www.kishoreganjnews.com

আগে চাই শিক্ষার উন্নয়ন



[ এম এ বাতেন ফারুকী | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭, শুক্রবার, ২:৩৬ | মত-দ্বিমত ]


একটি দেশ ও জাতি কতটুকু উন্নত তা জানার জন্য সর্বাগ্রে জানতে হবে সে দেশ ও জাতি শিক্ষায় কতটুকু এগিয়ে। কোনো বিষয়ে উন্নতি কিংবা কোনো সমস্যার সমাধান চাইলে ঐ বিষয় বা সমস্যাটিকে আমলে নিতে হবে। আরও স্পষ্ট করে বলতে গেলে ঐ বিষয়ে দুর্বলতা কিংবা সমস্যা সমাধানে ব্যর্থতা আছে সেটি আগে মেনে নিতে হবে তবেই তা নিয়ে কাজ করার পথ সুগম হবে। আশার কথা মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী আমাদের শিক্ষার মান বাড়াতে হবে এটুকু উপলব্দি করতে পেরেছেন। যার দরুন শিক্ষাবিদদের নিয়ে নড়েচড়ে বসা শুরু হয়েছে।

বর্তমান শিক্ষা কমিশনে জাতির আশা-আকাঙ্খা ও কৃষ্টি-কালচারের মোটামুটি প্রতিফলন ঘটেছে বলা যায়। কিন্তু এতেই শিক্ষা তার কাঙ্খিত গতিপথ পেয়ে যাবে তা মোটেই আশা করা যায় না। শিক্ষা কমিশনের আলোকে শিক্ষাক্রম বা পাঠ্যক্রম ও পাঠ্যসূচি প্রণয়ন করতে হবে। এবং এগুলো প্রণয়নে গঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটির সম্মানিত সদস্যগণ কর্তৃক শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যসূচি প্রণয়ন করতে হবে। সাচিবিক কাজসহ প্রক্রিয়ার সকল স্তরে তাঁদেরকে সক্রিয় থাকতে হবে। পরবর্তী পর্যায়টি সবচেয়ে গুরুত্ববহ; পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন। পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন কমিটি গঠনে কোনো রকম ব্যক্তিপ্রিয়তা বা শৈথিল্য প্রদর্শন করা যাবে না।পাঠ্যপুস্তকের মান নিয়ে অসন্তুষ্টির কথা বরাবর-ই শুনা যায়।বিষয়টি অত্যধিক গুরত্বের দাবি রাখে যে, শিক্ষার আধুনিকায়নের যুগে এবং ওয়ার্ল্ড ডিজিটালাইজেশনের যুগেও পাঠ্যপুস্তক প্রমিত মানে উপনীত হতে পারেনি। এক্ষুনি খতিয়ে দেখার সময় হয়েছে আমরা যাঁদেরকে পাঠ্যপুস্তক প্রণয়নের মত মহান দায়িত্বটি দিই তাঁরা দায়িত্ব পালনে কতটুকু দায়িত্ববান। বিষয়ভিত্তিক শিক্ষকগণ যারা আগ্রহী ও লেখালখিতে পারদর্শী এবং কাউকে দিয়ে শ্রুতলিপি লেখান না তাদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করতে হবে। যার নিদর্শন বর্তমানে দেখা যাচ্ছে।বিগত কয়েক বছর আগেও বিশেষ করে পাঠ্যপুস্তক আধুনিকায়নের(?)আগে যে কাঠামোর পাঠ্যপুস্তক ছিল সেগুলো বরং অপেক্ষাকৃত চিত্তাকর্ষক ও শিক্ষাবান্ধব ছিল। একজন সৃজনশীল মেধাবী ব্যক্তি (জ্ঞানীও বটে)ইচ্ছা করলেই শিক্ষার্থীদেরকে কাঙ্খিত পাঠ্যপুস্তক উপহার দিতে পারেন। এদেশে এমন ব্যক্তিত্বের মোটেও অভাব নেই।তাঁদের মেধা ও সৃজনশীলতাকে কাজে লাগানোর ইচ্ছা থাকতে হবে।

পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ কাজটি হলো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপন ও শিক্ষক নিয়োগ। বাংলাদেশে এখনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপনে ব্যক্তি উদ্যোগই সর্বপ্রধান উপায়। সরকারিভাবে ব্যক্তি নামে প্রতিষ্ঠান স্থাপনের সুযোগ করে দিলে এ বিষয়ে সরকারকে খুব একটা বেগ পেতে হবে না। এ অংশে বাকি থাকে শিক্ষক নিয়োগ। এ গুরুদায়িত্ব সরকারকেই নিতে হবে। এতে কোনো ধরনের বিকল্প খোঁজার অবকাশ নেই। মান সম্মত শিক্ষার জন্য চাই মান সম্মত শিক্ষক। শত রাজনৈতিক টানাপোড়ন কিংবা অস্থিরতার মাঝেও আমাদেরকে জাতীয় গুরত্বের বিষয়সূচিতে   শিক্ষাকে সবার উপরে রাখার চেষ্টা করতে হবে। কিন্তু পরিতাপের বিষয়,মাঝেমধ্যে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা পলিটিক্যাল স্ট্যান্ট-এর শিকারে পরিণত হয়-যা মোটেও কাম্য নয়। শিক্ষাকে বাঁচানোর জন্য সরকারকে সদিচ্ছা ও সাহস (প্রয়োজনে দুঃসাহস) এ দুটোই দেখাতে হবে। শিক্ষাকে জাতীয়করণ করে সরকারকে সাহসী ভুমিকায় অবতীর্ণ হতে হবে। তবেই শিক্ষা পাবে তার আসল গতি। এজন্য একটি মেগা ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিয়ে এগুতে হবে। বিলম্ব না করে শিক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত আইনে রুপদানের আগেই সংশোধনী আনা যেতে পারে অথবা সংযোজন করা যেতে পারে অথবা বিধি-সংবিধি প্রণয়ন করা যেতে পারে। সরকারের কাছে বিশেষ অনুরোধ দেশের প্রথিতযশা শিক্ষবিদদের উপদেশ ও দিকনির্দেশনা গ্রহণপূর্বক শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজান এবং শিক্ষাকে জীবনভিত্তিক ও শিক্ষাগ্রহণ পদ্ধতিকে শিক্ষার্থীর চাহিদা ও সামর্থের নিরিখে সাজিয়ে তুলুন।জাতিকে সমৃদ্ধ করুন, জাতির ইতিহাসকে সমৃদ্ধ করুন। তবেই বিশ্ববাসীর সমীহ আদায়ে জাতি সক্ষম হবে।

এম.এ.বাতেন ফারুকী, প্রধান শিক্ষক, সৈয়দ হাবিবুল হক উচ্চ বিদ্যালয়, বৌলাই, কিশোরগঞ্জ সদর।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]



প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com