কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কাস্তে পাড়ায় ব্যস্ত সময় কর্মকারদের


 মো. জাকির হোসেন, স্টাফ রিপোর্টার, হোসেনপুর | ১৭ এপ্রিল ২০১৮, মঙ্গলবার, ১২:৫৫ | অর্থ-বাণিজ্য 


হোসেনপুর উপজেলার মধ্য আড়াইবাড়িয়া গ্রামের বেশিরভাগ জনগণ কর্মকার সম্প্রদায়ের সাথে জড়িত রয়েছে। এখানকার অনেকেই বাপ-দাদার এ পেশাকেই জীবিকার একমাত্র অবলম্বন হিসেবে বেছে নিয়েছেন। আধুনিক উন্নত প্রযুক্তি যেখানে হার মানায়, নিপুণ শিল্পের কারিগরদের কাছে; তাঁরা লোহাকে আগুনে পুড়িয়ে তা থেকে দা, বটি, কুড়াল, কন্তি বানাতে ব্যস্ত। ব্যতিক্রম কিন্ত এ গ্রামের দেড় শতাধিক পরিবার বছরের দুই তৃতীয়য়াংশ সময়ই কাস্তে তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করেন। এখানকার উৎপাদিত কাস্তের সুখ্যাতি থাকায় কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চল ছাড়াও সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনা, নরসিংদীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের পাইকাররা কাস্তে কিনতে এখানে ছুটে আসেন।

সরেজমিনে কাস্তেপল্লীতে গিয়ে দেখা যায়, কেউ হাফর টানছেন, কেউ আগুনে লোহা পুড়িয়ে হাতুড়ি পেঠা করছেন, কেউ রেত দিয়ে পোড়া লোহার খন্ড সমান করছেন, কেউ কাস্তের ছোট ছোট দাঁত বানাচ্ছেন। এ সব কাজে তারা এতই ব্যস্ত যে দম ফেলারই সময় নেই। বোরো ধান কাটার মৌসুমকে ঘিরে এ সময়ে রাত-দিন ভুলে কাস্তে তৈরি করছেন কর্মকাররা।

এ ব্যস্ততার মাঝেই কথা হয় কাস্তে শিল্পের অভিজ্ঞ কারিগর তাজুল ইসলাম (৫৫) এর সাথে। তিনি জানান, তাঁর বাবা মৃত সায়েম আলী ও দাদা চান্দে আলী এ পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। যে জন্য লাভ-ক্ষতির হিসাব তিনি জানেন না। বাপ-দাদার এ পেশা ছাড়া তিনি অন্য কিছু বুঝেন না।

তিনি জানান, ছোট আকারে একটি কাস্তে  তৈরী করতে ১৪ টাকা খরচা করে ১ টাকা লাভে ১৫ টাকা দরে বিক্রি করেন। ১শ’ কাস্তে তৈরিতে ৩ ঘন্টা সময় ব্যয় করতে হয়। প্রতি বছরের মত চার মাসের জন্য ১ লক্ষ টাকা লগ্নি নিয়ে কাজ করে আসছেন। এ মাসেই ১৮ হাজার টাকা সুদ সহ পরিশোধ করে দিতে হবে।

তাজুলের বাড়ি থেকে একটু সামনেই মো. আমিনুল হক রতনের বসবাস। তার বয়স ৫৮। তিনি ১৯৭৫ সাল থেকে এ পেশায় নিয়োজিত রয়েছেন। বাবা রিয়াজ উদ্দিনের হাত ধরেই তার এ পেশার শুরু। এ পেশায় ৪৪ বছর পার করলেও নিজের পুঁজি না থাকায় স্থানীয় দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে লগ্নি নিয়ে সারা বছর হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করেও লাভের স্বাদ ভোগ করতে পারছেন না। কোন ব্যবসাই পুঁজি ছাড়া হয় না। কাস্তে বানাতে দরকার হয় লোহা, কয়লা, রেত, সোডা। যেজন্য বছরে দু’বারে কমপক্ষে ২লাখ টাকা পুঁজির প্রয়োজন। কেননা ৪ মাস আগেই কাস্তে তৈরির প্রধান কাঁচামাল লোহা কিনে মজুদ করতে হয়। চৈত্র-বৈশাখ মাসে কাস্তে বানিয়ে দেওয়ার শর্তে এ টাকা স্থানীয় দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নিয়েছিলেন।

রতন মিয়া জানান, এ বছর হঠাৎ লোহার দাম বেড়ে যাওয়ায় লাভের একটা সুযোগ ছিল; লগ্নির টাকায় ব্যবসা করায় লাভের পুরোটাই পেয়ে যাবেন দাদন ব্যবসায়ীরা। যে কাস্তের জন্য ২০টাকা হিসেব করে টাকা নেওয়া হয়ে ছিল; সেটি বর্তমানে ২৫/২৬টাকায় বিক্রি করা যেত। কাস্তের আগাম দর ২০টাকা ঠিক করে অনেকের কাছ থেকে টাকা নেওয়ায় বাজার দর বেড়ে গেলেও লাভের টাকা পাবেন দাদন ব্যবসায়ীরা। তিনি একাধিক দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে এ রকম ৫ হাজার, ২ হাজার কাস্তে বানিয়ে দেওয়ার শর্ত পূরণ করছেন এখন। এ বছর লোহার দাম বেড়ে যাওয়ায় লাভের সুযোগ হাত ছাড়া হওয়ার আক্ষেপটা অন্য বছরের চেয়ে কিছুটা বেশিই রয়ে গেল। কেননা দু’মাস আগে যে লোহা ৪৪ টাকা ছিল তা বেড়ে ৬৫ টাকা, আর ৬৫ টাকার লোহার দাম বেড়ে হয়েছে ১০৮টাকা। সে হিসেবে প্রতিটি কাস্তের দাম ৫ টাকা থেকে ৬ টাকা বেড়েছে। যেখানে কর্মকাররা কাস্তে প্রতি সবসময়ই ১টাকা লাভেই সন্তুষ্ট।

কর্মকার মো. মুস্তফা, রতন মিয়া, তাজুল ইসলাম, আবদুছ সালাম, আরমান মিয়া ও জালাল মিয়াসহ অনেকেরই সবকারের কাছে  দাবি, বাপ দাদার এ পেশার স্বকৃতি দিয়ে ব্যাংক ঋণের ব্যবস্থা করলে দাদন ব্যবসায়ীদের হাত থেকে তাঁরা রক্ষা পাবেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ