কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে করোনাকালীন পাঠদানকারী শিক্ষকদের সংবর্ধনা প্রদান


 আফসার হোসেন তূর্জা | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার, ২:০৬ | শিক্ষা  


করোনাকালীন পরিস্থতিতে কিশোরগঞ্জ জেলায় অনলাইন প্রাথমিক শিখন শেখানো কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারী শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সংবর্ধনা দিয়েছে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস।

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম স্মৃতি মিলনায়তনে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সুব্রত কুমার বণিক এর সভাপতিত্বে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কিশোরগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান।

এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন পিটিআই সুপারিনটেনডেন্ট মো. ইসমাইল হোসেন ও সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মাহাবুব জামান।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন মিঠামইন উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. শহীদুল্লাহ, তাড়াইল উপজেলার সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. শফিকুল ইসলাম, শিক্ষক বাতায়নের সেরা অনলাইন পারফর্মার অসীম কুমার সেন, প্রধান শিক্ষক রুমা অঞ্জলী, সহকারী শিক্ষক মোহাম্মদ জাকির হোসাইন প্রমুখ।

এতে কিশোরগঞ্জ জেলার ১৩টি উপজেলার প্রাথমিক অনলাইন কার্যক্রমের ডকুমেন্টারী প্রদর্শন করেন শিক্ষক বাতায়নের সেরা কন্টেন্ট নির্মাতা, জেলা শিক্ষক অ্যাম্বাসেডর, কমলপুর হাজী জনাব আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোহাম্মদ আবদুর রশিদ।

অনুষ্ঠানে কিশোরগঞ্জ জেলায় প্রাথমিক অনলাইন স্কুলে পাঠদানকারী ৮২ জন শিক্ষককে সনদপত্র ও সম্মাননা স্মারক হিসেবে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মাহাবুব জামান তাঁর বক্তৃতায় বলেন, করোনায় দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ার ফলে শিক্ষার্থীদের বিকল্প পাঠদানের বিষয়টি সামনে রেখে ফেসবুকের মাধ্যমে কিশোরগঞ্জ জেলার প্রত্যক উপজেলায় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের নির্দেশনায় প্রাথমিক অনলাইন স্কুল এর কার্যক্রম শুরু হয়।

পিটিআই সুপারিনটেনডেন্ট মো. ইসমাইল হোসেন তাঁর বক্তব্যে করোনাকালীন শিক্ষা ব্যবস্থা সচল রাখতে কিশোরগঞ্জ জেলার ১৩টি উপজেলায় যে সকল প্রাথমিক শিক্ষকগণ অনলাইনে পাঠদান চালিয়ে যাচ্ছেন, তাদেরকে শিক্ষা করোনা যোদ্ধা হিসেবে উল্লেখিত করে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান বলেন, শিক্ষকদের মর্যাদা সবার উপরে। করোনাকালীন যে সকল সম্মানিত শিক্ষক নিঃস্বার্থভাবে অনলাইনে পাঠদান করে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা সচল রেখেছেন তাদেরকে আমি স্যালুট জানাই। এছাড়া অনলাইন পাঠদানে শিক্ষাকগণ নিজেকে আরো দক্ষ ও যোগ্য করে গড়ে তোলার সুযোগ পেয়েছেন।

তিনি স্কাউট কার্যক্রমে অংশগ্রহণের মাধ্যমে দেশের সেবা প্রদান করতে শিক্ষকদের প্রতি আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানের সভাপতি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সুব্রত কুমার বণিক বলেন, আমার শিক্ষকগণ করোনা মহামারীর সময়ে নিজেদের জীবনের কথা চিন্তা না করে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা অগ্রগতির জন্য অনলাইনে পাঠদান করেছেন। করোনাকালীন পাঠদানকারী শিক্ষকদের কথা জাতি স্মরণ রাখবে। এছাড়া অনলাইন পাঠদানকারী শিক্ষকদের মাঝে উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা বৃদ্ধি ও শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার গতি বৃদ্ধি করার লক্ষে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

কিশোরগঞ্জ জেলার ১৩ টি উপজেলায় প্রাথমিক অনলাইন স্কুলে পাঠদান চালিয়ে যাওয়ার জন্য তিনি শিক্ষকদের প্রতি আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত জেলার ৮২ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা ছাড়াও জেলার সকল উপজেলা শিক্ষা অফিসার, ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর, সকল সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার উপস্থিত ছিলেন।

জেলার ভৈরব উপজেলা থেকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগদান করে ক্রেস্ট ও সনদপত্র গ্রহণ করেন কমলপুর মোজাফর বেপারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা ফারহানা বেগম লিপি, জগমোহনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা মিশু আক্তার, আগানগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আশরাফুল আলম, কমলপুর হাজী জনাব আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোহাম্মদ আবদুর রশিদ, প্রধান শিক্ষক রায়হানা হক, সুমনা পাল এবং সহকারী শিক্ষক মোহাম্মদ ফয়সুল আলমের পক্ষে ক্রেস্ট ও সনদপত্র গ্রহণ করেন ভৈরবের সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাদিরা আক্তার।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর