কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

শারীরিক প্রতিবন্ধীতার জন্য চাকরি হচ্ছে না জাহিদুলের



 স্টাফ রিপোর্টার | ৩ মে ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ৭:০৩ | বিশেষ সংবাদ 


বার বার লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েও শারীরিক প্রতিবন্ধীতার জন্য চাকরি হচ্ছে না জাহিদুল হকের। দরিদ্র পরিবারের স্নাতক পাশ এই তরুণ চাকরি নামক সোনার হরিণের আশায় ছুটছেন মন্ত্রী-এমপিসহ উচ্চবিত্তদের দ্বারে দ্বারে। এরপরও মিলছে না চাকরি। কিন্তু নিজ কর্ম দিয়ে শারীরিক প্রতিবন্ধকতা জয় করতে চান জাহিদুল। তাই কারো বোঝা না হয়ে নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে পরিবারের ভরসা হতে চান তিনি।

জাহিদুল হকের বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদী উপজেলার করগাঁও লাহুন্দা গ্রামে। বাবা শামসুজ্জামান একজন প্রান্তিক কৃষক আর মা ফাতেমা আক্তার একজন গৃহিনী। এই দম্পতির একমাত্র সন্তান জাহিদুল হক।

দারিদ্রের মধ্যেও সন্তানকে লেখাপড়া করিয়ে মানুষ করার স্বপ্ন দেখেন জাহিদুলের বাবা-মা। কিন্তু এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ার পর ‘রিওমাইটিজম আর্থরাইটিজ’ নামের এক রোগে আক্রান্ত হন জাহিদুল। আস্তে আস্তে তার ডান হাতটি অচল হতে থাকে। ডান হাত দিয়ে ভারি কোন কাজ করতে পারেন না। তবুও পড়ালেখা বন্ধ করেননি জাহিদুল।

প্রচণ্ড ইচ্ছাশক্তি আর একাগ্রতায় ২০০৫ সালে করগাঁও ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশের পর ২০০৭ সালে গচিহাটা কলেজ থেকে এইচএসসি ও ২০১১ সালে গুরুদয়াল সরকারি কলেজ থেকে বিএসএস পাশ করেন জাহিদুল হক। এতো প্রতিকূলতার মাঝে স্নাতক পাশ করেও পরিবারের ভরসা হয়ে ওঠতে পারেননি জাহিদুল। একের পর এক চাকরির পরীক্ষা দিতে দিতে তিনি আজ ক্লান্ত। বেড়েছে শরীরে বাসা বাঁধা ‘রিওমাইটিজম আর্থরাইটিজ’ রোগের মাত্রাও। এ পরিস্থিতিতে জাহিদুল আর তাই পরিবার এখন পড়েছেন অকুলপাথারে।

পরিবার জানিয়েছে, গত ১৩ বছর যাবৎ জাহিদুলের ‘রিওমাইটিজম আর্থরাইটিজ’ রোগের চিকিৎসা করানো হচ্ছে। কিন্তু কিছুতেই সেরে ওঠছেন না বাবা-মায়ের একমাত্র অবলম্বন জাহিদুল। উল্টো চিকিৎসার খরচ মেটাতে গিয়ে পরিবারটি এখন নাম লিখিয়েছে নিঃস্বের কাতারে। জাহিদুল বর্তমানে পিজি হাসপাতালের চিকিৎসক প্রফেসর সৈয়দ আতিকুল হকের অধীনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

জাহিদুল হক জানালেন, আমি বাবা-মার একমাত্র সন্তান। আমারও ইচ্ছে করে, আমি চাকরি করে বাবা-মায়ের পাশে দাঁড়াই। আমি কষ্ট করে স্নাতক পাশ করেছি। ১৩ বছর চিকিৎসা করেও আমার কোন ফল হচ্ছে না। এই হাত দিয়ে পর পর কয়েকটি সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরির ইন্টারভিউ দিয়েছি। লিখিত পরীক্ষায় উর্ত্তীণ হয়ে মৌখিক পরীক্ষায় গিয়ে আর চাকরি হয় না। কত জনের হাতে-পায়ে ধরে কেঁদেছি, আমাকে একটা পিয়নের চাকরি দেন। যেন দু’মুঠো ডাল-ভাত খেয়ে বেঁচে থাকতে পারি, বাবা-মায়ের বোঝা হতে চাই না। কেউ আমাকে একটা চাকরি দেয় না।

জাহিদুল বর্তমানে করগাঁও এর একটি কিন্ডারগার্টেন স্কুলে মাসিক তিন হাজার টাকায় খণ্ডকালীন শিক্ষক হিসাবে কাজ করছেন। এই অল্প টাকা দিয়ে সংসারের সহায়তা দূরের কথা ওষুধ কেনারই ব্যবস্থা হয় না।

জাহিদের বাবা শামসুজ্জামান বলেন, সন্তানের চিকিৎসার পেছনে জমি-জমা বিক্রি করে নিঃস্ব হয়ে পড়েছি। আর চিকিৎসা করানোর মতো টাকা-পয়সাও নাই। আমার ছেলের যোগ্যতা অনুযায়ী একটি চাকরির জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন জানাই।

এছাড়া আমার একমাত্র ছেলেটির চিকিৎসার জন্য তাকে বিদেশ নেওয়া প্রয়োজন। সমাজের বিত্তশালী ও সাহায্যকারী সংস্থা আমার ছেলের চিকিৎসায় এগিয়ে এলে আমার ছেলে সুস্থ হয়ে ওঠতে পারে। জাহিদুল হকের চিকিৎসায় মানবিক মানুষজন এগিয়ে আসবেন বলেই পরিবারটির বিশ্বাস।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ