কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষানবিশ আইনজীবীর কান্না, ৫৫ লাখ টাকার ভূমি দখলে মরিয়া ভূমিখেকো সিন্ডিকেট


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৩ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, ৯:২০ | কিশোরগঞ্জ সদর 


কিশোরগঞ্জ সদরের মোল্লাপাড়ায় শিক্ষানবিশ আইনজীবী মো: শাহ কুতুব হোসাইনীর প্রায় ৫৫ লাখ টাকা মূল্যের জমি দখলের পাঁয়তারা করছে একটি চিহ্নিত ভূমিখেকো সিন্ডিকেট। শহরের ফিসারি রোডের মরহুম হামিদ উদ্দিন ভূঁইয়ার ছেলে কুতুব হোসাইনী বিষয়টি নিয়ে সদর মডেল থানায় জিডি ও জেলা প্রশাসক বরাবরে অভিযোগ করলে ভুমিদস্যুরা আরো বেপারোয়া হয়ে ওঠে। ভুমিদস্যুরা এখন প্রকাশ্যে বলে বেড়াচ্ছে হোসাইনী ওই জমিতে গেলে তাকে ও তার পরিবারের লোকজনকে খুন করে ফেলা হবে।

এ ব্যাপারে মঙ্গলবার (২৩ জুন) দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে ভূমিদস্যুচক্রের কবল থেকে রক্ষা পাওয়ার আকুতি জানিয়েছেন শিক্ষানবিশ আইনজীবী মো: শাহ কুতুব হোসাইনী। জেলা শহরের গৌরাঙ্গবাজারে স্থানীয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল কিশোরগঞ্জ নিউজ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এই সংবাদ সম্মেলনে ভূমিখেকো চক্রের হাত থেকে জমি রক্ষা এবং তার ও তার পরিবারের নিরাপত্তা বিধানে প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা কামনা করেছেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগে হোসাইনী বলেন, ২০১৬ সালে সদর উপজেলার মারিয়া ইউনিয়নের বিন্নগাঁও মৌজার মোল্লাপাড়া গ্রামে যু্ব উন্নয়ন অফিসের পাশে ৬০ খতিয়ানের সিএস এসএ ২৭০৭ ও ২৭২২ দাগে তাসলিমা আক্তার নামে একজনের কাছ থেকে মোট সাড়ে পাঁচ শতাংশ জমি কিনেন তিনি।

মূল সড়ক সংলগ্ন হওয়ায় ভূমিখেকো সিন্ডিকেটের নজর পড়ে জমিটির উপর। চক্রটির সদস্যরা কিছুদিন যাবৎ তার কাছে ওই জমিটি নামমাত্র মূল্যে হস্তান্তর করতে প্রকাশ্যে ও লোকের মাধ্যমে চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। তা না হলে এখান থেকে বিনামূল্যে এক শতাংশ জায়গা অথবা ১০ লাখ টাকা চাঁদা দিতে হবে এমন শর্ত দেয় ভূমিদস্যুরা। চাঁদার টাকা না দেয়ায় এখন হোসাইনীকে বিভিন্নভাবে হয়রানি ও ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে মো: শাহ কুতুব হোসাইনী জানান, চার বছর আগের কেনা সাড়ে পাঁচ শতাংশের তার এই জমিটি একেবারেই নিষ্কন্ঠক। এই জমির সিএস-এর মালিক ইন্তাজ শেখ ও ইদ্রিস শেখ নামের দুই ভাই। দুই ভাইয়ের ১ জন করে ছেলে ও ১জন করে মেয়ে। তার জমিটি ইন্তাজ শেখের মেয়ে উমিতুন্নেসার অংশ। উমিতুন্নেসা ১৯৮৩ সালে পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া এই জমিটি মোল্লাপাড়া গ্রামের আবদুল হামিদ ওরফে সুরত আলীর কাছে সাফ কাওলায় বিক্রি করেন। সুরত আলী এই জমিটি তার মেয়ে তাছলিমাকে হেবামূলে কাওলা দেন।

২০১৬ সালের ৩১ মার্চ তাছলিমা আক্তারের কাছ থেকে এই জমিটি ক্রয় করার পর শাহ কুতুব হোসাইনী জায়গা দখলে নিয়ে সীমানা সংক্রান্ত জটিলতায় বাটোয়ারা মোকদ্দমা করে আদালতের মাধ্যমে জমির সীমানা বুঝে পান।  এর পর থেকেই জমিটি তিনি ভোগ দখল করে আসছেন।

গত ৩ মে ২০০৭ নং দাগের ২ শতাংশ ভূমিতে মাটি ভরাটসহ নির্মাণ কাজ করতে গেলে এলাকার ভূমিখেকো সিন্ডিকেটের সদস্যরা ওই জমি জোর করে দখলে নেওয়ার চেষ্টা করে। যার মূল্য প্রায় ৫৫ লাখ টাকা।  ওই দিনের পর থেকে ভূমিখেকো চক্রটি প্রায় প্রতিদিনই এই জমিটি জবর-দখলের চেষ্টা চালাচ্ছে।

সোমবার (২২ জুন) সকালে ওই ভূমিদস্যু চক্রটি  জমিটি জবর দখল করতে গেলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে রফিকুল ইসলাম ও লিসান নামে চক্রের দুই সদস্যকে আটক করে আদালতে পাঠালেও আইনের ফাঁক গলে তারা বেরিয়ে যায়। এতে চক্রটি আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তারা এখন প্রকাশ্যে মহড়া দিচ্ছে হোসাইনীকে মারার জন্য।  হুমকি দিয়ে যাচ্ছে হোসাইনীকে জমির আশপাশে পেলে কুপিয়ে বস্তায় ভরে ফেলা হবে।

এ পরিস্থিতিতে শাহ হোসাইনী জীবন নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় আছেন জানিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি এখন আমার জীবন নিয়ে শঙ্কায় আছি। যে কোনো সময় তারা আমাকে মেরে ফেলতে পারে।’

সংবাদ সম্মেলনে শাহ কুতুব হোসাইনী কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘একজন শিক্ষানবিশ আইনজীবী হিসেবে আইনের প্রতি আমি শ্রদ্ধাশীল। আমি এখন জমি রক্ষা করবো দূরের কথা ভূমিদস্যুদের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি। ভূমিখেকো চক্রটি যেকোনো সময় সন্ত্রাসী কায়দায় ৪ বছর ধরে ভোগদখলীয় নিষ্কণ্ঠক আমার এই জমিটি জবরদখল করতে পারে- এ শংকায় আমার বয়োবৃদ্ধ মা এখন শয্যাশায়ী।

পরিবার পরিজন সবাই উৎকণ্ঠার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। আইন আমাকে সুরক্ষা দেবে এটাই আমি আশা করি। আমি আমার জীবনের নিরাপত্তা চাই। আমি গণমাধ্যম মারফত এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।’


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর