কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কুলিয়ারচরে ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগে ফ্যাক্টর বিদ্রোহী প্রার্থী



 মুহাম্মদ শাহ্ আলম, কুলিয়ারচর | ২৪ নভেম্বর ২০২১, বুধবার, ৭:৪৪ | কুলিয়ারচর 



তৃতীয় ধাপে আগামী ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচর উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। নির্বাচনের ভোট গ্রহণের সময় যত ঘনিয়ে আসছে, নির্বাচনের মাঠ ততই উত্তপ্ত হচ্ছে।

ইতোমধ্যে বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনপূর্ব সহিংসতায় বাড়ি-ঘর, অফিস, দোকানপাট ইত্যাদি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। উদ্ধার হয়েছে দেশীয় অস্ত্র। আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন।

অভিযোগ রয়েছে, প্রতীক বরাদ্দের পর প্রকাশ্যে আওয়ামী লীগের এক বিদ্রোহী প্রার্থীর মোটর সাইকেল মহড়ার।

এদিকে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ দলীয়ভাবে ইউপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলেও আওয়ামী লীগের নৌকার মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থীদের নিয়ে। নির্বাচনে জয় পরাজয় নির্ভর করছে বিদ্রোহী প্রার্থীদের নির্বাচনী তৎপরতা ও ভোট গ্রহণের পরিবেশের উপর।

এদিকে সোমবার (২২ নভেম্বর) দুপুর ১টার দিকে ফরিদপুর ইউনিয়নে মোটর সাইকেল বহর নিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী মাসুদুর রহমান মুছার মহড়া দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

এর আগে একই ইউনিয়নে গত শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) রাত সাড়ে ১০টার দিকে নৌকা ও বিদ্রোহী প্রার্থী সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় ৫ জন আহতসহ একটি অফিস ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।

এছাড়া গত শনিবার (২০ নভেম্বর) দুপুরে উছমানপুর ইউনিয়নে নৌকা ও বিদ্রোহী প্রার্থী সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থক ইউপি সদস্য মো. ইদ্রিস মিয়া (ইদু মিয়া) ও নৌকা প্রার্থীর সমর্থক মুছা মিয়া, সাইফুল ইসলাম মারাত্মক আহতসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়।

ওইদিন রাতেই নৌকা প্রার্থীর সমর্থক মো. আলম মিয়ার বাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

এদিকে ১নং গোবরিয়া-আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নেও নৌকা ও বিদ্রোহী প্রার্থী সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

তৃতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ইউপি নির্বাচনে কুলিয়ারচর উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী ৩৪, সংরক্ষিত সদস্য পদে প্রার্থী ৬৮ ও সাধারণ সদস্য (মেম্বার) পদে ১৯৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ভোটের সময় ঘনিয়ে আসার কারণে প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের পোস্টারে পোস্টারে ছেয়ে গেছে নির্বাচনী এলাকার হাট-বাজার, রাস্তাঘাট।

অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া নির্বাচনে উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মধ্যে ১নং গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে ৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. এনামুল হক (নৌকা), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত মো. নাছির উদ্দিন (হাত পাখা), জাতীয় পার্টি মনোনীত মো. মুসলেহ উদ্দিন (লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মো. আব্বাস উদ্দিন (চশমা), সাইদুজ্জামান (আনারস), মো. সাইফুল ইসলাম (মটর সাইকেল), মোহাম্মদ নূরুল ইসলাম (ঘোড়া), মো. সালাহ উদ্দিন খান (অটোরিক্সা) ও মো. নিয়ামুল হক (টেলিফোন)।

এছাড়া এ ইউনিয়নের বৃহত্তর ৩ ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১৯ জন ও ৯ ওয়ার্ডে সাধারণ সদস্য (মেম্বার) পদে ৪৭ জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন।

৪নং উছমানপুর ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত কুলিয়ারচর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. নিজাম ক্বারী (নৌকা), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত মো. শামীম মিয়া (হাত পাখা), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মো. আনিছ মিয়া (মটর সাইকেল), মো. আসাদ মিয়া (চশমা) ও মো. সেলিম মিয়া (আনারস)।

একইসঙ্গে ওই ইউনিয়নের বৃহত্তম ৩ ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১০ জন ও ৯ ওয়ার্ডে সাধারণ সদস্য পদে ৩৩ জন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন।

ছয়সূতী ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত কুলিয়ারচর ডিগ্রি কলেজের সাবেক ভিপি মো. ইকবাল হোসেন (নৌকা), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত মো. দ্বীন ইসলাম (হাত পাখা) , জাতীয় পার্টি মনোনীত জিল্লুর রহমান (লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মো. আনিসুজ্জামান (চশমা), মো. জুয়েল মিয়া (আনারস) ও নজরুল ইসলাম (মটর সাইকেল)।

এ ইউনিয়নের বৃহত্তম ৩ ওয়ার্ডে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১২ জন ও ৯ ওয়ার্ডে সাধারণ সদস্য পদে ৩৮ জন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন।

সালুয়া ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত মোহাম্মদ কাইয়ুম (নৌকা), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত মো. রফিকুল ইসলাম (হাত পাখা), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মো. ইউসুফ মিয়া (মটর সাইকেল), আপ্তাব উদ্দিন (ঘোড়া), ফারুক মিয়া (টেবিল ফ্যান), মস্তুফা কামাল ফারুক (আনারস), মো. ফারুক (টেলিফোন), বায়েজিদ মিয়া (চশমা) ও মোহাম্মদ আরমান খাঁন (অটোরিক্সা)।

এছাড়া ইউনিয়নের বৃহত্তম ৩ ওয়ার্ডে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১৪ জন ও ৯ ওয়ার্ডে সাধারণ সদস্য পদে ৪৩ জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন।

ফরিদপুর ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত ফরিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এস. এম আজিজ উল্ল্যাহ (নৌকা), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত মো. মঞ্জু মোল্লা (হাত পাখা), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মো. জসিম উদ্দিন (আনারস), মো. মাসুদ মিয়া (চশমা) ও মো. আব্দুর রহমান (ঘোড়া)।

এছাড়া ইউনিয়নের বৃহত্তম ৩ ওয়ার্ডে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১৩ জন ও ৯ ওয়ার্ডে সাধারণ সদস্য পদে ৩৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

উল্লেখ্য, উপজেলার ৬ ইউনিয়নের মধ্যে রামদী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা না হওয়ায় এই ধাপে এ ইউনিয়নে নির্বাচন হচ্ছে না।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর