কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাবার ডাইরি থেকে উপমহাদেশের প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ পূবালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান এম. আযীযুল হক


 শাহ্ ইস্কান্দার আলী স্বপন | ২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১১:২৫ | সম্পাদকের বাছাই  


ইসলামী ব্যাংকিং এর স্বপ্নদ্রষ্টা উপমহাদেশের বিখ্যাত অর্থনীতিবিদ ও ব্যাংকার পূবালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান এম. আযীযুল হক আমাদের এক অদম্য মেধাবী অগ্রজ ও অভিভাবক যিনি একাধারে নিজের, নিজ পরিবারের ও সমাজ বিনির্মাণের পাশাপাশি বৈশ্বিক অর্থনীতি ও ব্যাংকিং খাতে রেখেছেন অমুছনীয় দৃষ্টান্ত, উজ্জ্বল করেছেন দেশের নাম, দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় রেখেছেন তার সীমাহীন অবদান।

তার বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার তাড়াইল উপজেলার ধলা গ্রামে। এম আযীযুল হক'র পিতা মরহুম নুরুল ইসলাম ভূঁইয়া- মাতা আজিজুন্নেছা বেগম। তারা আট পুত্র এবং দুই কন্যা সন্তানের জনক-জননী।

তাঁদের ১০ সন্তানের মধ্যে সিদ্দিক ভূঁইয়া অগ্রজ। সিদ্দিক ভূইয়া নিজে ম্যাট্রিকুলেশন পর্যন্ত পড়াশোনা করে তাঁর ছোট ভাই-বোনদেরকে উচ্চতর শিক্ষায় পড়াশোনা করানোর ইচ্ছা পূষণ করে পিতার সাথে সংসারের হাল ধরেন।

অন্যান্য ভাই-বোনেরা হলেন- পূবালী ব্যাংক লি: পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান এম. আযীযুল হক, লন্ডনস্থ এক সময়ের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ি ড. মো. নুরুল হক, অক্সফোর্ড এর সাবেক প্রভেসর ড. মো. আবদুল হক, আইনজীবী মো. জহিরুল হক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালযের সাবেক অধ্যাপক ডাঃ জাহানারা হক ভূঁইয়া, লালমাটিয়া মহিলা কলেজের সাবেক সহকারী অধ্যাপক হোসনে আরা বেগম, ইঞ্জিনিয়ার মো. শহিদুল হক, ব্যাংককার মো. আনোয়ারুল হক ফারুক এবং সি.এ মো. বজলুল হক।

শৈশব থেকেই এম. আযীযুল হক তার অদম্য মেধায় উৎরে গেলেন প্রতিবন্ধকতার সকল প্রাচীর। ভর্তি হলেন কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল কলেজে।

আমার বাবা শাহ্ মাহ্তাব আলী, আনসার বাহিনীর অন্যতম প্রতিষ্টাতা ও প্রতিষ্টাকালিন অবৈতনিক কর্মকর্তা যিনি পরবর্তিতে কিশোরগঞ্জ গৌরাঙ্গ বাজারের ব্যবসায়ী এবং কিশোরগঞ্জ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি।

গুরুদয়াল কলেজ পরিদর্শনে গিয়ে এম. আযীযুল হক এর বুদ্ধিমত্তা দেখে মুগ্ধ হন আমার বাবা। তিনি তাকে অবসর সময়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এসে দেখা করতে বলেন।

যথাসময় উপস্থিত হন এম. আযীযুল হক, তরুণ ছাত্রটির সাথে আলাপচারিতায় আরো মুগ্ধ ও অভিভূত হন আমার বাবা, মনের অজান্তে তিনি এই মেধাবী তরুণের অভিভাবকে পরিণত হন।

তরুণ বয়সেই অসম্ভব রকম সৎ, বিনয়ী ও প্রতিশ্রুতি পরায়ণ ছিলেন এম. আযীযুল হক। বাড়ি থেকে টাকা পেতে দেরি হলে, কলেজের বেতন কিংবা বই কেনার জন্য দু টাকা ধার নিলেও প্রতিশ্রুত সময়েই তিনি তা ফেরত দিতেন।

পড়াশুনা ও কলেজ বোর্ডিং এ সুশৃঙ্খল জীবন যাপনে অভ্যস্ত হওয়ার জন্য তিনি সহপাঠীদের জন্য রেখেছিলেন অনন্য দৃষ্টান্ত।

রুটিন অনুযায়ী নিয়ম করে খেলাধুলা, পড়াশুনা করে সময় মতো ঘুমুতে যেতেন তিনি। পড়াশুনা কিংবা ঘুমুনোর পর আর রুমের দরজা খুলতেন না কখনো।

একদা তার পিতা তাকে দেখতে কলেজ বোর্ডিংএ এসে দেখলেন তিনি ঘুমিয়ে পড়েছেন। দরোজায় কড়া নাড়ার শব্দ শুনে পাশের রুম থেকে সহপাঠীরা এসে তার পিতাকে তাদের রুমে নিয়ে রাত্রি যাপনের ব্যবস্থা করে দিলেন।

এটি ছিলো একটি দৃষ্টান্ত যাতে পরবর্তীতে মেধাবী ছাত্র হিসেবে তার পড়াশুনার সময় তাকে সহপাঠীরা বিরক্ত করা থেকে বিরত থাকে।

আমার বাবা শাহ্ মাহ্তাব আলী সব সময় তাকে উৎসাহ দিয়ে তার পড়াশুনায় সহযোগিতা করতেন।

তার বি.এ ফাইনাল পরীক্ষার পূর্বে ঢাকা থেকে তার জন্য তৎকালিন সময়ে প্রকাশিত মাসিক মাহেনাও পত্রিকার ১০টি সংখ্যা সংগ্রহ করে দেন বাবা।

পরীক্ষা শেষে উর্ধশ্বাসে এম. আযীযুল হক এসে জড়িয়ে ধরলেন আমার বাবাকে জানালেন, ঢাকা থেকে বাবার এনে দেয়া মাহেনাও পত্রিকায় লেখা থেকে তার বিশ নম্বর কমন পরেছে, এবং এই বিশ নম্বরের পুরোটাই তিনি পাবেন, যা সম্ভবত তিনি একাই উত্তর দিতে পেরেছেন। বাবা তাকে মদন-গোপাল থেকে মিষ্টিমুখ করিয়ে শান্ত করলেন।

মেধাবী তরুণ এম. আযীযুল হক'কে আর পেছনে তাকাতে হয়নি, তিনি উচ্চ শিক্ষার জন্য ভর্তি হলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। লজিং হিসেবে পেয়ে গেলেন তদানিন্তন ইষ্ট পাকিস্তান মার্কেটিং ডাইরেক্টর জেনারেল টি. হোসেন সাহেবের ধানমন্ডির বাড়ি, তার মেয়েকে পড়াতে হবে।

তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতি বিষয়ে কৃতিত্বের সাথে এম.এ. পাশ করার পাশাপাশি ছোটভাইদের প্রতিও যথাযথ দায়িত্ত্ব পালন করেন, তাদের একজনকে ভর্তি করেন লেদার টেকনোলজি'তে এবং ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হবে এমন সব সম্ভাবনাময় জায়গায় অন্য ভাইবোনদেরকেও নিয়োজিত করেন যারা পরবর্তীতে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হয়ে পরিবারটিকে সামাজিক ও অর্থনৈতিক ভাবে সমৃদ্ধ করে তুলেন।

শুধু তাই নয় তাদের কোন জমিতে কোন ফসল বুনলে অধিক ফলন হবে তাও তিনি তার পিতাকে ছাত্রাবস্থায় পরামর্শ দিয়ে তার দায়িত্ত্ব পালন করেন।

এম. আযীযুল হক চিঠির মাধ্যমে বাবার সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রাখেন। একদা তার বাবা দূলা মিয়া তার মা'কে নিয়ে এসে তাদের সন্তানের প্রতি অভিভাবকত্বের কৃতজ্ঞতা স্বরুপ আমার বাবাকে ধলা তাদের বাড়িতে দাওয়াত করে নিয়ে যান। তখনো তাদের ছনের ঘরে পাটশোলার বেড়ায় মাটির প্রলেপ, কিন্তু নিষ্ঠা আর সন্তানের ভবিষ্যৎ স্বপ্নে উজ্জ্বলতর তাদের দু'চোখ।

আমার শাহ্ মাহ্তাব আলী সাহেব ব্যবসার কাজে ঢাকা এলে ধানমন্ডিতে তাকে দেখতে যেতেন, ধানমন্ডি লেকের কচুরিপানার নীচে ঠান্ডা পানিতে পা ভিজিয়ে ফিরে আসার গল্প শুনেছি তার কাছে।

হঠাৎ একদিন বাবার কাছে এম. আযীযুল হক'র টেলিগ্রাম এলো। বাবা ঢাকা গিয়ে জানলেন তার চাকুরী হয়েছে হাবীব ব্যাংক' এ। এখন ট্রেনিং এ যেতে হবে করাচী। বিমান ভাড়া, আনুষঙ্গিক খরচ করার মতো টাকা তার পরিবারের কাছে নেই। আমার বাবা শাহ্ মাহ্তাব আলী সাহেব অল্প সময়ের মধ্যে টাকা সংগ্রহ করে তাকে ট্রেনিং এর জন্য করাচী পাঠালেন। কৃতিত্বের সাথে ট্রেনিং সম্পন্ন করে তিনি ফিরে এলেন ঢাকা।

বিমানবন্দরে আমার বাবা দাঁড়িয়ে তার অপেক্ষায়। তিনি নেমে এলেন এসে প্রথমেই বাবাকে জড়িয়ে ধরলেন, পাশেই ফুলের তোড়া নিয়ে দাঁড়ানো জনাব টি. হোসেন সাহেব ও তার পরিবার। তারা এম. আযীযুল হক সাহেবকে অভ্যর্থনা করলেন এবং আমার বাবা সহ সকলে টি. হোসেন সাহেবের গাড়িতে চড়ে তার বাসা ধানমন্ডি এলেন।

অতপর এম. আযীযুল হক ১৯৫৮ সালে তার কর্মজীবন শুরু করলেন হাবীব ব্যাংক, মৌলভীবাজার শাখায়।

ব্যাংকিং খাত'কে সময়োপযোগী করে নৈতিক ও মানবিক ধারায় প্রবাহিত করে মানুষের উন্নয়নের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেবার আকাঙ্ক্ষা ছিলো তার শুরু থেকেই।

সোনালী ব্যাংকে'র মহা-ব্যবস্থাপক থাকাকালে তিঁনি দেশের বরেণ্য অপর ব্যাংকার জনাব লুৎফর রহমানের সহযোগিতায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বেকার ছাত্রদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষে চালু করেন বিনা জামানতে ব্যাংক ঋণ প্রদানের মাধ্যমে "বিকল্প" নামে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদের ট্রান্সপোর্ট সার্ভিস। যা সে সময় সারা দেশে ব্যাপক সাড়া ফেলেছিলো।

উপমহাদেশের বরেণ্য এই ব্যাংকার এম. আযীযুল হক ইসলামী ব্যাংকিং তথা শরীয়াহ মোতাবেক সুদবিহীন ব্যাংকিং ব্যবস্থা প্রবর্তনের স্বপ্নদ্রষ্টা। তার প্রতিষ্ঠিত ইসলামী ব্যাংক আজ ব্যাংকিং সেক্টরে সফলতার এক অনন্য উচ্চতায় প্রতিষ্ঠিত। এবং ইসলামী শরীয়াহ মোতাবেক ব্যাংকিং এর ধারণা আজ অনেক দেশেই জনপ্রিয়। বাংলাদেশেও অনেক বাণিজ্যিক ব্যাংক তাদের ব্যাংকে তার অনুসরণে শরীয়াহ ভিত্তিক ব্যাংকিং শাখা চালু করেছেন।

সামাজিক উন্নয়নের লক্ষে এম. আযীযুল হক ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড'র এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট'র দায়িত্ত্ব থেকে অব্যাহতি নিয়ে "কেরিং টুগেদার" শ্লোগান নিয়ে স্যোসাল ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক'র প্রতিষ্টাতা এম.ডি. হিসেবে তার দায়িত্ত্ব পালন করেন। এবং পরবর্তীতে তিনি ইসলামী ফাইনান্স এন্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড'র সি.ই.ও. হিসেবে তার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ত্ব পালন করেন।

জনাব এম. আযীযুল হক বার্ধক্যকালীন অবসর উপেক্ষা করে দেশ ও মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়'এ খণ্ডকালিন শিক্ষকতা ও আন্তর্জাতিক ব্যাংকিং খাতের কনসালটেন্ট হিসেবে কাজ করার পাশাপাশি তিনি পূবালী ব্যাংক লিমিটেড' র বোর্ড অব ডাইরেক্টর কর্তৃক ব্যাংক'টির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে পূবালী ব্যাংক লিমিটেড'র চেয়ারম্যান হিসেবে বর্তমানে দায়িত্ত্ব পালন করছেন।

তিনি নিজ এলাকায় মানুষের কল্যাণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেন।

তার দুই ছেলে ও দুই মেয়ে। দুই মেজর (অব.) রেজাউল হক ও এম. ইহসানুল হক। দুই মেয়ে ইফাত আযীয, রিফাত আযীয এরা সকলেই আমেরিকা প্রবাসী।

আমার একান্ত আপনজন, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বাংলাদেশের এই কৃতী ব্যক্তিটির সাথে আমার জীবনে পাঁচবার দেখা হয়েছে।

প্রথমবার বাবা পাঠিয়েছিলেন তাঁর সাথে দেখা করে পরিচিত হওয়ার জন্য, তিঁনি তখন ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড'র এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট আর আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়'এ কেবল ভর্তি হয়েছি।

দ্বিতীয় বার ইসলামী ব্যাংকে ক্যাশিয়ার পদে সার্কুলার হলে তাঁর কাছে গিয়েছিলাম চাকুরীর জন্য দরখাস্ত করবো কিনা পরামর্শের জন্য, তখনও আমি গ্রাজুয়েট হইনি। তিঁনি পরামর্শ দিয়েছিলেন, "ভালো করে পড়াশুনা কর, কর্মজীবন একটা উন্নত জায়গা থেকে শুরু করতে হয়।"

তৃতীয় বার তার সাথে দেখা করতে গিয়েছিলাম। মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানির চাকুরী ছেড়ে আন্তর্জাতিক ব্যবসা শুরু করে তার সফলতা জানাতে।

চতুর্থবার তিঁনি আমার বিবাহ অনুষ্ঠানে আমার শ্বশুর বাড়ি ঢাকায় সিদ্ধেশ্বরী 'তে উপস্থিত হয়েছিলেন। বরযাত্রী হিসেবে আমার পৌঁছার অনেক আগেই তিনি ওই বাড়িতে গিয়ে অপেক্ষা করছিলেন। তিনি আমার বিয়ের পাত্র পক্ষের সাক্ষী।

পঞ্চমবার আমি তার সাথে দেখা করেছিলাম আমার নিজের ব্যবসা সংক্রান্ত নৈতিকতা বিষয়ক এক অনাকাঙ্ক্ষিত ঝামেলায় পড়ে তার কাছে পরামর্শের জন্য। তিঁনি তখন স্যোসাল ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক'র এম.ডি.। তিঁনি পরামর্শ দিলেন, "সমাজ হলো পুকুর ও পুকুরে ভেসে থাকা হাঁসের মতো। হাঁস যেমন পানিতে সাঁতার কেটে ওপারে উঠে, তার গায়ে পানি থাকে না। তোমাকেও তেমনি সকল প্রতিবন্ধকতা জয় করে সততা ও আদর্শ চরিত্রে ধারণ করে সফলকাম হতে হবে, সৎ আয় অল্প হলেও উত্তম। তোমাকে দেখে একদিন সমাজ বদলাবে।"

প্রতিটা মানুষের'ই কিছু কিছু ক্ষেত্রে চারিত্রিক অসহায়ত্ত্ব থাকে। আমার অসহায়ত্ত্ব ও দূর্ভাগ্য হলো আমি নিজের অজান্তেই আমার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কিংবা আপনজনের স্নেহবঞ্চিত হই।

কোভিড-১৯ শুরু হওয়ায় পূর্বেই ইচ্ছে করেছিলাম আযীয কাকার সাথে বহু বছর দেখা হয় না, তার সাথে দেখা করবো। গতকাল (বুধবার, ২৮ অক্টোবর) জানলাম, তিঁনি জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে চিকিৎসার জন্য সি.এম.এইচ-এ ভর্তি হয়েছেন।

খবরটা শুনে যারপরনাই কষ্ট হচ্ছে আমার।

পরম করুণাময় আল্লাহ্ তালার কাছে প্রার্থনা করছি, তিনি যেনো আমার আযীয কাকা'কে আশু রোগমুক্ত করে ও আমাকে তার সাথে দেখা করার সুযোগ করে দেন। আর আমার বাবা শাহ্ মাহ্তাব আলী সাহেবের জান্নতুল ফেরদৌস নসীব করেন। আমিন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর