকাশের সূচনার কথা বলতে গিয়ে বাউল এফএম সোহেল সরকার জানান, তাদের ফকির বাড়ীতে প্রতি বছর ২৮শে অগ্রাহায়ণ তার বাবা মরহুম ফকির মো. হাবিবুর রহমানের দাদা সুফী সাধক হযরত খোদানেওয়াজ ফকির সাহেবের মাজার প্রাঙ্গণে বাৎসরিক ওরশ মাহ্ফিল হয়। এই ওরশ মাহফিলে দেশের বড় বড় বাউল শিল্পীরা বাউল গান পরিবেশন করেন। বাউল গানের এই আবহই তাকে বাউল গানের প্রতি অনুরক্ত করে তুলে।

এফএম সোহেল সরকারের বয়স যখন ১৮-১৯ বছর, তখন তার বাবা সুফী সাধক হযরত খোদানেওয়াজ ফকির সাহেবের শিষ্য এবং একমাত্র খলিফা সূফী সাধক হযরত আঃ মালেক ফকির সাহেবের নিকট এফএম সোহেল সরকারকে বায়াত গ্রহণ করান। সেই পরিবেশ তাকে বাউল গান শেখার উৎসাহ যোগায়। এভাবেই গানের সুর আর কথার সঙ্গে পরিচয় ঘটে এফএম সোহেল সরকারের।

পরবর্তিতে কিশোরগঞ্জ সদরের যশোদল গ্রামের বাউল আঃ কুদ্দুস সাহেবের কাছে তালিম নেন সোহেল। সেখানে বেহালা বাজানোসহ বিভিন্ন পালাগান, মুর্শিদী গান, বিচ্ছেদ গানের ওপর পাঠ নেন তিনি। প্রায় ৩ বছর তালিম নিয়ে এফএম সোহেল সরকার বিভিন্ন জায়গায় গান গাওয়া শুরু করেন।

গান গাইতে গিয়ে এফএম সোহেল সরকারের পরিচয় ঘটে কিশোরগঞ্জ সদরের গাইটাল নামাপাড়ার ওয়াহাব মাস্টারের সাথে। তিনি সোহেলকে বাউল গানের তথ্য ও গান লিখার কলাকৌশল শেখান।

একপর্যায়ে ওয়াহাব মাস্টারের কথা ও সুরে একটি ভিডিও এল্যাবাম করেন এফএম সোহেল সরকার। অ্যালবামটি ‘আমি বন্ধু হারা’ নামে বাজারজাত হয়। এছাড়া নেত্রকোণার বাউল কিতাব আলীও এফএম সোহেল সরকারকে তালিম দেন।

বাউল এফএম সোহেল সরকারের দ্বিতীয় এবং নিজের লেখা ও সুরে প্রথম অ্যালবামের নাম ‘কি জাদু করিলাম কেল্লা’। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার খরমপুরের মাজার নিয়ে বের করা এই ভিডিও অ্যালবামটির ‘আমি কিশোরগঞ্জের সোহেল সরকার যাব কেল্লার মাজারে’ গানটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়।

এর পরেই এফএম সোহেল সরকারের তৃতীয় ভিডিও অ্যালবাম বের হয় ‘কিশোরগঞ্জের রূপকথা’ নামে। এই অ্যালবামের ‘আইলানারে প্রাণের বন্ধু দেখলানা আসিয়া, কিশোরগঞ্জে আইসোরে বন্ধু, দেখাইব ঘুরাইয়া’ গানটি এখন মানুষের মুখে মুখে।

প্রকাশিত এই তিনটি ভিডিও অ্যালবামের বাইরে আরো দু’টি ভিডিও অ্যালবামের কাজ করছে বাউল এফএম সোহেল সরকার। এই দু’টি ভিডিও অ্যালবামের একটি নেত্রকোণার হযরত শাহ্ সুলতান কমর উদ্দিন রুমী (রঃ) স্মরণে ‘জিন্দা ওলি শাহ্ সুলতান’ আর অপরটি বিচ্ছেদ গান ‘গোলাপ সুন্দরী’।

বাউল এফএম সোহেল সরকার বলেন, আমি একজন বড় গায়ক হতে চাই। বাংলার লোক সংস্কৃতিকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরতে চাই। এটিই আমার স্বপ্ন ও ধ্যান-জ্ঞান। এজন্যে তিনি সকল শ্রেণিপেশার মানুষের দোয়া, সহযোগিতা ও ভালবাসা চেয়েছেন।

বাউল এফএম সোহেল সরকারের গাওয়া একটি গান:




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর

















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ