কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নিত্যপণ্যের দাম বাড়ায় পাকুন্দিয়ায় নিম্নআয়ের লোকজন বিপাকে


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ৯ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার, ৩:৫৮ | অর্থ-বাণিজ্য 


রিকশাচালক সোহেল মিয়া। বউ-বাচ্চা নিয়ে সংসার। দৈনদিন রিকশা চালিয়ে যা আয় করেন তা দিয়েই চলে সংসার। করোনা মহামারিতে রিকশা নিয়ে বেরুলেও আয়-রোজগার তেমন একটা হয়নি।

কিছুদিন ধরে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়েছে। লোকজনও ঘর থেকে বের হচ্ছে। আগের চেয়ে তাই আয়ও কিছুটা বেড়েছে।

কিন্তু নিত্যপণ্যের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধিতে দিনে যা আয় করছেন তা দিয়ে বাজার-সদাই কিনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে সোহেল মিয়াকে।

নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধির ফলে সোহেল মিয়ার মতো কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষ পড়েছেন বেকায়দায়। চাল, ডাল, মাছ, গোশতসহ সব ধরণের সবজির দাম চড়া।

প্রতিদিনই নিত্য প্রয়োজনীয় এসব পণ্যের দাম বাড়ছে হু হু করে। এতে করে সংসার চালাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে নিম্ন আয়ের এসব লোকজনের।

তবে অতিবৃষ্টি ও বন্যার কারণে সবজি চাষিরা সময় মতো চাষাবাদ করতে পারায় এবং জলাবদ্ধতায় সবজি বাগান নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এসব সবজির দাম চড়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন খুচরা সবজি বিক্রেতারা।

তারা জানিয়েছেন, বন্যা ও অতিবৃষ্টির কারণে স্থানীয় কৃষকরা সবজি চাষাবাদ করতে পারছেন না। এতে করে চালাইন্না (অন্য এলাকা থেকে আনা) সবজি এনে বিক্রি করতে হচ্ছে। এতে খরচ বেশি লাগছে। কিনতেও হচ্ছে বাড়তি দামে। আরো কিছুদিন এভাবে থাকবে বলেও মনে করছেন তারা।

এদিকে পাকুন্দিয়া পৌরসদর বাজার ঘুরে দেখা গেছে, নিত্য প্রয়োজনীয় সকল পণ্যের দামই বেড়েছে। বর্তমানে প্রতি কেজি গরুর গোশত বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ টাকায়, ব্রয়লার মুরগি কেজি প্রতি ১১০-১১৫ টাকা, চাল সর্বনি¤œ ৫০টাকা কেজি, পেঁয়াজ কেজি ৯০ টাকা, রসুন ১২০ টাকা কেজি, আদা ১৫০-১৬০ টাকা কেজি, সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ১১০ টাকা, ডাল মোটা (মশুরি) ৮০ টাকা কেজি, ডিম প্রতি হালি ৩৮-৪০ টাকা, আলু কেজি ৫০ টাকা, টমেটো ১০০ টাকা, সীম ১৪০ টাকা, লাউ প্রতি পিস ৪০-৫০ টাকা, বেগুন কেজি ৮০ টাকা, করল্লা ৮০ টাকা, পটল ৭০ টাকা এবং কাঁচা মরিচ কেজি প্রতি ২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। যা প্রতিদিনই বাড়ছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা।

উপজেলার বড়আজলদী গ্রামের রিকশাচালক সোহেল মিয়া বলেন, ‘মাছের যে দাম, কিনতে সাহস পাচ্ছি না। ব্রয়লার মুরগির দাম কিছুটা কম থাকলেও দুইদিন ধরে এটাও বেড়েছে।

সবজির বাজার তো আরও চড়া। যে আলু কয়দিন আগেও ২৫ টাকা ছিল, এখন সেটা দ্বিগুণ দামে কিনতে হচ্ছে। রিকশা চালিয়ে যে টাকা পাই, তা দিয়ে কিভাবে কি করব, বুঝে ওঠে পারছি না’।

রাকিবুল হাসান রাসেল নামের মধ্যবিত্ত পরিবারের একজন জানান, টিসিবির মাধ্যমে যেসব পণ্য বিক্রি করা হয়, তাতে আরো কিছু পণ্য যোগ করে পরিমাণ বাড়িয়ে সপ্তাহে দুদিন টিসিবির পণ্য পাওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করলে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের লোকজন কিছুটা স্বস্তি পেত।

সেজন্য তিনি স্থানীয় প্রশাসনের সুদৃষ্টি আকর্ষণের পাশাপাশি বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করারও অনুরোধ জানিয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর