কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কটিয়াদীতে নদীভাঙনে রাস্তা বিলীন, বাড়ির উঠান দিয়ে মানুষের যাতায়াত


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, কটিয়াদী | ২৭ অক্টোবর ২০২০, মঙ্গলবার, ৪:৩৯ | কটিয়াদী 


কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের পূর্বচর পাড়াতলা গ্রামের কিছু অংশ এবারের বর্ষায় নদী ভাঙনের ফলে রাস্তাসহ বেশ কিছু বাড়িঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। রাস্তা না থাকায় সর্বসাধারণ সাইকেল মোটর সাইকেল নিয়ে বাড়ির উঠান দিয়েই দিনরাত চলাচল করছেন। এতে বাড়ির মালিকগণ পড়েছেন বিপাকে, ভুগছেন নিরাপত্তাহীনতায়।

সরেজমিন পরিদর্শনে জানা যায়, উপজেলার জালালপুর এবং লোহাজুরী ইউনিয়নের জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি এবারের বর্ষা মৌসুমে ভাঙনের ফলে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। রাস্তাটি দিয়ে দুই এলাকার স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার ছাত্রশিক্ষক সহ সর্বসাধারণ যাতায়াত করে থাকে।

রাস্তা না থাকায় অল্পের জন্য রক্ষা পাওয়া তাজুল ইসলামের বাড়ির আঙিনা দিয়ে সাধারণ মানুষ সাইকেল, মোটর সাইকেল, গরু-ছাগল নিয়ে চলাচল করছে। তার নিজের ও আশপাশের বাড়ির বউ, ঝিদের চলাফেরা খাওয়াদাওয়া গোসল নিয়ে হীনমন্যতায় দিন পার করছেন এলাকার বেশ কয়েকটি পরিবারের লোকজন।

বাড়ির মালিক তাজুল ইসলাম জানান, রোববার (২৫ অক্টোবর) সকালে আমার চার বছরের ছোট ছেলে জুনায়েদ উঠানে খেলা করছিল। একজন সাইকেল চালক উঠান দিয়ে যাওয়ার সময় আমার ছেলের পায়ের উপর লাগিয়ে দেয়। এতে সে আহত হয়।

উঠান দিয়ে দিনরাত মানুষ চলাচল করে। এতে আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। ঘরে বউ, ঝি আছে। কয়েকটি গরুছাগলও আছে।এ পরিস্থিতিতে চুরিডাকাতির আশংকায় রয়েছি। তাই দিনে কোন কামকাজ না করে ঘুমাই এবং রাত জেগে পাহারা দেই।

দ্রুত রাস্তা পুন:নির্মাণের কাজ শুরু না হলে আমার বাড়ির আঙিনা দিয়ে সর্বসাধারণের চলাচল বন্ধ করে দিবো বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

এলাকার রিকশাচালক শাহজাহান ও নজরুল বলেন, রাস্তা না থাকায় রিকশাও চালাতে পারছি না। জমিজমা যা ছিল নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। রিকশা চালিয়ে কোন রকম সংসার চালাতাম। রাস্তা না থাকায় এখন বেকার সময় কাটছে। স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে খুব কষ্টে আছি। নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়া রাস্তাটি দ্রুত পুন:নির্মাণের দাবি জানাই।

দশপাখি গ্রামের অহিদুজ্জামান (৬০) বলেন, চরপুক্ষিয়া গ্রামের একজন গৃহস্থের নিকট থেকে একটি গরু কিনেছি। বাড়ির উঠান দিয়ে যেতে না দিলে ৭কি.মি. রাস্তা ঘুরে বাড়ি যেতে হবে। তাই বাড়ির ভিতর দিয়েই যেতে হচ্ছে। রাস্তাটি দ্রুত পুন:নির্মাণের দাবি জানাই।

চকবাজার দক্ষিণগ্রামের মমিন মিয়া (৭৫) মেয়ে-নাতি নিয়ে বাড়ি যাচ্ছেন। তিনি বলেন, রাস্তা না থাকায় অটো থেকে নামিয়ে দিয়েছে। এখন পায়ে হেঁটে বাড়ি যাচ্ছি। রাস্তাটি দ্রুত পুন:নির্মাণের দাবি জানাই।

লোহাজুরী ইউপি চেয়ারম্যান আতাহার উদ্দিন ভূঞা রতন বলেন, সর্বসাধারণের চলাচলের জন্য ৬০ফুট বাঁশের বেড়া তৈরির কাজ চলছে। দ্রুতই সর্বসাধারণের চলাচলের ব্যবস্থা করে দেয়া হবে।

লোহাজুরী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেন, নদী খননের সময় ভাঙন এলাকা ভরাট করার কথা ছিল। কিন্তু তা না করায় এলাকার রাস্তাঘাট বাড়িঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

নদীর অপর পাড়ে জেগে উঠা চরের অংশ খনন করে ভাঙন ভরাট করে রাস্তা এবং ক্ষতিগ্রস্থদের পুনর্বাসনের দাবি জানিয়েছেন তিনি।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. মুশতাকুর রহমান বলেন, অগ্রাধিকার ভিত্তিতে রাস্তাটি দ্রুত পুন:নির্মাণের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর