কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কটিয়াদীতে এমপি’র উদ্যোগে শান্তি সমাবেশ, এলাকায় স্বস্তি, বাড়ি ফিরছে মানুষ



 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, কটিয়াদী | ১০ জানুয়ারি ২০২২, সোমবার, ৬:১১ | বিশেষ সংবাদ 



চতুর্থ ধাপে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সহশ্রাম ধূলদিয়া ইউনিয়নের গৌরিপুর কেন্দ্র থেকে সরঞ্জামাদি নিয়ে উপজেলা সদরে ফেরার পথে দুটি মাইক্রোবাসে আগুন ও সহিংসতার ঘটনায় ৫৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৫শত জনকে আসামি করে কটিয়াদী মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছিলেন গৌরিপুর কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার।

নির্বাচনের পরদিন গত ২৭ ডিসেম্বর মামলা দায়ের করার পর সহশ্রাম ধূলদিয়া ইউনিয়নের গৌরিপুর, হাসারকান্দা, রায়খলা, শিমুলতলা, দেওজান ও সতেরদ্রোন গ্রাম গ্রেপ্তার আতংকে পুরুষশূন্য হয়ে পড়ে। বোরো মৌসুমে সাধারণ কৃষক খেতে খামারে কাজ করতে পারছেন না।

বিষয়টি কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদী-পাকুন্দিয়া) আসনের সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদকে অবহিত করা হলে তিনি গত রোববার (৯ জানুয়ারি) গৌরিপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এক শান্তি সমাবেশের আয়োজন করেন।

সমাবেশে প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করণের জন্য তিনি এলাকাবাসীর সহযোগিতা চান। এ সময় এলাকাবাসী সহযোগিতা করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন।

সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদ সমাবেশস্থলে উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তাগণকে উদ্দেশ্য করে বলেন, কোন নিরীহ মানুষ যেন হয়রানির শিকার না হয়। সেদিনের ঘটনায় প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার আহবান জানান তিনি।

শান্তি সমাবেশের পর থেকে এলাকায় স্বস্তি ফিরে আসে। এ পরিস্থিতিতে ঘরছাড়া সাধারণ মানুষ ঘরে ফিরতে শুরু করেছে।

রায়খলা গ্রামের সালমা বেগম বলেন, ঘটনার পর থেকে গ্রামের মানুষ বাড়িছাড়া। প্রচণ্ড শীতে বড় হাওর ও এর আশপাশে অতিকষ্টে রাত্রিযাপন করেন।

আওয়ামী লীগ প্রার্থী নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাসেম আকন্দ বলেন, গৌরিপুর কেন্দ্রে আমাদের এজেন্ট আরজুকে আটক রাখার খবর পেয়ে আমিসহ কর্মীরা রেজাল্ট ও এজেন্ট আরজু মিয়াকে নিয়ে চলে আসার সময় দুর্বৃত্তরা আমাদের গাড়ি বহরে হামলার উদ্দেশ্যে রাস্তায় গাছ ফেলে ব্যারিকেড সৃষ্টি করে।

আমরা বিকল্প পথে চলে আসি বলে রক্ষা পাই। পরে পুলিশের উপর হামলা করে দুটি মাক্রোবাস পুড়িয়ে দেয়। আমি প্রকৃত দোষীদের বিচার দাবি করছি। নিরীহ কেউ যেন হয়রানির শিকার না হয়, সেই দাবি করছি।

কটিয়াদী মডেল থানার ওসি এসএম শাহাদত হোসেন বলেন, সংসদ সদস্যের উপস্থিতিতে আমরা একটি শান্তি সমাবেশ করি। সেখানে প্রকৃত দোষীদের চিহ্নিতকরণের সহায়তার আহবান জানিয়েছি। সাধারণ লোকজন সার্বিক সহায়তার আশ্বাস দিলে আমরাও তাদেরকে বাড়ি ফিরে আসার আহবান জানাই। এতে এলাকায় স্বস্তি ফিরে আসে।

অন্যদিকে এর আগে গত ২৮ ডিসেম্বর সাবেক সংসদ সদস্য মেজর (অব) আখতারুজ্জামান রঞ্জন গৌরিপুর গ্রাম পরিদর্শন করেন এবং এলাকার নারীদের সাথে মতবিনিময় সভা করেন। তিনি তাদের কথা শুনেন এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনার আশ্বাস প্রদান করেন। অনাকাঙ্খিত এ ঘটনার জন্য তিনি নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও পুলিশ প্রশাসনকে দায়ী করেন।

মেজর (অব) আখতারুজ্জামান রঞ্জন বলেন, এলাকার সাধারণ মানুষ এবং পুলিশের সাথে যেহেতু ঘটনা ঘটেছে। কাজেই তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে সুষ্ঠু তদন্ত করে দায়ী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে বিচারের ব্যবস্থা করতে হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৬ ডিসেম্বর সহশ্রাম ধূলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে গৌরিপুর কেন্দ্রে ফলাফল ঘোষণা নিয়ে দুপক্ষের সমর্থকদের মধ্যে বাদানুবাদের এক পর্যায়ে সশস্ত্র হামলার ঘটনা ঘটে। এতে পুলিশ ১০২ রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। উত্তেজিত জনতা পুলিশের রিকুইজিশন করা দুটি মাইক্রোবাস পুড়িয়ে দেয়।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর