কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে সেবার মানে উন্নতি, করোনা টিকাদান সেবাও প্রশংসনীয়


 শাহ্ ইস্কান্দার আলী স্বপন | ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, সোমবার, ১১:১১ | মত-দ্বিমত 


কোভিড-১৯ মহামারী শুধুমাত্র এ শতাব্দির আতঙ্কই নয়, মানব জাতির জন্য এক চরম অভিশাপ হয়ে আবির্ভূত হয়েছে বিশ্বময়। করোনা ভাইরাসের আকার, রুপ ও প্রকৃতি পরিবর্তনের পাশাপাশি এর ক্ষমতা বৃদ্ধির বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যায় সতর্ক হতে গিয়ে ভীত হয়েছে মানুষ।

বিভিন্ন দেশে ভ্যাকসিন আবিষ্কারের প্রচেষ্টা ও সফলতার খবরে উৎসুক ও উৎফুল্ল হয়েছে তারা, ভ্যাকসিনের অপেক্ষায় গুণেছে দিন।

কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছে আপনজন। আমরা হারিয়েছি বহু বীর মুক্তিযোদ্ধা, বরেণ্য বুদ্ধিজীবী, রাজনীতিক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সহ কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে কর্তব্যরত নিবেদিতপ্রাণ চিকিৎসক, সাংবাদিক, ভলান্টিয়ার, আনসার, পুলিশ, সেনাসদস্য ও সেনা কর্মকর্তা সহ রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ কার্যে নিয়োজিত মহামান্য রাষ্ট্রপতির প্রিয় সহোদর ও তাঁর সচিব বীর মুক্তিযুদ্ধা অধ্যাপক আবদুল হাই কে।

আমরা আমাদের বয়োজেষ্ঠ্য প্রবীণদের স্বাস্থ্য ঝুঁকির আতঙ্কে নিয়ে কাটাচ্ছিলাম চরম উদ্বিগ্ন অচেনা প্রহর।

সামাজিক জীব মানুষ দীর্ঘকাল কোয়ারেন্টাইন বা জনবিচ্ছিন্ন থেকে সাধারণ চিকিৎসা বঞ্চিত হয়ে মানসিক অসুস্থ্য হয়েছেন অনেকেই।

কোভিড-১৯ শুরুর প্রাথমিক পর্যায়ে করোনা কোন এক বিশেষ সম্প্রদায়ের রোগ বলে এক শ্রেণির মানুষ মানুষকে বিভ্রান্ত করছিলেন। এখন যখন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন এসেছে তখনো এক শ্রেণির মানুষ এর পার্শপ্রতিক্রিয়ার ভীতি প্রতিপক্ষের দিকে ছূঁড়ে মারছেন।

বহুবিধ সমস্যা নিয়েই সাহস আর সন্তর্পনে সফলতার পথে এগিয়েছেন আমাদের সরকার। উন্নত দেশ আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ভ্যাকসিন নেয়ার অল্প ক’দিনের মধ্যেই আজ আমার সৌভাগ্য হল কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন নেয়ার।

সম্পূর্ণ পার্শপ্রতিক্রিয়াহীন বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি গবেষণায় তৈরি Oxford-AstraZeneca ভ্যাকসিন নেয়ার সুযোগ পাচ্ছেন বাংলাদেশের আপামর মানুষ।এ বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন আমাদের সরকার।

দেশের নাগরিক হিসেবে সরকার প্রধান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্বাস্থ্য সচিব মহোদয় জনাব মো. আবদুল মান্নানের কাছে বাংলাদেশে দ্রুততম সময়ে ভ্যাকসিন আমদানি ও মানব দেহে প্রয়োগের ব্যবস্থাপনার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

উল্লেখ্য, স্বাস্থ্য সচিব মহোদয় জনাব মো. আব্দুল মান্নান কিশোরগঞ্জে কোভিড-১৯ ম্যানেজমেন্টের মানবিক দায়িত্বপালনরত অবস্থায় তার প্রিয়তমা পত্নী কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারান। তার প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানাই।

শুনেছি তিনি তার স্ত্রীর স্মৃতি রক্ষার্থে জনগণের চিকিৎসা সেবার জন্য একটি হাসপাতালও নির্মাণ করছেন।

আমি আমার জন্মস্থান কিশোরগঞ্জে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভ্যাকসিন নিতে গিয়ে সরকারি হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা ও হাসপাতাল পরিচ্ছন্নতা সম্পর্কে আমার পূর্ব ধারণা বদলে গেছে।

কিশোরগঞ্জের মানুষের স্বাস্থ্যসেবার এই মুল হাসপাতালটির দীর্ঘ কালের অপরিচ্ছন্ন জীর্ণতা আর নেই। উপ-পরিচালক মহোদয় ডা. মো. হেলাল উদ্দিন এর তত্বাবধানে হাসপাতালটি এখন সুপরিচ্ছন্ন ও স্বাস্থ্যসম্মত মানে উন্নীত হয়েছে।

উন্নত হয়েছে এর চিকিৎসা সেবা ও ব্যবস্থাপনার মান, এতে সংযুক্ত হয়েছে কর্তব্যরত ডাক্তারদের বিনয়াচরণ।

কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন গ্রহণকালে আমার কিছুটা নার্ভাসনেস তৈরি হলে উপ-পরিচালক মহোদয় ডা. মো. হেলাল উদ্দিন নিজে উপস্থিত হয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে আমার নিরাপদ ভ্যাকসিন প্রদান সম্পন্ন করেন। এমনকি ভ্যাকসিন প্রদানের পর তার নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে ৩০ মিনিট বসিয়ে রেখে সম্পূর্ণ নিরাপদ অবস্থায় হাসপাতাল ত্যাগ করার পরামর্শ দেন।

প্রসঙ্গত আলোচনায় জানতে পারি, এই অভিজ্ঞ স্বাস্থ্য প্রশাসক ডা. মো. হেলাল উদ্দিন ইতিপূর্বে নরসিংদী জেলার সিভিল সার্জন ও পরবর্তীতে কিশোরগঞ্জের নির্ধারিত কোভিড-১৯ হাসপাতাল শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ছিলেন।

উপ-পরিচালক মহোদয় ডা. মো. হেলাল উদ্দিন ও তার অভিজ্ঞ টিমের আন্তরিকতা ও কেয়ার আমাকে মুগ্ধ করেছে। তার সরকারি হাসপাতাল ব্যবস্থাপনার মান ও পরিচ্ছন্ন পরিবেশ দেখে আমি যারপরনাই বিস্মিত হয়ে আনন্দ বোধ করেছি।

ভ্যাকসিন নেয়ার পর আমার কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। আপনারাও ভ্যাকসিন নিন, সুস্থ্য থাকুন। আবার আমাদের মাঝে ফিরে আসুক নির্ভয় কর্ম চঞ্চলতা, অর্থনৈতিক প্রবাহ। সমৃদ্ধ হোক বাংলাদেশ।

ডা. মো. হেলাল উদ্দিন ও তার অভিজ্ঞ মেডিকেল টিমকে অভিনন্দন, কৃতজ্ঞতা ও অসংখ্য ধন্যবাদ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর