কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনা দুর্যোগে শিক্ষা ব্যবস্থাপনায় নেতৃত্ব দিলেন ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর নেহাল আহমেদ


 শাহ্ ইস্কান্দার আলী স্বপন | ১২ অক্টোবর ২০২০, সোমবার, ১:২২ | শিক্ষা  


ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর নেহাল আহমেদ কোভিড-১৯ বৈশ্বিক মহামারীর দুর্যোগকালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ব্যবহারের মাধ্যমে শিক্ষা প্রদান ও অনলাইন পদ্ধতিতে পরীক্ষা গ্রহণ করে দেশের স্থবির শিক্ষা কার্যক্রমকে গতিশীল ও দীর্ঘকাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনুপস্থিতির কারণে পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের শিক্ষার মানসম্পন্ন অগ্রসরমান ধারায় সংশ্লিষ্ট করে শিক্ষাব্যাবস্থায় ডিজিটাল পদ্ধতি প্রয়োগের ক্ষেত্রে সফলতার এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

অধ্যক্ষ প্রফেসর নেহাল আহমেদ পহেলা এপ্রিল থেকে ঢাকা কলেজে ফেসবুকের মাধ্যমে প্রথম অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম চালু করেন যা দেশের সকল ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণের জন্য উন্মুক্ত রাখা হয়।

ঢাকা কলেজের সমৃদ্ধ ও দক্ষ আইসিটি বিভাগ এবং অভিজ্ঞ শিক্ষকগণ শুরু থেকেই অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম প্রকৃয়াটি সফলতার সাথে চালিয়ে আসছেন।

কলেজটির অনলাইন পরীক্ষা শুরু হয় আগস্ট মাসের বিশ তারিখ। একাদশ শ্রেণির এক হাজার এক শত চুয়ান্ন জন শিক্ষার্থীর মধ্যে একজন ছাড়া সকলেই অর্থাৎ ৯৯.৩৪% শিক্ষার্থী এই পরীক্ষায় নেয়, যা বাংলাদেশে শিক্ষা ক্ষেত্রে ডিজিটাল ব্যবস্থাপনা প্রয়োগ ও সফলতার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।

গত কয়েক যুগ ধরে ঢাকার নিউমার্কেট এলাকায় অবস্থিত ঢাকা কলেজ নামক প্রতিষ্ঠানটির মানসম্মত শিক্ষা, শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশের কারণে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের কাছে প্রথম পছন্দের প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। তাই সঙ্গত কারণেই ঢাকা কলেজে অনলাইন ক্লাস চালু হওয়ার পর দেশের অধিকাংশ ছাত্র-ছাত্রী এতে অংশ গ্রহণ করে এবং নিজেদের পাঠ্যক্রম এগিয়ে নেয়।

ঢাকা কলেজের এক হাজার শিক্ষার্থী এই শিক্ষা কার্যক্রমে অংশ গ্রহণ করা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের লক্ষাধিক ছাত্র-ছাত্রী মান সম্পন্ন শিক্ষায় মেধা বিকাশের এই দুর্লভ সুযোগ পেয়ে তারা উপকৃত ও আনন্দিত।

কিশোরগঞ্জের প্রত্যন্ত গ্রাম অষ্টবর্গের ইন্টারমিডিয়েট ১ম বর্ষের ছাত্রী শিমু আক্তারের স্বপ্ন ছিলো ঢাকায় উন্নত কলেজে পড়ার যা পারিবারিক সীমাবদ্ধতার কারণে সম্ভব হয়নি। কিন্তু অধ্যক্ষ প্রফেসর নেহাল আহমেদের এই শিক্ষা কার্যক্রম তাকে ঐতিহ্যবাহী ঢাকা কলেজ ও কলেজটির শিক্ষকদের ক্লাস উপভোগ করার সুযোগ করে দিয়েছে। পড়াশুনায় অগ্রসর হওয়ার পাশাপাশি কোভিড-১৯ মহামারীর এই সংকটকালে ঘরে আবদ্ধ থাকার একঘেয়েমিও দূর হয়েছে তার।

দেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সর্বপ্রথম অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম শুরু প্রসঙ্গে ‘শহীদ স্মৃতি সরকারী কলেজ’ মুক্তাগাছা ময়মনসিংহ এর ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রধান প্রফেসর মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড। একজন শিক্ষক কেবল শিক্ষা প্রদানই নয় বরং যে কোন জাতীয় দূর্যোগে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে তা মোকাবেলায় তিনি সক্ষম, এ ক্ষেত্রে প্রফেসর নেহাল আহমেদ তার দায়িত্বটি সফলতার সাথে সম্পন্ন করেছেন। তাকে অনুসরণ করে পরবর্তীতে আমাদের কলেজেও আমরা অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করি।

শিক্ষার্থীদের পড়াশুনায় ফিরিয়ে এনে শিক্ষা ব্যবস্থাপনার সংকট উত্তরণে সফলতার যে অভিনব দৃষ্টান্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর নেহাল আহমেদ স্থাপন করলেন, তা তাকে বাংলাদেশে শিক্ষা বিস্তারে অগ্রণী নেতৃত্বের ভুমিকায় অবতীর্ণ করলো। ভবিষ্যতে এই প্রকৃয়াটি অব্যাহত থাকলে ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান তা অনুসরণ করলে শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়ার প্রতি নির্ভরশীলতা কমবে।’

কিশোরগঞ্জের সন্তান হিসেবে প্রফেসর মো. আনোয়ার হোসেন অধ্যক্ষ প্রফেসর নেহাল আহমেদ এর এই কৃতিত্বের জন্য গর্ববোধ করেন।

উল্লেখ্য, অধ্যক্ষ প্রফেসর নেহাল আহমেদ এর বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার মিঠামইন উপজেলায়। তার মাতা আছিয়া খাতুন মিঠামইন উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশের প্রথম মহিলা চেয়ারম্যান এবং তার মামা বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

শৈশবকাল থেকেই প্রফেসর নেহাল আহমেদ একজন সৃজনশীল মেধাবী মানুষ। সাহিত্য শিল্পকলা সহ বাঙালি সংস্কৃতির সকল শাখায় তার বিচরণ রয়েছে।

তিনি জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে কৃতিত্বের সাথে অনার্স সহ মাস্টার্স ডিগ্রী লাভ করে শিক্ষকতাকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করেন এবং বর্তমানে ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর