কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

ড্রাম সিডারে বপন করা বোরো ধানের বাম্পার ফলন, কৃষকের হাসি


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ৭ মে ২০১৮, সোমবার, ৭:৪৯ | কৃষি 


পাকুন্দিয়ায় ড্রাম সিডার প্রযুক্তির মাধ্যমে সরাসরি কাদাময় জমিতে ধান বীজ বপন করে বাম্পার ফলন পেয়েছেন কৃষকেরা। উপজেলার আংগিয়াদী ব্লকের খামা গ্রামের কৃষক আকাশ, মোতালিব, নুরুল ইসলামসহ বেশ কয়েকজন কৃষক এ প্রযুক্তি ব্যবহার করে বোরো মৌসুমে নেরিকা মিউট্রেন্ট, ব্রি-ধান ৫৮, ব্রি-ধান ৭৪, ব্রি-ধান ৮১ ড্রাম সিডারে বপন পদ্ধতিতে চাষাবাদ করেন। রোগবালাই, প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ বিভিন্ন প্রতিকূলতা কাটিয়ে উঠে সময়মত ফসল ঘরে তুলতে পারায় আনন্দিত এ এলাকার কৃষকেরা।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, বোরো মৌসুমে নেরিকা মিউট্রেন্টসহ অন্যান্য উফসী ধান বপনে কৃষকদের সার্বিক পরামর্শ ও সহযোগিতা করেছেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক কর্মসম্পাদন ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞ পুলের সম্মানিত সদস্য সাবেক সচিব ড. এসএম নাজমুল ইসলাম, জেলা খামারবাড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম ও উপজেলা কৃষি অফিসার ড. গৌর গোবিন্দ দাশ।

সরেজমিনে গিয়ে আঙ্গিয়াদী গ্রামের কৃষক আকাশ মিয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, ড্রামসিডার দিয়ে সরাসরি বীজ বপন পদ্ধতিতে বোরো ধান আবাদ করায় ধানের উৎপাদন খরচ কম হয়েছে। সেই সাথে ফলনও ভাল হয়েছে। একই জাতের ধানের অন্যান্য জমির চেয়ে বেশ কিছুদিন আগে জমির ধান কর্তন করতে পারায় সঠিক সময়ে আউশ ধান আবাদ করা যাবে।

একই এলাকার কৃষক নুরুল ইসলাম ও মোতালিব জানান, আমাদের জমিগুলো বাজার ও রাস্তা নিকটবর্তী হওয়ায় ড্রাম সিডার দিয়ে বীজ বপনের দিন হতে কর্তন পর্যন্ত অত্র এলাকা ও অনান্য দূরবর্তী এলাকার কৃষকেরা বিষয়টি নজরে রাখেন এবং ফলাফল দেখে বাস্তবে প্রত্যেকটি জাতের ভাল ফলন পাওয়ায় এলাকায় ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে ড্রাম সিডার প্রযুক্তিটি।

এ বিষয়ে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ড্রাম সিডার দিয়ে সরাসরি বীজ বপন পদ্ধতিতে বোরো ধান আবাদের ফলে প্রত্যেকটি জাতের নির্ধারিত জীবনকালের চেয়ে ১০দিন পুর্বেই ধান কর্তন করা যায়। এতে সময় ও অর্থ খরচ কম হওয়ায় আবারো এ প্রযুক্তি ব্যবহারে আগ্রহী উঠছেন এলাকার কৃষকেরা। আউশ মৌসমে এ সমস্ত জমিসহ আরো অধিক পরিমাণ জমিতে ড্রাম সিডার প্রযুক্তি সম্প্রসারণে কাজ করে যাচ্ছি এবং আশা করছি আউশ মৌসমে ড্রাম সিডার প্রযুক্তি ব্যবহারকারী কৃষকের সংখ্যাও বৃদ্ধি পাবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ড. গৌর গোবিন্দ দাশ বলেন, সময়মত বিভিন্ন সভা, সেমিনার, মাঠ দিবস, রোগবালাইয়ের আক্রমণে করণিয় লিফলেট বিতরণসহ কৃষকদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদানের মাধ্যমে বোরো মৌসুমে এই উপজেলায় ধানের কাক্সিক্ষত ফলন পাওয়া গেছে। ড্রাম সিডারে বপনকৃত জমিগুলিতেও ভাল ফলন হয়েছে। বৈরী আবহাওয়ায় এখনও যে সমস্ত জমি কর্তনের বাকি রয়েছে ৮০% পেকে গেলে সেগুলো কেটে ফেলার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ