কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সৌদিতে দুর্বৃত্তদের হাতে হোসেনপুরের প্রবাসী নিহত


 মো. জাকির হোসেন, হোসেনপুর | ১৫ নভেম্বর ২০২০, রবিবার, ৭:৫৫ | প্রবাস 


সৌদি আরবের রিয়াদে দুর্বৃত্তদের হাতে আবু সাঈদ (৪০) নামের এক বাংলাদেশী নিহত হওয়ার অভিযোগ করেছে পরিবার। নিহত আবু সাঈদ কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার সিদলা ইউনিয়নের গড়মাছুয়া গ্রামের মৃত হাফিজ উদ্দিনের ছেলে।

শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) রাতে আবু সাঈদের মৃত্যুর বিষয়টি জানতে পারে পরিবার। এরপর থেকে পরিবারটিতে কান্না আর আহাজারি থামছে না।

নিহতের স্ত্রী নিলুফা (৩৫) জানান, তার স্বামী আবু সাঈদ তারই এক আত্মীয়ের মাধ্যমে সাড়ে সাত লাখ টাকা দিয়ে তিন বছর আগে একই উপজেলার পুমদী ইউনিয়নের পুমদী গ্রামের মৃত আবদুল খালেকের ছেলে মো. জাহাঙ্গীর আলমের মাধ্যমে সৌদিতে যান।

আবু সাঈদ সৌদিতে জাহাঙ্গীরের অধীনে কৃষি শ্রমিকের কাজ করতেন। তারা একই কক্ষে বসবাস করে আসছিলেন।

আবু সাঈদের সরলতাকে কাজে লাগিয়ে জাহাঙ্গীর তার (সাঈদের) আকামা লুকিয়ে ফেলে, যাতে সে অন্য কোথায়ও সরে যেতে না পারে। সেই সুযোগে তার কাজের টাকা পুরোটাই নিয়ে যেত জাহাঙ্গীর।

এদিকে আবু সাঈদের ঋণের চাপে তার স্ত্রী ছিলেন দিশেহারা। গত বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) রাতে তিনি ফোন করে স্বামীকে ঋণের চাপের কথাও জানান।

কিন্তু পরদিন শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) রাতে আবু সাঈদের মৃত্যুর ছবি প্রতিবেশী আবুল হোসেনের মাধ্যমে জানতে পারেন। এই খবর পেয়ে স্বামী আবু সাঈদের নম্বরে ফোন করলে তিনি তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পান।

অন্যদিকে তার সাথে একই সাথে বসবাসকারীরা আবু সাঈদকে মেরে পালিয়ে যাওয়ায় সে থেকে তাদের সাথেও যোগাযোগ করে মৃত্যুর কারণ জানতে পারেননি।

নিহত আবু সাঈদের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, তার মৃত্যুতে পরিবারের শোকের মাতম চলছে।

নিহতের ভাই আবদুস সালাম জানান, সৌদির রিয়াদে বসবাসরত আবদুল্লাহ নামের একজনের মাধ্যমে জানা যায়, তার ভাই জাহাঙ্গীর এর কাছে তিন লাখ ও আশরাফ নামের আরেকজনের কাছে এক লাখ টাকা জমা রেখেছিল। এছাড়াও ৭/৮ মাসের বেতন জাহাঙ্গীর এর কাছে পাওনা ছিল।

এ টাকা চাওয়ার কারণেই তার ভাইকে তারা মেরে ফেলেছে বলে তার ধারণা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর