কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মহামান্য রাষ্ট্রপতির স্নেহের ছোট ভাই, আমাদের সবচেয়ে ভালো মানুষ চলে গেলেন


 মো. জসিম উদ্দিন | ১৮ জুলাই ২০২০, শনিবার, ৭:০৫ | মত-দ্বিমত 


মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক সরকারি কলেজের সাবেক সহকারী অধ্যাপক, মহামান্য রাষ্ট্রপতি মহোদয়ের একান্ত সহকারী সচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব আবদুল হাই কাকা কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ঢাকাস্থ সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। উনার আরোগ্য লাভের জন্য সকলের নিকট দোয়া প্রার্থনা করছি।

এভাবেই গত ১০ জুলাই ২০২০ আমার ফেসবুক আইডিতে একটি পোস্ট দিয়েছিলাম। সেই সময় ইটনাস্থ রাষ্ট্রপতি সরকারি কলেজ মসজিদ সহ এলাকার সকল মসজিদে তাঁর রোগমুক্তির জন্য দোয়া ও মোনাজাত করা হয়েছিল।

অতপর সপ্তাহান্তে গত ১৭ জুলাই ২০২০ শুক্রবার রাত প্রায় ২টার মধ্যেই বেশ কয়েকটি টিভি চ্যানেলের স্ক্রলে প্রিয় আবদুল হাই কাকার মৃত্যুর সংবাদটি ভেসে উঠে! নিজের বিশ্বাস ও নিঃশ্বাসে চিড় ধরে! মন ও শরীর নিথর হয়ে যায়!

গভীর দৃষ্টি রাখি চ্যানেলগুলোতে! এবার পরিষ্কার খবর কানে ভেসে আসে। মহামান্য রাষ্ট্রপতির ছোট ভাই ও তাঁর একান্ত সচিব করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাত ১টা ১৫ মিনিটে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেছেন!

হৃদয়ের মানসপটে ভেসে উঠে আমাদের সকলের প্রিয় হাই কাকার সদাহাস্যজ্জল মায়াভরা ঢাগর চোখের সুন্দর অমলিন মুখ! ততক্ষনে দু'চোখ স্বচ্ছ জলে টলমল!

মরহুম আবদুল হাই ১৯৫৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জ জেলার মিঠামইন উপজেলাধীন কামালপুর গ্রামের নিজ বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম হাজী তায়েব উদ্দিন ও মাতার নাম তমিজা খাতুন। ৯ ভাই-বোনের মধ্যে তিনি অষ্টম এবং ভাইদের মধ্যে চতুর্থ। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ,এক পুত্র ও দু'কন্যা সন্তান সহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে যান।

১৯৬৯ সালে তিনি কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক বিদ্যালয় থেকে মেট্রিক (এসএসসি) এবং ১৯৭২ সালে ঐতিহ্যবাহী গুরুদয়াল সরকারি কলেজ, কিশোরগঞ্জ থেকে আইএ (এইচএসসি) পাস করেন। অতপর ১৯৭৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে বিএসএস (অনার্স) ও একই বিষয়ে ১৯৭৫ সালে এমএসএস (মাস্টার্স) ডিগ্রী লাভ করেন।

এ মহৎ প্রাণ ব্যক্তি এক বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবনের অধিকারী ছিলেন। ১৯৭৮ সাল থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত তিনি মিঠামইন উপজেলা আওয়ামী লীগের ১ নম্বর সিনিয়র সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল, মিঠামইন উপজেলা শাখার কমান্ডার, মিঠামইন বিআরডিবি'র চেয়ারম্যান, প্রবাহ সাহিত্য ও সংস্কৃতি সংস্থা, মিঠামইনের সভাপতি, হাজী তায়েব উদ্দিন সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, মিঠামইন এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক সরকারি কলেজ, মিঠামইন এর প্রতিষ্ঠাকালীন সময় ১৯৯১ সাল থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত উক্ত কলেজে অধ্যাপনায় নিয়োজিত ছিলেন।

১৯৭১ সালে স্বাধীনতা সংগ্রাম চলাকালীন সময়ে কিশোরগঞ্জ-সুনামগঞ্জ সাব-সেক্টরে মুজিব বাহিনীর অন্যতম সদস্য হিসেবে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।

১৯৯৯ সালের পহেলা এপ্রিল কলেজের চাকুরী থেকে পদত্যাগ করে ঢ়াকায় চলে আসেন। অতপর জাতীয় সংসদের তৎকালীন ডেপুটি স্পীকার বড় ভাই আবদুল হামিদের সহকারী একান্ত সচিব হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে দুইবার স্পীকারের একান্ত সহকারী সচিব এবং সর্বশেষ মহামান্য রাষ্ট্রপতির সহকারী একান্ত সচিবের দায়িত্ব পালনে নিয়োজিত ছিলেন।

আবদুল হাই কাকা একজন সদালাপী ও বিনয়ী মানুষ হিসেবে সর্বমহলে জননন্দিত ছিলেন। বর্তমানে মিডিয়ার যুগে সুযোগ থাকলে মানুষ নিজকে প্রকাশের কতই না চেষ্টা করে। কিন্তু তিনি ছিলেন ব্যতিক্রম।

জাতীয় সংসদ ও রাষ্ট্রপতির কার্যালয় বঙ্গভবনে উচ্চ পদে আসীন থেকেও তিনি কোন প্রকার আত্মগরিমা বা অহংবোধে বিমোহিত ছিলেন না। নিজকে প্রকাশ কিংবা জাহির করার বিন্দুমাত্র স্পৃহা তাঁর মধ্যে আমরা দেখিনি। ক্ষমতার মোহ, লোভ, অর্থ বিত্ত বৈভব কোন কিছুই তাকে আকৃষ্ট করতে পারেনি।

অগণিত মানুষ, মানুষের কল্যাণ এবং তাদের পাশে থাকাই ছিল তাঁর স্বভাবজাত বৈশিষ্ট্য। তাঁর হাসিমাখা চেহারা, ভালোবাসায় আপ্যায়ন এলাকার নেতা-কর্মী ও গণমানুযকে মোহিত করত। তাই সারা কিশোরগঞ্জ তথা হাওরবাসীর কাছে তিনি ছিলেন তাদের প্রিয় হাই ভাই। ফলে তাঁর মৃত্যুতে কিশোরগঞ্জসহ জন্মভূমি হাওরের মানুষের অন্তরে প্রচণ্ড বেদনার ঝড় বইছে।

এই স্নেহপরায়ণ মহতী মানুষটি দীর্ঘ প্রায় দুই দশক ধরে তাঁর নিজের যোগ্যতা, দক্ষতা, মেধা ও বিচক্ষণতার সাথে তাঁর উপর অর্পিত রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব নীরবে নিভৃতে নিষ্ঠা ও দক্ষতার সাথে পালন করে গেছেন। তাঁর উত্তম আচরণে সংসদ ভবন থেকে বঙ্গভবন পর্যন্ত সকলে বিমুগ্ধ ছিলেন।

আমরা জানি সাধারণত মানুষ হিসেবে একজন রাজনীতিবিদের সর্বমহলে সমান গ্রহণযোগ্যতা থাকে না। তবে তিনি ছিলেন ব্যতিক্রমী একজন রাজনৈতিক কর্মী যার কোন বিরোধিতা ছিলো না। সব জায়গায়, সব মানুষের অন্তরে ছিলো যার বসবাস। তাঁর মৃত্যুর পর এ কথা যেন আরো সত্যি হয়ে উঠেছে।

আজ এ বেদনাহত সময়ে আমাদের মহামান্য রাষ্ট্রপতি, বাংলার মাটি ও মানুষের মহান নেতা, উন্নত হাওরের স্বপ্নদ্রষ্টার কথা উল্লেখ না করলেই নয়। তিনি আধুনিক কিশোরগঞ্জ গড়তে এবং অবহেলিত হাওরের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিদ্যুৎ, যোগাযোগ ও কৃষিক্ষেত্র উন্নয়নের জন্য যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছেন। তিনি হাওরকে দেশের উন্নয়নের মূল স্রোতের সাথে সম্পৃক্ত করতে দীর্ঘ দুই যুগ ধরে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। বর্তমানে হাওরবাসী তার সুফল অনেকটা ভোগ করছেন। কিন্তু মহামান্য রাষ্ট্রপতির এই মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করার ক্ষেত্রে একজন নিরলস কর্মী হিসেবে আবদুল হাই কাকা সার্বক্ষণিক পাশে ছিলেন।

এছাড়া একজন রাজনৈতিক বিচক্ষণ কর্মী হিসেরে হাই কাকা মহামান্য রাষ্ট্রপতি, এলাকার সংসদ সদস্য হাওর বন্ধু রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক ও এলাকার গণমানুষের সাথে সম্পর্ক বা সংযোগ স্থাপনের ক্ষেত্রে সেতুবন্ধন হিসেবে অনন্য ভূমিকা পালন করতেন। আজ দেশের এই মহামারী করোনা, প্রতারণা, জাল-জালিয়াতির সময় আবদুল হাই কাকার মত মানবদরদী একজন মানুষ মহামান্যের পাশে থাকা অতীব প্রয়োজন ছিলো।

কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি যে, হাই কাকার মৃত্যুতে মহামান্য রাষ্ট্রপতি তার অতি আদরের ছোট ভাই এবং একজন বিশ্বস্ত সহকর্মীকে হারালো, পরিবার পরিজন হারালো তাদের মহাপ্রাণ অভিভাবক, জাতি হারালো একজন সৎ দেশপ্রেমিক কর্মবীর মহান মুক্তিযোদ্ধাকে এবং এলাকাবাসী হারালো শত জনমের চেনা তাদের প্রিয় হাই ভাইকে। যার টেলিফোন ও মোবাইল নম্বরটি সর্বদাই মানুষের সমস্যা, কান্নার সমাধান আর বেঁচে থাকার প্রেরণা রহস্যের উত্তর দিত।

এমন মহতী প্রাণ বীর সন্তানের মৃত্যুতে জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হলো। সারা দেশের মত কিশোরগঞ্জ তথা হাওরবাসীর মুখে মুখ এখন শুধু একই কথা, "মহামান্য রাষ্ট্রপতির স্নেহের ছোট ভাই, আমাদের প্রিয় মুখ, সবচেয়ে ভালো মানুষটি চলে গেলেন!"

পরিশেষে বলবো, ‘এনেছিলে সাথে মৃত্যুহীন প্রাণ

মরণে তাহাই তুমি করে গেলে দান।’

প্রিয় হাই কাকা, আপনাকে সশ্রদ্ধ সালাম, আমাদেরকে নিজ গুণে ক্ষমা করুন। হে মহান প্রভু, পরপারে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান, শহীদ এ বীর মুক্তিযোদ্ধাকে শান্তিতে রাখুন।

# মো. জসিম উদ্দিন, লেকচারার, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ, রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সরকারি কলেজ, ইটনা, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর