কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সাহিত্যের নায়িকা কবি চন্দ্রাবতী


 যাবীন তাসমিন সানা | ১৯ জুলাই ২০২০, রবিবার, ৮:৩৬ | ফিচার 


বাংলা সাহিত্যের প্রথম সার্থক মহিলা কবি চন্দ্রাবতী। তিনি ছিলেন মনসামঙ্গলের অন্যতম কবি দ্বিজ বংশীদাসের কন্যা। চন্দ্রাবতীর নিবাস ছিল বৃহত্তর ময়মনসিংহের পূর্বাঞ্চলীয় জনপদ কিশোরগঞ্জ জেলার অন্তর্গত পাটোয়ারী গ্রামে (বর্তমানে মাইজখাপন ইউনিয়ন কাচারীপাড়া গ্রাম)। তিনি আনুমানিক ১৫৫০ খ্রিস্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন।

তার রচিত কাব্যগুলো হল মলুয়া, দস্যু কেনারামের পালা এবং রামায়ণ। ময়মনসিংহ গীতিকার চন্দ্রাবতী উপাখ্যানের নায়িকা রুপে অমর হয়ে আছেন কবি চন্দ্রাবতী। ময়মনসিংহ অঞ্চলে চন্দ্রাবতীর রামায়ণ নামে একটি গাঁথা প্রচলিত আছে।

গাঁথানুযায়ী বাল্যকালে চন্দ্রাবতীর বন্ধু ও খেলার সাথী ছিলেন জয়চন্দ্র নামের এক অনাথ বালক। জয়চন্দ্র তার মাতুলালয়ে লালিত-পালিত হন। দ্বিজ বংশীদাসের অনেক রচনায় এই দুজনার রচিত ছোট ছোট অনেক পদ রয়েছে।

পুষ্পবনে শিবপূজার ফুল তুলতে গিয়ে চন্দ্রার সঙ্গে জয়চন্দ্রের পরিচয় ও সখ্যতা ঘটে। ক্রমশ কৈশোরে উত্তীর্ণ হলে দুজনে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হবেন বলে বিবাহের দিনও স্থির করেন। জয়চন্দ্র ইতোমধ্যে অন্য এক মুসলমান মেয়ে আসমানীর প্রেমে পড়ে যান এবং জয়চন্দ্র আসমানীকে লিখেন একাধিক প্রেমপত্র। ত্রিকোণ প্রেমের যবনিকায় চরম মূল্য দিতে হয় উভয়কেই।

জয়চন্দ্রের সাথে চন্দ্রাবতীর প্রেমের কথা জেনেও আসমানী জয়চন্দ্রকে বিবাহ করতে ইচ্ছে পোষণ করেন। আসমানীর বাবা জয়চন্দ্রকে জোরপূর্বক ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তরিত করে আসমানীর সঙ্গে বিবাহ দেন। তখন জয়চন্দ্রের নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় জয়নাল।

ঘটনাটি ছিলো অত্যন্ত করুণ; কারণ সেদিনই চন্দ্রাবতী জয়চন্দ্রের জন্য বিবাহের কন্যা সেজে অপেক্ষা করছিলেন। তখনই সংবাদ পেলেন জয়চন্দ্র ধর্মান্তরিত হয়ে অন্যত্র বিবাহ করেছেন। এরপর শুরু হয় চন্দ্রাবতীর বিরহ-বিধুর জীবন।

শোকবিহ্বলতা কাটাতে তিনি পিতার কাছে অনুমিত নেন যে, সারাজীবন অবিবাহিত থেকে তিনি শিবের সাধনায় আত্মনিবেদন করবেন। সেই জন্য পিতা ফুলেশ্বরী নদীর তীরে একটি শিবমন্দির নির্মাণ করে দেন। তিনি বাকি জীবন শান্ত মনে শিবের উপাসনা ও সাহিত্যচর্চা করে কাটাবেন বলে স্থির করেন।

ইতোমধ্যে বেশ কিছুকাল পরে জয়চন্দ্র বুঝতে পারে আসমানীর প্রতি তার টানটা ছিলো মোহ মাত্র। মনের থেকে তিনি চন্দ্রাবতীকেই প্রকৃত ভালোবাসেন। অনুতপ্ত হয়ে জয়চন্দ্র স্থির করলেন চন্দ্রাবতীকে তাঁর মনের কথা জানাবেন। তাই তিনি চন্দ্রাবতীর কাছে পত্র লিখলেন–

শুন রে প্রাণের চন্দ্রা তোমারে জানাই মনের আগুনে দেহ পুড়্যা হৈছে ছাই।

শিশুকালের সঙ্গী তুমি যৌবন কালের মালা। তোমারে দেখিতে মন হৈয়াছে উতলা

ভাল নাহি বাস কন্যা এ পাপিষ্ঠ জনে। জন্মের মতন হইলাম বিদায় ধরিয়া চরণে।।

একবার দেখিয়ে তোমা ছাড়িব সংসার। কপালে লিখেছে বিধি মরণ আমার।।

পত্র পড়ে চন্দ্রাবতীর ধৈর্যের বাঁধ ভেঙ্গে গেলো। অশ্রুসিক্ত বদনে তিনি পিতার কাছে বিধান চাইলে কন্যার মানসিক শিথিলতা কাটাতে বংশীদাস তাকে সান্ত্বনা দিলেন এই বলে,

তুমি যা লইয়াছ মাগো সেই কাজ কর।

অন্য চিন্তা মনে স্থান নাহি দিও আর।।

জয়চন্দ্রকে পত্রদ্বারা নিষেধ করে চন্দ্রাবতী শিব ধ্যানে আত্নহারা হয়ে তিনি সমস্ত জাগতিক জ্ঞান লুপ্ত হলেন। এক সন্ধ্যায় জয়চন্দ্র ও চন্দ্রাবতীর বিচ্ছেদ হয়েছিল অপর সন্ধ্যায় মিলন হবে দুজনার এই আশায় জয়চন্দ্র রওনা দিলেন পাটোয়ারী গ্রামে।

জয়চন্দ্র যখন গন্তব্যস্থলে পৌছঁলেন তখন দিন ও রাত্রির সন্ধিক্ষণ। জয়চন্দ্র মন্দিরের দ্বারে এসে কয়েকবার ডাকলেন চন্দ্রাবতীকে। কিন্তু দ্বার রুদ্ধ থাকায় এবং একাগ্রমনে ধ্যানে নিমগ্ন থাকায় সেই শব্দ প্রবেশ করল না চন্দ্রাবতীর কানে।

নিরূপায় জয়চন্দ্র তখন লালবর্ণের সন্ধ্যামালতী ফুল দিয়ে মন্দিরের দ্বারে চার ছত্রের একটি পদে চন্দ্রাবতী ও ধরাধামকে চিরবিদায় জানিয়ে সেখান থেকে প্রস্থান করেন।

শৈশব কালের সঙ্গী তুমি যৌবন কালের সাথী।

অপরাধ ক্ষমা কর তুমি চন্দ্রাবতী।

পাপিষ্ঠ জানিয়া মোরে না হইলে সম্মত।

বিদায় মাগী চন্দ্রাবতী জনমের মত।

অনেকক্ষণ পর মন্দির থেকে বেরিয়ে চন্দ্রাবতী বুঝতে পারেন যে দেবালয় কলুষিত হয়েছে। দ্বার পরিষ্কার করার জন্য কলসী কাঁখে জল আনতে যান পার্শ্ববর্তী ফুলেশ্বরী (স্থানীয় নাম ফুলিয়া) নদীতে।

ঘাটে পৌঁছেই চন্দ্রাবতী বুঝলেন সব শেষ! ফুলেশ্বরী জলে নিজেকে নিমজ্জিত করে প্রাণত্যাগ করেছেন জয়চন্দ্র। প্রাণহীন দেহ ভাসছে ফুলেশ্বরীর জলে।

এই অবস্থায় নিজের আবেগ ধরে রাখতে পারলেন না চন্দ্রাবতী। তিনিও প্রেমিকের সাথে পরলোকে চিরমিলনের কামনায় ফুলেশ্বরীর জলে ডুবে প্রাণত্যাগ করেন।

তবে কারো কারো মতে, নদী থেকে ফিরে এসে চন্দ্রাবতী মন্দিরে প্রবেশ করে দরজা লাগিয়ে দেন। সেখানেই তার মৃত্যু হয়। ১৬০০ খ্রিস্টাব্দে তার মৃত্যু হয় বলে ধারণা করা হয়ে থাকে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর