কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

বিনা চিকিৎসায় ধুঁকছেন খ্যাতিমান চলচ্চিত্র পরিচালক জীবন রহমান


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, স্টাফ রিপোর্টার, কটিয়াদী | ৮ মে ২০১৮, মঙ্গলবার, ৮:২৪ | বিনোদন 


জীবন রহমান চলচ্চিত্র জগতের এক সুপরিচিত নাম। ৯০ দশকের গোড়ার দিকে চলচ্চিত্র নির্মাণ জগতে তার পদযাত্রা। তার প্রথম চলচ্চিত্র ‘গহর বাদশা বানেছা পরী’। প্রথম ছবিই সুপারহিট হয়। এতে সাড়া পড়ে যায় চলচ্চিত্র জগতে।

এরপর একে একে হুলিয়া, আজকের সন্ত্রাসী, প্রেম যুদ্ধ, আশার প্রদীপ, আলী কেন গোলাম, মহা সংগ্রাম এবং অ্যাকশান ছবি উত্তর দক্ষিণ এর মতো ব্যবসাসফল ছবি নির্মাণ করে চলচ্চিত্র জগতে এক খ্যাতিমান পরিচালক হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেন জীবন রহমান। তার নির্মিত ১৫টি ছবিই ব্যবসা সফল হয়েছে। সুস্থ ধারার চলচ্চিত্র ‘মহা সংগ্রাম’ নির্মাণ করে ২০০৫ সালে তারুণ্য যুব কল্যাণ সংঘ জীবন রহমানকে শ্রেষ্ঠ পরিচালক হিসেবে ভাসানী স্মৃতি পুরস্কার প্রদান করে।

বর্তমানে তিনি ডায়াবেটিকস, কিডনী, লিভার ও ব্রেইন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে একমাত্র জামাতার বাড়ি কটিয়াদী পৌর এলাকার কামারকোনা মহল্লায় অবস্থান করছেন। তার শারীরিক অবস্থা এতোটাই নাজুক যে, তিনি এখন স্পষ্ট করে কথা বলতে পারেন না। বিনা চিকিৎসায় ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি। যত দ্রুত সম্ভব তাকে উন্নত চিকিৎসা দেয়া প্রয়োজন।

জীবন রহমান এর সাথে একান্ত আলাপচারিতায় অস্পষ্ট ভাঙা ভাঙা কথায় উঠে আসে তার সুখ-দুঃখের কথামালা। জীবন রহমান ১৯৬৪ সালে পাকুন্দিয়া উপজেলার মঠখোলা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পাকুন্দিয়া হাইস্কুল থেকে এসএসসি পাস করে ঢাকা কমার্স কলেজ থেকে এইচএসসি এবং বিকম পাশ করেন তিনি। সে সময় চলচ্চিত্র পরিচালক খসরু নোমানের সাথে পরিচয় হয়। সেই সুবাদে ধীরে ধীরে তিনি প্রবেশ করেন চলচ্চিত্র জগতে।

১৯৮২ সালে খসরু নোমানের সহকারী হিসাবে নাম লেখান চলচ্চিত্র জগতে। নির্মাণ করেন ‘সোহেল রানা’। এরপর দেলোয়ার জাহান ঝন্টু, কাজী হায়াৎ সহ বেশ কয়েকজন পরিচালকের সাথে চলচ্চিত্র নির্মাণে কাজ করেন এবং পাশাপাশি অভিনয় করেন।

৯০ দশকের শুরুর দিকে তার পরিচালনায় ‘গহর বাদশা বানেছা পরী’ চলচ্চিত্র নির্মিত হয়। এটি তার পরিচালনায় প্রথম চলচ্চিত্র। প্রথম ছবিতেই তার অভাবনীয় সাফল্য সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায় তাকে। ৯০ দশকের শেষ দিকে চলচ্চিত্র জগত যখন অশ্লিলতায় নিমজ্জিত। দর্শক যখন চলচ্চিত্র বা সিনেমা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। দেশের চলচ্চিত্র জগতে যখন ধস নেমে আসে, ঠিক ওই সময় তিনি সুস্থ ধারার চলচ্চিত্র ‘মহা সংগ্রাম’ নির্মাণ করেন। এই ছবির জন্য তিনি ২০০৫ সালে ভাসানী স্মৃতি পুরস্কার লাভ করেন।

তার পরিচালনায় ১৫টি ছায়াছবি মুক্তি পেয়ে দেশব্যাপী বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে প্রদর্শিত হয়েছে। আরও দুইটি ছবি ‘কাকনদাসী’ এবং ‘ঋণশোধ’ মুক্তির অপেক্ষায় আছে। তাছাড়া তিনি  মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় মুক্তিযুদ্ধের দুটি ডকুমেন্টারী ‘স্বপ্ন’ এবং ‘সম্মুখ সমর’ নির্মাণ করেন। যা ব্যাপক ভাবে প্রশংসিত হয়েছে। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির নির্বাচনে দেলোয়ার জাহান ঝন্টুর প্যানেলে কার্যকরী সদস্য নির্বাচিত হন।

২০১৩ সালে ডায়াবেটিক, লিভার ও কিডনী রোগে আক্রান্ত হন। ৬-৭ মাস আগে ব্রেইনস্ট্রোকে আক্রান্ত হলে তিনি শয্যাশায়ী হয়ে পড়েন। সামর্থের সবটুকু দিয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা করে ইতোমধ্যে ৩৫-৪০ লাখ টাকা ব্যয় করেছেন তিনি। কিন্তু শারীরিক অবস্থা দিন দিন অবনতির দিকে যাচ্ছে। স্ত্রী তাহমিনা রহমান মিতু তার সেবা শুশ্রুষায় যখন হাঁপিয়ে উঠেন, তখনই একমাত্র মেয়ে তানজিনা রহমান মীমের বাড়ি কটিয়াদীতে আশ্রয় নিয়েছেন গুণী এই পরিচালক।

জীবন রহমানের শেষ ইচ্ছা, মৃত্যুর আগে একটি গঠনমূলক সুন্দর চলচ্চিত্র নির্মাণ করে দেশবাসীকে উপহার দেয়ার। কিন্তু বর্তমানে তার যে শারীরিক অবস্থা দাঁড়িয়েছে, তাতে সেই ইচ্ছে পূরণ দূরে থাক বেঁচে থাকার স্বপ্নই এখন দূরাশা হয়ে দাঁড়িয়েছে। অন্যের উপর ভর করে চলতে হয়। এ অবস্থায় চলচ্চিত্র নির্মাণের কাজ করে যাওয়া তার পক্ষে হয়তো আর কিছুতেই সম্ভব হবে না। শারীরিক সামর্থ্য অর্জনের জন্য যে চিকিৎসা প্রয়োজন তার ব্যয়ভার বহন করার ক্ষমতাও তার নেই। তার সুচিকিৎসার জন্য সরকার বা চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি এগিয়ে আসলে হয়তো তার শেষ ইচ্ছা পূরণ হবে। তার সুস্থতার জন্য তিনি দেশবাসী ও চলচ্চিত্র জগতের সমস্ত কলাকুশলীর নিকট দোয়া চেয়েছেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ