কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নক্ষত্ররাজি থেকে হারিয়ে যাওয়া সফেদ তারকা বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক আবদুল হাই


 শাহ্ ইস্কান্দার আলী স্বপন | ১৮ জুলাই ২০২০, শনিবার, ৭:৩৯ | মত-দ্বিমত 


সততা, নম্রতা, ভদ্রতা, বিনয় আর নৈতিকভাবে নিষ্কলুষ আদর্শের মানুষ আজকের সমাজে বিরল। প্রাচুর্য বিমুখ পরোপকারী মৃদুভাষী ও অসম্ভব রকম ভদ্র ও বিনয়ী, দয়ালু আর নিরহংকার সফেদ হৃদয় মানুষ বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক আবদুল হাই। তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহামান্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মহোদয়ের প্রিয় অনুজ ও তাঁর সহকারী একান্ত সচিব।

দেশের অভিজাত ও বিখ্যাত রাজনৈতিক পরিবারে প্রোজ্জ্বল সূর্ষালোকসম বড় ভাইদের সাথে থেকেও জনাব আবদুল হাই ছিলেন তার অতুলনীয় ব্যক্তিত্বের নিজস্ব আলোয় স্বমহিমায় উদ্ভাসিত।

আমার সৌভাগ্য শৈশবেই এই মহানুভব কৃত্তিমান মানুষটির সান্নিধ্য পাওয়ার সুযোগ হয়েছিলো দীর্ঘ সময় ধরে। ধনী দরিদ্র নির্বিশেষে নিমেষেই মানুষকে আপন করে নেয়ার বিশাল এক হৃদয় তিনি ধারণ করেছিলেন তার বুকে সুবিশাল হাওরের সীমাহীন জলরাশির মতোই।

তার অভিজাত ঐতিহাসিক পরিবারের প্রচলিত শিক্ষা আর বিশাল হাওরের বুকে ভাসমান একখণ্ড মাটিতে সবুজ বৃক্ষ লতা বেষ্টিত বাড়িটিই যেনো প্রকৃতির নৈসর্গিক আবহ যা তার ব্যক্তিত্বকে উদারতায় পরিপূর্ণ করে সহজ সরল, সাদাসিধে নির্লোভ, নিরহংকার ও পরোপকারী মানুষে পরিণত করেছিলো তার অন্যান্য ভাই ও বোনদের মতোই।

তার পরিবারের প্রতিটি মানুষেরই যেনো আজন্ম অঙ্গীকার হাজার বছর অবহেলিত এক ফসলী জমির অসহায় নিগৃহীত কৃষকের নিরন্তর কষ্ট আর এদেশের মানুষের কল্যাণে নিবেদিত হয়ে তাদের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করা। আর এ অঙ্গীকারের বীজ বপন করেছিলেন তাদের মহানুভব পিতা সমাজ সংস্কারক হাজী তায়েব উদ্দীন সাহেব। সেই সাথে তাদের পরিচর্যা করেছেন তাদের মাতা মহীয়সী নারী তমিজা খাতুন।

কৈশোরে এই ঐতিহ্যবাহী বাড়িটি ঘিরে অসংখ্য স্মৃতি আর এ বাড়ির মানুষগুলোর অকৃত্রিম আদর আর ভালোবাসা আমার পরবর্তী জীবনকে অগ্রসরমান ও সমৃদ্ধ করেছে।

৭০ এর দশকে বাড়িটির চারদিকে জল থৈ,থৈ, চারদেয়ালের সামনে মিঠামইন বাজারমুখী সুদৃশ্য সান বাঁধানো ঘাট। ঘাটে বাঁধা ছোট বড় নৌকা দুলতো, হাওরের দূরন্ত হিমেল বাতাস ছুঁয়ে দিতো নারকেলের পাতা। মসজিদের পাশে টিউবওয়েল তার পাশে ঝাঁক বাঁধা হাসনাহেনা সন্ধ্যের পর থেকেই মৌ মৌ তার সুবাস ছড়িয়ে দিতো টিনের সুদৃশ্য দোতলা ঘরের সারাবাড়ি আর মসজিদের পাশেই  হাওরে রাজপরিবার গড়ার স্বপ্নদ্রষ্টা তাদের পিতা জনাব তায়েব উদ্দীনের সমাধীতে।

বাবা, মা ও ভাই আবদুর রাজ্জাক সাহেবের সমাধি পাশেই মহামান্য রাষ্ট্রপতি মহোদয় নিজ হাতে সমাহিত করবেন তার অতি স্নেহের ছোট ভাই আবদুল হাইকে। উল্লেখ্য প্রথম মেয়াদে দেশের ২০তম মহামান্য রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ গ্রহণের আগের দিন ২০১৩ সালের ২৩ এপ্রিল ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি মহোদয়ের আদরের আরেক ছোটভাই আবদুর রাজ্জাক। তাকেও মহামান্য রাষ্ট্রপতি নিজ হাতে সমাধিস্ত করেছিলেন।

মহামান্য রাষ্ট্রপতির ভাই কৃষিবিদ আবদুর রাজ্জাক ছিলেন পিতার ন্যায় কর্মঠ দূরদর্শী দায়িত্ববান হাওরের জনপ্রিয় মানুষ। প্রাণের আর্তিতে আত্বীয়তার বন্ধনে দূরের মানুষকে কাছে টেনে নিতেন তিনি সূফী সাধকের ন্যায়। তার দায়িত্ব ছিলো তাদের বাবা তায়েব উদ্দীনের রেখে যাওয়া হাওরের বিশাল কৃষিজমির ফসল উৎপাদন ও তা বিক্রি করে মহামান্য রাষ্ট্রপতি মহোদয়ের রাজনীতি ও রাজনৈতিক আন্দোলনের খরচ যোগানো ছোট ভাইদের পড়াশুনা ও সংসার পরিচালনা করা।

উল্লেখ্য বর্তমান সময়ে কেউ কেউ আর্থিক আয় ও খ্যাতি অর্জনের লক্ষ্যে রাজনীতিকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করে থাকেন। কিন্তু সে সময় মহামান্য রাষ্ট্রপতি মহোদয়ের আইন পেশায় অর্জিত সমুদয় অর্থ তিঁনি ব্যয় করতেন জনকল্যাণ ও রাজনৈতিক দল পরিচালনায়। এটাই জনকল্যাণে একজন আদর্শ রাজনীতিবিদের প্রকৃত ভূমিকা।

মসজিদ সংলগ্ন দক্ষিণের দোতলা টিনের ঘরে বাস করতেন তাদের বড় ভাই চেয়ারম্যান জনাব আবদুল গনী সাহেব। আমার জন্য তার প্রশ্রয় ছিলো অবারিত, সিঁড়ি বেয়ে তরতর করে উঠে যেতাম দোতলায়। তিনি চেইন স্মোকার ছিলেন, দু পেকেট স্টার সিগারেট বের করে রুপোর বক্সে সাজিয়ে রেখে একটার আগুন দিয়ে আর একটায় অগ্নি সংযোগ করতেন। এভাবেই চলতো তার সারাবেলা।

কিশোরগঞ্জ সদরে এলে থাকার জন্য আমাদের অষ্টবর্গের খোলামেলা বাড়িটি ছিলো তার প্রথম পছন্দের। মানসী সিনেমা হলের মালিক কিশোরগঞ্জের চার আনা খ্যাত জমিদার বিরাজ বাবু তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু, সুযোগ বুঝে আমি বায়না ধরে সিনেমা দেখার পাশ আদায় করে নিতাম। সবাই মিলে কেবিনে বসে সিনেমা দেখার আনন্দ সে সময় ঈদের আনন্দ মনে হতো।

চেয়ারম্যান আবদুল গনির সাহেবের মতো প্রভাবশালী ও রুচিশীল ভদ্রলোক সে সময়ে সমগ্র হাওর অঞ্চল তথা বৃহত্তর ময়মনসিংহে ছিলো বিরল। মানুষের ব্যক্তিত্ব যে হিমালয় ছূঁতে পারে তা বুঝেছিলাম প্রথম যেদিন হিমালয় দেখি।

তাঁদের মাতা পরম শ্রদ্ধেয়া তমিজা খাতুনের মতো এমন সফট মানুষ আমি আর দেখিনি । সকালে নাস্তা তৈরি হলে ডেকে পাঠাতেন, মাথায় হাত বুলিয়ে দিতেন, তখন বুঝিনি তিঁনিই রাষ্ট্রপতি মাতা।

পরিবারের সকলেরই নিজস্ব ব্যবহারের বিলাসী গয়না নৌকা থাকলেও মিঠামইন বাজার ও আশেপাশের বাড়িগুলোতে যাতায়াতের জন্য ছিলো ছোট ছোট ডিঙি নৌকা বড়দের মতো ছোটরাও নৌকা চালানোতে ছিলো অতি পটু,  ক্লাস থ্রি-ফোর পড়ুয়া আমার পাখী খালা, সাকী খালা, ডরিন খালা, লাকি খালা আর হানিফ মামা কি চৌকস নৌকা চালিয়ে নিয়ে যেতেন মিঠামইন বাজারে।

মজা করতে জনাব আবদুল হাই সাহেব আমাদের ডিঙি নৌকায় চড়ে বসে রাজনীতির ভাষায় বলতেন "বাইয়া দে"। বাজারে যেতে বাম পাশে কলমিলতা আর জলজ উদ্ভিদ ঠেলে নৌকা ভিড়তো তাঁর বড় বোন বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব আছিয়া আলমের বাড়ি। কি অসম্ভব রকমের সাজানো গোছানো বাড়িটির ভেতর বাহির।  মিঠামইন বাজারে সুস্বাদু লাল মোহন মিষ্টি, আমার নানা কৃষিবিদ আবদুর রাজ্জাক আগে থেকেই দোকানে বলে রাখতেন তাই, যে দোকানেই যাই, যত খুশি খাই, কোন মানা নেই।

পড়ন্ত বিকেলে মিঠামইন বাজার সংলগ্ন স্কুলের মাঠে গোল করে বসে মোস্তফা মামা, মুজিব মামা, তরুণ মামা ও তাদের বন্ধুরা সবাই মিলে গল্প আর গানের আড্ডা, কি সুন্দর মান্না দের গান কফি হাউজের আড্ডাটা, বড় আদরের ছোট বোন গাইতেন তারা। দূর থেকে জনাব আবদুল হাই সাহেব আমাদের দেখে মৃদু হাসতেন।

নানুর সাথে গয়না নৌকা করে পাশের গ্রামে তার সইয়ের বাড়ি বেড়াতে যাওয়া, সেখানে রাজহাঁস জবাই করে উৎসব, নানা ধরনের প্রচলিত পিঠা আরো কত কি!

সকালে বাড়ি সংলগ্ন বাম পাশে বেড়া বিহীন টিনের চালার নীচে পাতা লম্বা টুল সমেত আবদুল হাই সাহেবের ছোটভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক নূরু সাহেবের স্কুল। আবদুল হাই সাহেব ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বড় ডিগ্রি নিয়ে কত যত্নে করেই না পড়াতেন শিশু-কিশোরদের। কামালপুরের স্থাপনায় শুরু হওয়া সেই স্কুলই এখন বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক কলেজ।

এছাড়াও হাওরের বিভিন্ন এলাকায় বহু স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করে শিক্ষা উন্নয়নে যুগান্তকারী অবদান রেখেছেন তাদের ঐতিহ্যবাহী পরিবার। কিশোরগঞ্জ সদরে গড়ে তুলেছেন ঈশাখাঁ ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, নার্সিং ইনস্টিটিউট ও রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজ ।

পরিবারটির পরবর্তী প্রজন্ম যেনো আরো মেধাবী অগ্রসরমান মহামান্য রাষ্ট্রপতি পুত্র সাংসদ রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক পিতা ও চাচা ও ফুফুদের পদাঙ্ক অনুসরণ করে এগিয়ে গেছেন বহুদূর, আজ তিনি গণমানুষের প্রিয় নেতা ও প্রাণের মানুষ তাদের আদরের ভাটিরত্ন। সর্বশেষ তিনি আবারও সড়ক ও সেতু সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

মহামান্য রাষ্ট্রপতির দ্বিতীয় পুত্র জনাব রাসেল আহাম্মদ তুহিন কিশোরগঞ্জ সদরের জনপ্রিয় নেতা, তাঁর অপর পুত্র ব্যারিস্টার রিয়াদ আহাম্মদ তুষার, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও বিশিষ্ট ইসলামিক চিন্তাবিদ। জনাব আবদুর রাজ্জাক সাহেবের পুত্র এডভোকেট শরীফ কামাল মিঠামইন ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রিয় চেয়ারম্যান ও জনাব তারেক কামাল কিশোরগঞ্জ জেলা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির নির্বাচিত সভাপতি।

তাঁর ভাই আবদুল হাই সাহেবের একমাত্র পুত্র শাইখ মোহাম্মদ ফারাবী মেধাবী ইঞ্জিনিয়ার ও প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী।

তাঁর স্নেহের ভাগ্নে উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব আছিয়া আলমের পুত্র অধ্যাপক নেহাল আহম্মেদ তরুন দেশের বিখ্যাত বিদ্যাপিঠ ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ।

সুদৃশ্য হাওরের বিশাল অঞ্চলের অবহেলিত জনপদ ভাটি বাংলার হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিত্ব, বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি মহোদয় এবং তাঁর সুপুত্র মাননীয় সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক ও পরিবারের সদস্যগণ এগিয়ে নিয়েছেন ভবিষ্যতের হাজার বছর।

এখন উন্নত সড়ক যোগাযোগ, ফেরিঘাট, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, হাসপাতাল, ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন সবই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে হাওরে। প্রস্তাবিত আর্মি ক্যান্টনমেন্টের প্রতিষ্ঠার কার্যক্রম চলমান।

উপরন্তু বর্ষায় বিস্তৃত হাওরের বিশাল জলরাশি আর শুষ্ক মৌসুমে ফসলের মাঠে সবুজের নৈসর্গিকতা পর্যটনের বিপুল সম্ভাবনা তৈরি করে অনাদিকাল ধরে এ অঞ্চলের হতদরিদ্র অসহায় মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের মহেন্দ্রক্ষণ  হাতছানি দিয়ে ডাকছে।

পরম করুণাময় মহান আল্লাহ তায়ালা দেশের নক্ষত্ররাজি থেকে হারিয়ে যাওয়া সফেদ তারকা বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক আবদুল হাই সাহেবের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত দান করুন। মহামান্য রাষ্ট্রপতি মহোদয় ও তাঁর পরিরারের সদস্যদের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘ জীবন দান করুন। আমিন।

# শাহ্ ইস্কান্দার আলী স্বপন, সি.ই.ও. জিওর্দানো বাংলাদেশ (বাংলাদেশে প্রথম ও একমাত্র বৈশ্বিক লাইফস্টাইল ব্র্যান্ড)।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর