কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


একজন নির্লোভ, পরোপকারী, সাদা মনের সহজ-সরল মানুষ ছিলেন ‘হাই ভাই’


 সাইফুল হক মোল্লা দুলু | ১৭ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ৭:১২ | মত-দ্বিমত 


মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ছোট ভাই এবং সহকারী একান্ত সচিব মো. আবদুল হাই। হাই ভাইয়ের সাথে পরিচয় সেই শৈশব থেকে। স্বাধীনতার পর  মাঝে মধ্যে তাকে খরমপট্টি বুলবুল ভিলা পুকুরে গোসল করতে দেখতাম। সেই থেকে পরিচয়। তারপর দীর্ঘসময়।

গত ডিসেম্বর মাসে বিজয় দিবসে তাঁর সাথে শেষ দেখা। এরপর পরিবার নিয়ে উমরা হজ্বে যাই। ওমরা পালনের সময় চীনে শুরু হয় কোভিড-১৯। তখন সৌদিসহ অনেক দেশেই কোভিড-১৯ সম্পর্কে তেমন জানাজানি হয়নি।

ওমরা শেষ করে ২৮ জানুয়ারি সকালে সৌদি এয়ার লাইন্সের বিমানে মদিনা থেকে দেশে ফিরি। আসার কয়েকদিনের মধ্যে করোনার প্রার্দুভাব। প্রিয়জনদের মধ্যে কোভিড-১৯ এর সর্বশেষ শিকার হলেন হাই ভাই।

হাই ভাই ছিলেন অন্যরকম মানুষ। সাধারণ জীবন-যাপনে অভ্যস্ত সাদা মনের মানুষ তা সর্বজন স্বীকৃত। কিন্তু আমাকে তার সহজাত কথাবার্তা ও সরলতা সবচেয়ে বেশি আকৃষ্ট করতো।

আমি যখন প্রথম ডেপুটি স্পীকারের কার্যালয়ে যাই। আমাকে দেখার পর তার পাশে বসতে বললো। আমি সরাসরি ডেপুটি স্পীকারের কক্ষে ঢুকতে যাই।

সহজ সরল হাই ভাই কানে কানে বললেন, ‘তুমি এখন যাবে না। তুমি যাবে আমি যখন বলবো। কারণ তুমি যাবে একান্ত সময়ে যখন তিনি (মানে ডেপুটি স্পীকার) একা থাকবেন।’

আমি বললাম, কেন?

হাই ভাই বললেন, ‘আরে বোকা তুমি দীর্ঘ সময় অবস্থান করে বিস্তারিত কথা বলবে। তুমি তো আমাদের লোক।’

উনার এই পরামর্শ পেয়ে প্রথম দিনেই আড়াই ঘন্টা আড্ডা আর কথা-বার্তা। তারপর স্পীকারের কাছে যতবার গিয়েছি। ততদিন তার সৌজন্যবোধ আপ্যায়নে মুগ্ধ হয়েছি।

স্পীকারের কাছে কোনো প্রয়োজনীয় কথা বলবো জানতে পারলে বলতেন, সরাসরি বলে ফেলবে। কোনো রাগ-ঢাক রাখবে না। আপন ভাইয়ের মতো বলে দিতেন।

তাঁর এমন করে বলে দেওয়া কথা এখন কেবলি স্মৃতি। একবার প্রেসক্লাবের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংসদে মাননীয় স্পীকারের কাছে একে নাছিম খানসহ গিয়েছিলাম। হাই ভাই প্রেসক্লাবের নির্বাচনের খবর শুনে তার চিরাচরিত হাসি দিয়ে বললেন, তুমি পাশ করবে।

মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে যতদিন বঙ্গভবনে গিয়েছি, ততদিন হাই ভাইয়ের সাথে দেখা হয়েছে। দেখা হলেই বলতেন, তুমি এসেছো, খুশী হয়েছি। বস, মহামান্যের সাথে ছয়টার পর দেখা কর। তাহলে দীর্ঘ সময় কথা বলতে পারবে।

আমাদের কাছে পেয়ে অবচেতন মনেই তার অবস্থান থেকে তিনি যে আনন্দ-উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতেন তা একজন আবদুল হাইয়ের পক্ষেই সম্ভব। যিনি মন থেকে গ্রহণ করতেন এ জেলার মানুষকে। ভালোবাসতেন শোলাকিয়া-খরমপট্টি এলাকার মানুষজনকে। বঙ্গভবনে তাকে কখনও তার নির্দিষ্ট রুমে বসতে দেখিনি।

আামার দৃষ্টিতে বঙ্গভবনের সবচেয়ে বড় ‘জ্যান্টেলিটি’ হচ্ছে, আপনি মহামান্যের সাথে সাক্ষাৎ করতে মহামান্যের রুমে যাওয়ার সাথে সাথে বঙ্গভবনের সচিব থেকে শুরু করে উর্ধ্বতন বড় কর্মকর্তারা রাষ্ট্রপতির টেবিলের সামনের চেয়ারগুলো খালি করে দিবেন। আপনি যেন স্বাচ্ছন্দে মহামান্যের ঠিক সামনা-সামনি বসতে পারেন। উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সবাই পাশের চেয়ারগুলোতে বসবেন। আপনি হয়তোবা লজ্জাবোধ করতে পারেন। কিন্তু এটাই সেখানকার রেওয়াজ।

আবদুল হাই ভাই বঙ্গভবনের সেই জেন্টেলিটি আগেই শিখেছিলেন। একজন নির্লোভ, সাদা মনের সহজ-সরল মানুষ হিসেবে মহামান্য সব-সময় তাঁর কাছেই রাখতেন তাঁকে। কারণ তিনি এমন একজন ব্যক্তি ছিলেন, যার দ্বারা উপকার না হলেও অপকার হবে না- তা নিশ্চিত ছিল। মহামান্যের পরিবারের চরম বিরোধীতাকারী কিংবা শত্রুও এ কথা স্বীকার করবেন।

মাঝেমধ্যে তিনি খুব গোপন কথা বলে ফেলতেন। যদিও পরবর্তী সময়ে আমাদের তা হতবাক করতো। তিনি যা বিশ্বাস করতেন, তাই বলতেন।

সম্ভবত ২০১৭ সালে জাতীয় পুলিশ সপ্তাহে মহামান্যের সম্মানে রাজারবাগে ডিনার পার্টির আয়োজন করা হয়। কাকতালিয়ভাবে আমি এবং ছড়াকার জাহাঙ্গীর আলম জাহান সেইদিন বঙ্গভবনে।

হাই ভাই বললেন, অপেক্ষা কর। আজ মহামান্যের নির্দিষ্ট কর্মসূচি রয়েছে। সন্ধ্যার পর দেখা কর।

উনার কথা মতো সন্ধ্যায় দেখা হলো মহামান্যের সাথে। বিদায়ের পর হঠাৎ মহামান্য জোরে বলছেন, জাহাঙ্গীর, দুলু কোথায়? তাদের আসতে বল।

আমরা কারে উঠবো কিশোরগঞ্জের উদ্দেশ্যে আসার জন্য। ঠিক সেই সময় হাই ভাই জোরে ডাক দিলেন, ‘দুলু’।

মহামান্য আমাদের দু‘জনকে তার গেস্ট হিসেবে তাঁর সম্মানে পুলিশ ডিনারে নিয়ে গেলেন। ডিনারে গিয়ে নতুন, পুরাতন উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের সাথে দেখা-সাক্ষাতের পর ডিনারে যোগদান। আসার সময় জাহাঙ্গীর বলল, ‘কিভাবে হামিদ ভাইকে ভুলবি। তিনি আমাদের ভোজ সভায় এনে যেভাবে সম্মানিত করেছেন- তা সত্যি ভোলার নয়।’

হামিদ ভাই স্পীকার থাকতে কতবার জাতীয় সংসদে গিয়েছি? গত ৭ বছরে যাওয়া হয়নি। বঙ্গভবনে কতবার গিয়েছি। আছেন বলেই তো যাওয়া হয়।

আমাদের তো সত্যিকার অর্থে কোন কাজ নেই। শুধু কথা বলার জন্যই যাওয়া। একজন আপনজন আছেন বলেই তো যাওয়া হয়। তা না হলে দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থানে যাওয়া হতো কি? যাওয়া মানেই তো আনন্দময় কিছু স্মৃতি জীবনের পাতায় সংযোজন। যা নিরবে নিভৃতে মনে করিয়ে দিবে অতীতের শুভ দিনের কথা।

পরিশেষে বলতে চাই, জীবন-মৃত্যুর মধ্যদিয়েই আমদের পথচলা। এই ক্ষুদ্র জীবনে ভালো মানুষের মধ্যে যাদের সান্নিধ্য পেয়েছি, হাই ভাই তাদের মধ্যে অন্যতম একজন। সদা-হাসোজ্জ্বল, সহজ, সরল এই মানুষটিকে মৃত্যু ধর্মীয় দৃষ্টিতে শহীদ। নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ-তায়ালা তাকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করবেন।

# সাইফুল হক মোল্লা দুলু, সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর