কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

মেলায় যাইরে...



 বিশেষ প্রতিনিধি | ১৩ এপ্রিল ২০১৮, শুক্রবার, ৪:২৫ | এক্সক্লুসিভ 


চৈত্র সংক্রান্তি উপলক্ষে চৈত্র মাসের শেষ দিন জেলার বিভিন্ন স্থানে অনুষ্ঠিত হয় বারণী পূজা মেলা। স্থানীয়ভাবে যা পরিচিত ‘বান্নি’ নামে। পূজাকেন্দ্রীক এ মেলাকে কেন্দ্র করে সুদীর্ঘকাল ধরে এ জনপদে আবর্তিত হচ্ছে বাংলার লোকায়ত জীবন, চিন্তা-চেতনা ও লোকায়ত সংস্কৃতির ধারা। গ্রামীণ এ মেলা সব ধর্মের মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে সার্বজনীন উৎসবের এক অনবদ্য উদাহরণ। বাংলা নববর্ষকে বরণ করে নিতে পরদিন পহেলা বৈশাখে এ মেলা পরিণত হয় বৈশাখী মেলায়।

অনেক জায়গায় কেবল পহেলা বৈশাখে বসে একদিন ব্যাপী বৈশাখী মেলা। আবার কোন কোন জায়গায় বৈশাখ মাসের বিশেষ তারিখ ও বারে অনুষ্ঠিত হয় বৈশাখী মেলা। এক সময় এসব মেলায় সার্কাস, পুতুল নাচ, যাত্রা দল আসতো, বসতো নাগরদোলা। নিরাপত্তাহীনতাসহ নানাবিধ প্রতিকূলতায় তাদের মেলায় আগমন বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়া খোলা মাঠের বিশাল পরিসরে ছোটদের খেলনা, হাতে তৈরি বিভিন্ন মৃৎশিল্পের সামগ্রী এবং বিন্নি ধানের খৈ, মুড়ি, উফরা, তিলুয়া, কদমা, বাতাসা, জিলাপি, মিষ্টিসহ হরেক রকম খাদ্যসামগ্রীর পসরা সাজিয়ে বসতেন ব্যবসায়ীরা। পাওয়া যেতো কাঠ-বাঁশের তৈরি গৃহস্থালী জিনিসপত্র থেকে শুরু করে প্রসাধন সামগ্রী পর্যন্ত। কিন্তু কালের বিবর্তনে ঐতিহ্য হারাচ্ছে এসব গ্রামীণ মেলা।

কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার নারান্দি ইউনিয়নের পোড়াবাড়িয়া গ্রামে বৈশাখী মেলার ইতিহাস সবচেয়ে পুরনো। অষ্টম শতাব্দি থেকে এখানে মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। সেকালে এ মেলাটি ক্রমান্বয়ে দেশী-বিদেশী পণ্য বিক্রয়ের জন্য এত প্রসিদ্ধি লাভ করে যে, সিলেট, কলকাতা, মুম্বাই, দিল্লীর ব্যবসায়ীরা স্ব স্ব এলাকার পণ্য নিয়ে এ মেলায় উপস্থিত হতেন এবং ফেরার পথে স্থানীয় পণ্য সামগ্রী ও রপ্তানী পণ্য হিসেবে নিজেদের দেশে নিয়ে যেতেন।

এছাড়া বাংলা নববর্ষ ও চৈত্র সংক্রান্তিকে ঘিরে এ জেলার রয়েছে সুপ্রাচীন ঐতিহ্য। সদর উপজেলার দানাপাটুলী ইউনিয়নের গাগলাইল ও বিন্নাটি ইউনিয়নের কালটিয়া, অষ্টগ্রামের বাঙ্গালপাড়া চৌদ্দমাদল মন্দির, ইটনার ধনু নদী সংলগ্ন বাজার, বাজিতপুরের দিলালপুর উদারিয়াকান্দি উদারিয়া আম্বরের টিলা, বাজিতপুর ও সরারচর বাজার, কটিয়াদী সদরের মহামায়া দেবালয়, হোসেনপুরের সাহেদল ইউনিয়নের আশুতিয়া ও গোবিন্দপুর ইউনিয়নের গাঙ্গাটিয়া, তাড়াইলে তাড়াইল, পুরুড়া ও জাওয়ার বাজার, নিকলীর বানিয়াহাটি, পাকুন্দিয়ার হর্ষি, কোদালিয়া, ভৈরবের চণ্ডবেড় ও মেঘনা ব্রীজ, কুলিয়ারচর বাজার, মিঠামইন বাজার ও করিমগঞ্জের জঙ্গলবাড়িতে অনুষ্ঠিত মেলার নামডাক রয়েছে। তবে জমি সংকটসহ নানা প্রতিকূলতার কারণে এসব এলাকার মধ্যে অনেক জায়গাতেই এখন আর মেলা অনুষ্ঠিত হতে দেখা যায় না।

পোড়াবাড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা ও পাকুন্দিয়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মো. কফিল উদ্দিন জানান, অষ্টম শতাব্দিতে হিন্দু অধ্যুষিত গ্রাম পোড়াবাড়িয়ার বাসিন্দারা একটি বটগাছের নিচে চিল পাখির পূজা করতেন। পহেলা বৈশাখ থেকে তেসরা বৈশাখ পর্যন্ত এই তিন দিন এ পূজা চলতো। পূজার পাশাপাশি তখন সেখানে বৈশাখী মেলা চলতো। এছাড়া ১১৩ম বৈশাখে একদিনের জন্য কালবৈশাখী মেলা হতো। যদিও বর্তমানে সেটি আর হয় না।

তিনি জানান, এ বৈশাখী মেলাকে কেন্দ্র করে ঘোড়া দৌড়, লাঠি খেলা, গ্রামীণ খেলা, বাউল গান ও জারিগান হতো। কিন্তু মেলায় এখন আর সেসব কিছুই হয় না। মেলায় আগের মতো জিনিসপত্রও পাওয়া যায় না। মেলাকে ঘিরে মানুষের মধ্যে আগ্রহ থাকলেও আবেদন কমেছে। মেলা আর বাজারের মধ্যে এখন আর তেমন কোন পার্থক্য নেই বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সদরের গাগলাইল গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মো. নূরুল হক জানান, প্রায় ২শ’ বছর আগে গাগলাইল গ্রামের মৃত হরেন্দ্র মাস্টারের বাড়ির বটগাছের নিচে শিল (পাথর) পূজা হতো। চৈত্র সংক্রান্তির এ পূজাকে কেন্দ্র করে তখন সেখানে অন্তত ১৫ একর জায়গা জুড়ে বিশাল মেলা জমতো। মেলা উপলক্ষে আশপাশের গ্রামে চিড়া, মুড়ি, হরেক রকম পিঠা তৈরির ধুম পড়তো। দূর-দূরান্ত থেকে মেলা শুরু হওয়ার কয়েকদিন আগে থেকেই আত্মীয়-স্বজনরা এখানে আসা শুরু করে দিতেন। মেলায় গৃহস্থালী জিনিসপত্র যেমন দা, কাঁচি, চেনি, কুড়াল, মই, লাঙ্গল, জোয়াল থেকে শুরু করে মাটির তৈরি হাড়ি-পাতিল, কলসি, মটকাসহ নিত্যব্যবহার্য্য সব কিছু পাওয়া যেতো। মুক্তিযুদ্ধের পর ’৭৩ সালের দিকে বাড়িটির মালিকানার পরিবর্তন হলে মেলার স্থান নিয়ে সমস্যার সৃষ্টি হয়। এরপর থেকে স্থানীয় উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

তিনি বলেন, আগে মেলাকে কেন্দ্র করে উৎসবের যে আমেজ ছিল, এখন আর সে রকম নেই। মেলার পরিধির পাশাপাশি জনসমাগমও কমেছে।

কটিয়াদীর সাংবাদিক ব্রজগোপাল বণিক জানান, কটিয়াদী মহামায়া দেবালয়ে প্রতি বছরের পহেলা বৈশাখে বৈশাখী মেলার জমজমাট আসর বসে। বিশ্বশান্তি ও দেশের মঙ্গল কামনায় রেওয়াজ অনুযায়ী এখানে ২০০ পাঠা বলি দেওয়া হয়। হিন্দু সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যবাহী এ উৎসবকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা এ মেলা প্রায় ২শ’ বছর ধরে চলে আসছে। দেশের নানাপ্রান্ত থেকে ভক্তরা এখানে মানত পূরণের আশায় ছুটে আসেন। দিন দিন মেলার জনসমাগম বাড়লেও পর্যাপ্ত জমির অভাবে কর্তৃপক্ষকে অনেকটা বাধ্য হয়ে ছোট্ট পরিসরে মেলার আয়োজন করতে হচ্ছে।

তিনি আরো জানান, নববর্ষ উপলক্ষে মসূয়া জমিদার বাড়িতে প্রতি বছরের বৈশাখ মাসের শেষ বুধবার বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় দুই একর জমির উপর অনুষ্ঠিত এ মেলার জন্য এলাকার মানুষ অপোয় থাকে। তিনি বলেন, এক সময় এ মেলার  অন্যতম আকর্ষণ ছিল লাঠি খেলা ও চড়কা। কিন্তু এখন আর সেসব চোখে পড়ে না।

স্থানীয় কয়েকজন প্রবীণ ব্যক্তি আক্ষেপ করে জানান, এক সময় মেলা এবং এর আশপাশের সমস্ত এলাকায় এটি পরিণত হতো বছরের প্রধান উৎসবে। মেলাকে কেন্দ্র করে এলাকার পরিবারগুলো আগে থেকেই টাকা জমিয়ে রাখতো মেলায় খরচ করবে বলে। দূরবর্তী আত্মীয়-স্বজনকে মেলার বিশেষ দাওয়াত দেওয়া হতো। ঘরে ঘরে রাত জেগে মহিলারা সুনিপুণ শব্দময় ছন্দে গায়েলে ধানের চিড়া ভানতেন। মেলার অতীত সে ঐতিহ্য আজ অনেকটাই হারিয়ে গেছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ