কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মালয়েশিয়ার মাসা ইউনিভার্সিটিতে দ্বিতীয়বার ভিপি হওয়ার লড়াইয়ে কিশোরগঞ্জের বশির


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ১৮ নভেম্বর ২০২০, বুধবার, ১:২৫ | প্রবাস 


মালয়েশিয়ার অন্যতম প্রধান বিশ্ববিদ্যালয় মাসা ইউনিভার্সিটির ‘স্টুডেন্ট রিপ্রেজেন্টিটিভ কাউন্সিল’ (এসআরসি) নির্বাচনে এবারও ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি) পদে নির্বাচন করছেন বাংলাদেশের শিক্ষার্থী হাফেজে কোরআন বিশ্ববিদ্যালয়টির ‘স্টুডেন্ট রিপ্রেজেন্টিটিভ কাউন্সিল’ এর বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি) বশির ইবনে জাফর।

দ্বিতীয়বার ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি) নির্বাচিত হওয়ার প্রত্যয় নিয়ে ২০২১ সেশনের জন্য তিনি নির্বাচনের প্রচারণা শুরু করেছেন। বশির ইবনে জাফর এর বাড়ি বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের শোলাকিয়া গাছবাজার এলাকায়।

বশির ইবনে জাফর মালয়েশিয়ার মাসা ইউনিভার্সিটিতে ইনফরমেশন টেকনোলজির মোবাইল কম্পিউটিং স্পেশালিজম বিভাগে অধ্যয়নরত। কওমি মাদরাসা ও কলেজে পড়াশোনার পাশাপাশি তিনি কোরআনে কারিমের হাফেজ।

রাজধানীর দনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাসের পর ২০১৮ সালে স্কলারশিপ নিয়ে তিনি মালয়েশিয়ায় পড়াশোনা করতে যান।

মালয়েশিয়ার প্রধান প্রধান বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ডাকসুর মতো স্টুডেন্ট রিপ্রেজেন্টিটিভ কাউন্সিল (এসআরসি) নির্বাচনের আয়োজন করা হয়। স্থানীয় শিক্ষার্থীদের জন্য প্রেসিডেন্ট পদটি সংরক্ষিত রেখে বাকি আরও আটটি পদ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এই এসআরসি নির্বাচনের আয়োজন করে।

গত বছরের ৫ ডিসেম্বর ২০২০ সেশনের জন্য অনুষ্ঠিত মাসা ইউনিভার্সিটির ‘স্টুডেন্ট রিপ্রেজেন্টিটিভ কাউন্সিল’ (এসআরসি) নির্বাচনে আট প্রতিদ্বন্দ্বীকে হারিয়ে ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি) পদে বিজয়ী হন বশির ইবনে জাফর।

কোভিড-১৯ পরিস্থিতির মধ্যেও বর্তমান মেয়াদে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অগ্রগতিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেন।দ্বিতীয় মেয়াদেও তিনি নির্বাচিত হয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য ভাল কিছু করতে চান। এজন্যে তিনি পুনরায় ভিপি পদে প্রার্থী হয়েছেন।

আগামী ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর নির্বাচনের ভোট গ্রহণ করা হবে। ভিপি পদে বশির ইবনে জাফর ছাড়াও একাধিক বিদেশী ও স্থানীয় শিক্ষার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এ ব্যাপারে বশির ইবনে জাফর বলেন, ‘গতবারের মতো এবারও আমার বিশেষ দৃষ্টি থাকছে আমার নিজের দেশের শিক্ষার্থীদের প্রতি। তাদের সাপোর্ট সবসময়ই গুরুত্বপূর্ণ ছিলো। গত বছর তাদের ভোট আমার জয়ী হওয়ার পেছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলো।

এ বছর এটি আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ কেননা গতবারের তুলনায় এ বছর বাংলাদেশি শিক্ষার্থী বেশি। আর তাদের প্রতি আমার আবেদন থাকবে আমাকে আবারো তাদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা উপহার দিয়ে জয়যুক্ত করবেন।

এছাড়া এ বছর যেহেতু আমি প্যানেল ভিত্তিক নির্বাচন করছি, ক্রীড়া ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে আরো দুজন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে রেখেছি। সুতরাং বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের ভোটগুলো আমরা পাবো সে আশা ও বিশ্বাস তাদের প্রতি রাখছি।

তবে এর বাইরেও অন্যান্য সকল দেশের উল্লেখযোগ্য ভোটও পাবো বলে বিশ্বাস করি।’




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর