কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কুলিয়ারচরে দুই চালক খুনে জড়িতদের বিচার দাবিতে মানববন্ধন


 মুহাম্মদ শাহ্ আলম, কুলিয়ারচর | ৮ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১০:৫৭ | কুলিয়ারচর 


কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে বিভাটেক চালক মো. হাকিম (১৬) ও অটোরিকশা চালক মো. সোহেল খন্দকার ওরফে বধন (৩৫) এর খুনিদের দ্রুত চিহ্ণিত করে বিচারের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) সকাল ৯টার দিকে উপজেলার দ্বারিয়াকান্দি-বেলাব সড়কের ডুমরাকান্দা বাজার শহীদ মিনার মোড়ে ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন বাংলাদেশ এর সালুয়া ইউনিয়ন শাখার উদ্যোগে এ মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে নিহত বিভাটেক চালক হাকিম ও অটোরিকশা চালক সোহেল খন্দকার বধনের পরিবারের লোকজনসহ আত্মীয় স্বজন,  স্থানীয় রিকশা, বিভাটেক, ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা ও সিএনজি চালকসহ এলাকাবাসী অংশ নেন।

এ সময় বক্তব্য রাখেন ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন বাংলাদেশ এর কুলিয়ারচর উপজেলা শাখার সভাপতি মো. দ্বীন ইসলাম, আইন বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল করিম, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন বাংলাদেশ এর সালুয়া ইউনিয়ন শাখার সভাপতি মো. মিল্লাত মিয়া, সাধারণ সম্পাদক মো. মুর্শিদ মিয়া, মুফতি আব্দুর রহমান, মাওলানা আসাদুল্লাহ, নিহত অটোরিকশা চালক সোহেল খন্দকারের চাচা মজলিশ খন্দকার, মো. আলামিন, মো. আমান উল্লাহ প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, কুলিয়ারচরে কয়েকদিনের ব্যবধানে একজন বিভাটেক চালক ও একজন অটোরিকশা চালক খুন হয়েছে। অথচ এখন পর্যন্ত একজন খুনিও ধরা পড়েনি, যা হতাশাজনক। এই অবস্থা চলতে পারে না।

বক্তারা অবিলম্বে বিভাটেক চালক হাকিম ও অটোরিকশা চালক সোহেল খন্দকার বধন খুনের ঘটনা তদন্তের মাধ্যমে খুনিদেরকে খোঁজে বের করে বিচারের আওতায় আনার জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি জোর দাবি জানান।

এছাড়াও রিকশা, বিভাটেক, অটোরিকশা ও সিএনজি চালকদেরকে সতর্ক করে কিছু নিয়মকানুন মেনে গাড়ি চালানোর পরামর্শ দেয় বক্তারা।

উল্লেখ্য, বিভাটেক চালক মো. হাকিম মিয়া গত ১৮ সেপ্টেম্বর বিকালে তার বিভাটেক গাড়িসহ নিখোঁজ হয়। তাকে খোঁজাখোঁজি করে কোথাও না পেয়ে পরদিন ১৯ সেপ্টেম্বর হাকিম মিয়ার পিতা মো. মনির মিয়া কুলিয়ারচর থানায় একটি সাধারণ ডায়রী (নং-৬৯৮) করেন।

পরবর্তীতে ঘটনার ১৩ দিন পর ১ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) বিকেলে উপজেলার সালুয়া ইউনিয়নের ভিটিগাঁও সংলগ্ন দ্বারিয়াকান্দি-বেলাব সড়কের পাশের একটি জলাশয়ে কচুরিপানার ভিতর থেকে সম্পুর্ণ গলিত এক অজ্ঞাত যুবকের লাশ পাওয়া যায়।

সংবাদ পেয়ে বিভাটেক চালক হাকিমের স্বজনরা গিয়ে তার পরনে থাকা গেঞ্জি দেখে এটি হাকিমের বলে লাশ শনাক্ত করেন। পরে বিকেল ৫ টার দিকে কুলিয়ারচর থানা পুলিশ ওই লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

বিভাটেক চালক হাকিম মিয়া উপজেলার সালুয়া ইউনিয়নের মধ্য সালুয়া গ্রামের মো. মনির মিয়ার ছেলে।

অপরদিকে গত ২২ সেপ্টেম্বর দুপুরে অটোরিকশা চালক মো. সোহেল ওরফে বধন (২৯) তার অটোরিকশাসহ নিখোঁজ হয়।

নিখোঁজের একদিন পর গত ২৩ সেপ্টেম্বর সকাল ৭টার দিকে তার লাশ পার্শ্ববর্তী ভৈরব উপজেলার কালিকাপ্রসাদ বাসস্ট্যান্ড ও এর দক্ষিণ-পুর্ব পাশের পুরাতন পুলিশ ফাঁড়ির মধ্যবর্তী ভৈরব-কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের পাশ থেকে উদ্ধার করে ভৈরব থানা পুলিশ।

সংবাদ পেয়ে নিখোঁজ অটোরিকশা চালক সোহেল খন্দকার বধনের স্বজনরা সেখানে গিয়ে অটোরিকশা সোহেল ওরফে বধনের লাশ শনাক্ত করে।

নিহত সোহেল খন্দকার বধন কুলিয়ারচর উপজেলার সালুয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ মাইজ পড়া গ্রামের মো. হান্নান খন্দকারের ছেলে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর