কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে নৃশংস কুড়াল হামলায় আহত কলেজ ছাত্র রাজা মারা গেছেন


 বিশেষ প্রতিনিধি | ১২ এপ্রিল ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ৭:৫৪ | কিশোরগঞ্জ সদর 


কিশোরগঞ্জে এদকল হিংস্র তরুণের কুড়ালের হামলায় আহত কলেজ ছাত্র রাজা আহমেদ (২২) মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাজা মারা যান। গত সোমবার (৯ই এপ্রিল) রাতে হামলায় গুরুতর আহত হওয়ার পর পরই তাকে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর সেখান থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

নিহত রাজা আহমেদ কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বৌলাই উত্তর রাজকুন্তি গ্রামের ফজলুল হকের ছেলে ও করিমগঞ্জ সরকারি কলেজের স্নাতক প্রথম বর্ষের ছাত্র। তিনি শহরের বড়বাজার তেরিপট্টি মোড়ে জলসা মার্কেটের ‘রাজ ফ্যাশন’ নামে একটি পোশাকের দোকানে খণ্ডকালীন চাকরি করতেন।

এ ঘটনায় পুলিশ একজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

মার্কেটের বিভিন্ন ব্যবসায়ী ও রাজার স্বজনেরা জানান, গত সোমবার (৯ই এপ্রিল) রাত সাড়ে ৮টার দিকে রাজা আহমেদের দোকান ‘রাজ ফ্যাশন’ এ গিয়ে পার্শ্ববর্তী মাধবী প্লাজার এক কর্মচারী বৌলাই সুবন্ধি গ্রামের হৃদয় (১৯) পোশাকের দরদাম নিয়ে রাজার সঙ্গে তর্কাতর্কি করে। রাজার দোকানের পার্শ্ববর্তী পাঞ্জাবী ফ্যাশনে রাজার বড়ভাই রাজু (২৪) এবং অন্য এক দোকানে রাজার ফুফাত ভাই প্রান্ত (২১)-ও চাকরি করেন।

এদিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে দোকান বন্ধ করে এই তিন ভাই বাড়ি ফেরার পথে আনুমানিক ১৫ জন তরুণ কুড়াল ও অন্যান্য দেশীয় অস্ত্র নিয়ে দোকান থেকে ২০ গজ দূরে প্রাইম ব্যাংকের সামনে তাদের ওপর দু’দিক থেকে হামলা চালায়। এসময় রাজা প্রাণ বাঁচাতে দৌড়ে পাশের রহমানিয়া প্লাজার ‘শাড়ি মহল’ নামে দোকানে আশ্রয় নিলে সেখানে ঢুকে নির্মমভাবে তাকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করা হয়। রাজার বড়ভাই রাজুকেও পেছন দিকে কোপ দেয়া হয়। ফুফাত ভাই প্রান্তের মাথায়ও আঘাত করা হয়। মুমূর্ষু অবস্থায় রাজাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে রাজা মারা যান।

এদিকে হামলার পরই রাজার বড়বোন ঝুনু আক্তার বাদী হয়ে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় হামলাকারী হৃদয়, হৃদয়ের বাবা আব্দুল হেকিম, অন্তর ও সানিসহ কয়েকজনকে অজ্ঞাত আসামি করে মামলা দায়ের করেন বলে জানিয়েছেন সদর মডেল থানার ওসি আবু শামা মো. ইকবাল হায়াত। ঘটনার রাতেই হৃদয়ের বাবা আব্দুল হেকিমকে বৌলাই থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল শাড়ি মহলে গিয়ে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করেছে।

কিশোরগঞ্জ বড়বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ওসমান গণি জানান, সিসি ফুটেজে হামলাকারীদের নারকীয় তাণ্ডব পরিষ্কার দেখা যায়। এ দৃশ্য সহ্য করার মত নয়। তিনি এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন। ব্যবসায়ীরা হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধনও করেছেন।

নিহত রাজার বাবা ফজলুল হক জানিয়েছেন, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে তার ছেলের লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। লাশ গ্রামের বাড়িতে দাফনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর