কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনা বাণিজ্য, করোনা প্রতারণা! বিবর্জিত বিবেক, কলুষিত মানসিকতা!


 মো. জসিম উদ্দিন | ১৪ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার, ২:২০ | মত-দ্বিমত 


মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে সারা পৃথিবীর মানুষ আজ এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির সম্মুখীন। ভয়, মৃত্যু আর আতঙ্ক সমগ্র মানবজাতিকে সার্বক্ষণিক বিপর্যস্ত করে তুলেছে। ভাইরাসটি মোকাবেলায় মানবজাতি জীবন-মরণ লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়।

বাংলাদেশের করোনাকালীন সময়ে ১২৮তম দিনে মোট ১ লাখ ৮৬ হাজার ৮ শত ৯৪ জন কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়েছেন। এ সময় পর্যন্ত মোট ২ হাজার ৩ শত ৯১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

করোনার কারণে পেশা হারিয়ে ইতোমধ্যে লাখ লাখ মানুষ বেকারত্বকে বরণ করে নিয়েছেন। প্রায় আড়াই লাখ পরিবার কাজ হারিয়ে রাজধানী ঢাকা শহর থেকে অশ্রুসিক্ত নয়নে নিজ নিজ গ্রামে পাড়ি জমিয়েছে। এমন অবস্থায় জীবন ও জীবিকায়নের সমন্বয় সাধন করে দেশের অর্থনীতিতে গতি সঞ্চার করতে সরকার ও বেসরকারি সংস্থার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানগুলো নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এমন ভয়াবহ সময়ে জনদুর্ভোগ এবং মানুষের করুণ অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে দেশের এক শ্রেণীর প্রতারক, জালিয়াতচক্র ও লুটেরা কোভিড-১৯ কে পুঁজি করে নিজেদের আখের গোছাতে বেপরোয়া অবৈধ বাণিজ্যিক ধান্ধায় লিপ্ত রয়েছে যা অত্যন্ত গর্হিত।

করোনা নিয়ে দেশের এ প্রতারকেরা কি না করছে! নকল পিপিই, নকল ঔষধ সরবরাহ থেকে শুরু করে, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, নকল এন-নাইনটি ফাইভ মাস্কের অবাধ ব্যবসা, জীবন রক্ষাকারী অক্সিজেনের দাম দশ গুণ বৃদ্ধি করে দেয়া, পরীক্ষা না করে কোভিডের ভুয়া সনদ প্রদান করা সহ সবই এ লুটেরারা করছে।

এ প্রতারক গোষ্ঠী ভুয়া প্লাজমা দাতা সেজে অসহায় করোনা রোগীদের পরিজনদের নিকট থেকে প্রচুর অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। সেবার নামে অনেক বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অস্বাভাবিক বিল ধরিয়ে দিচ্ছে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের হাতে।

সম্প্রতি একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, তাদের মেডিকেলে ভর্তিকৃত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত একজন রোগীকে মাত্র ৩০ মিনিট অক্সিজেন দিয়ে প্রায় ৮৬ হাজার টাকার বিল রোগীর স্বজনদের হাতে ধরিয়ে দেয়।

এসব প্রতারণার ঘটনা ভুক্তভোগী রোগী ও তার স্বজনদের নিকট ‘মরার উপর খরার ঘা’ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। যা খুবই দূঃখজনক ও অবাক করার মত ঘটনা! এত সব জালিয়াতি ও প্রতারণার কারণে দেশের স্বাস্থ্যখাত ও এর সেবার মান নিয়ে জনমনে এক ধরনের আস্থাহীনতা সৃষ্টি হওয়ায় স্বাভাবিক।

এর মধ্যে রিজেন্ট হাসপাতাল ও জেকেজির কোভিড-১৯ এর ভুয়া সনদ প্রদান এবং এর প্রেক্ষিতে ইতালি থেকে আমাদের বিমান যাত্রীদের ফেরত পাঠানো, বিমান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা, বহির্বিশ্বে আমাদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। যা অত্যন্ত ন্যাক্কারজনক।

করোনা মহামারীকে কেন্দ্র করে পৃথিবীর কোথাও এমন কি আমাদের দক্ষিণ এশিয়ার কোন রাষ্ট্রে অনৈতিক প্রতারণা ও জালিয়াতির কথা আজ পর্যন্ত শোনা যায়নি।

তবে কি বলবো আমরা বিবেকহীন! আমাদের বিবেকে ভেজাল! আমাদের মানসিকতা কলুষিত! নিশ্চয় তা নয়। একদল প্রতারক, দূর্বৃত্তচক্র, মুনাফালোভী জালিয়াতদের দায় গোটা জাতি নেবে কেন? এ জাতির গর্ব করার মত তো অনেক শ্রেষ্ঠ সম্পদ রয়েছে।

আমরা জানি ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদ আর ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে বিশ্ব মানচিত্রে আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি প্রতিষ্ঠা হয়। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ও এ দেশের একটি স্বার্থান্বেষী মহল নব্য উপনিবেশিক হানাদার পাকিস্তানের পক্ষ অবলম্বন করে। তারা আল-বদর, আল-শামস, রাজাকার বাহিনী গঠন করে বাংলাদেশ তথা বাঙালির মুক্তি সংগ্রামের বিপক্ষে অবস্থান নেয়। এসব দেশীয় নর পিশাচরা পাক হানাদার বাহিনীর সাথে একত্রিত হয়ে হত্যা, লুটপাট, ধর্ষণ, জ্বালাও-পোড়াওয়ের মাধ্যমে দেশে এক প্রকার ভীতি ও নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করে।

স্বাধীনতা লাভের ৪৯ বছর পরও দেশীয় এ চক্রটি দেশকে অস্থিতিশীল করতে সক্রিয় রয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব দুর্বৃত্ত, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদী গোষ্ঠীর অপতৎপরতা বন্ধে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ রয়েছেন।

স্বাধীনতা যুদ্ধ কালীন সময়ের মত বর্তমানেও করোনা মহামারী সময়ে আমরা দেখছি একটি সংঘবদ্ধ প্রতারকচক্র, অবৈধ মুনাফা লুটেরা করোনা ভাইরাসকে কেন্দ্র করে তাদের অবাধ বাণিজ্য ও প্রতারণায় লিপ্ত রয়েছে।

অন্যদিকে আশার কথা হলো দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধারা যেমনি ভাবে জীবন-মরণ লড়াই করে দেশকে হানাদার মুক্ত করেছিলেন, তেমনিভাবে বিশ্বব্যাপী এ করোনা মহামারীর সময়ে দেশের মানুষকে নিরাপদ রাখতে ফ্রন্টলাইনার হিসেবে খ্যাত হাজার হাজার ডাক্তার, সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য ,পুলিশ বাহিনী, নার্স, টেকনিশিয়ানগণ প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অসহায় করোনা রোগীদের জীবন বাচাঁতে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। সেবা দিতে গিয়ে অনেক ফ্রন্টলাইনারা ইতোমধ্যে মৃত্যুকেও আলিঙ্গন করেছেন এ কথা আমরা সবাই জানি।

এছাড়া বর্তমান সরকারও তার সর্বোচ্চ সামর্থ্য নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে দাড়াচ্ছে। সেই সাথে বহু স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও ব্যক্তি পর্যায়ে অসংখ্য মানবিক মানুষ করোনাভাইরাসের এ দুঃসময়ে অসহায় কর্মহীন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন যা প্রতারক, লুটেরা ও মুনাফাখোরদের বিপরীতে আমাদেরকে আশা জাগায়।

তারপরও ভয়ের কারণ হলো করোনাকালীন সময়ে এ সব বিবেক বর্জিত প্রতারকদের কর্মকাণ্ডে সরকার ও দেশের সুনাম বিনষ্ট হচ্ছে। তাদের জালিয়াতির ফাঁদে দেশের অসহায় মানুষ বলি হচ্ছে যা মেনে নেয়া যায় না। একদল দেশপ্রেমিক মানুষ কোভিড মোকাবেলায় রাত-দিন যুদ্ধ করবে আর আরেকদল দুর্নীতির মহোৎসবে মত্ত থাকবে, এমনটি চলতে দেয়া যায় না।

অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, রাষ্ট্রীয় কাঠামোর স্তরে স্তরে অসংখ্য সাহেদ, সাবরিনারা বসে আছে, যারা উই পোকার মত রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে নীরবে ধ্বংস করে যাচ্ছে। রাষ্ট্রের সম্পদ লুট করে নামে-বেনামে একাধিক বাড়ি গাড়ির মালিক বনেছেন।

বর্তমানে এসব লুটেরাদের প্রতারণা বাণিজ্য সব সীমা অতিক্রম করে গেছে। এখন প্রশ্ন হলো, একজন প্রতারক সাহেদ, সাবরিনা কি এক দিনেই তৈরি হয়েছে? তারা সমাজ ও রাষ্ট্রীয় কাঠামোর সর্বোচ্চ পর্যায়ে কিভাবে প্রবেশ করলো! তাদের পৃষ্ঠপোষকই বা কারা! এর উত্তর খুঁজে বের করা খুবই জরুরী।

দুর্বৃত্ত ও প্রতারকচক্রটি যতই শক্তিশালী হোক না কেন, শিগগির তাদের সকলকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে বিচারের সম্মুখীন করা প্রয়োজন। এখন বাস্তবতা এমনই যে, এদেরকে যদি কঠোর হস্তে প্রতিহত করা না যায়, তাহলে সমাজ ও রাষ্ট্রীয় সেক্টরগুলো হাজার হাজার সাহেদ, সাবরিনা, শামিম, পাপুল ও পাপিয়াদের দখলে চলে যাওয়াটা মোটেও অস্বাভাবিক নয়। কাজেই সাধু সাবধান।

# মো. জসিম উদ্দিন, লেকচারার, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ, রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সরকারি কলেজ, ইটনা, কিশোরগঞ্জ। মোবাইল: ০১৭১২-৬৩৭৯৮৩।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর