কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শিক্ষকের আদর্শ আজীবন ধারণ করেন তার ছাত্র


 শাহ্ ইস্কান্দার আলী স্বপন | ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার, ৬:০৭ | মত-দ্বিমত 


সুমিষ্ট কণ্ঠস্বর, মৃদুভাষী, অতিশয় বিনয়ী, স্নেহপ্রবণ, প্রিয় শিক্ষক কিশোরগঞ্জ সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের জনাব আবু খালেদ পাঠান স্যার। ক্লাস শুরুর ঘন্টা বাজার পর ফর্সা, ছিমছাম স্বাস্থ্যের অতি সুদর্শন পাঠান স্যার করকরে ইস্ত্রি করা সাদা হাওয়াই শার্ট, গাড়নীল রঙের প্যান্ট ও সুদৃশ্য চামড়ার সেন্ডেল পড়ে বিদ্যালয়ের পূর্ব দিকের টিনের চালওয়ালা দালানের রুমটিতে এসে যখন পৌঁছুতেন, মনে হতো ঘনিষ্ঠ কোন আত্বীয় বুঝি আমাদের সান্নিধ্যে এলেন। অষ্টম শ্রেণির পৌরনীতি পড়াতেন তিনি।

কৃতী শিক্ষকের পাঠদানে শেখানোর পাশাপাশি যে সুপ্ত বিনোদন থাকে, নৈতিক আদর্শের ঝর্ণাধারা বয়ে যায় যা তার ছাত্রকে যে কেবল পাঠ্য বিষয়বস্তুটিতে মনোযোগী করে তুলে তা নয়, প্রিয় শিক্ষকের আদর্শিক ব্যক্তিত্বও মনের অজান্তেই ধারণ করে তার ছাত্রটি। সততা, ভদ্রতা, নৈতিকতা তথা ভালত্ব আর মন্দত্বের পার্থক্য সে তার নিজ পরিবারের বাইরে তার শিক্ষক থেকে শেখার সুযোগ পায়।

আবু খালেদ পাঠান স্যারের পাঠদান এতোটাই উৎকৃষ্ট ছিলো যে, অষ্টম শ্রেণিতে তার কাছে পঠিত পৌরনীতি বিষয়টি আমার মনের মাঝে এমন পরিষ্কার জায়গা করে নিয়েছিলো যা, ব্যাক্তি, পরিবার, সমাজ, নাগরিক, সুনাগরিকের গুণাবলী, রাষ্ট্রের প্রতি তার দায়িত্ব, অধিকার ও কর্তব্য, রাষ্ট্রের গঠন, সরকার ও গণতন্ত্র, সুশাসন ও বিভিন্ন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী সম্পর্কে স্বচ্ছ ও সাম্যক ধারণা বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়টি পড়তে ও বুঝতে আমাকে তেমন কোন কষ্টই করতে হয়নি।

জীবনে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের যত বই পড়েছি মনে হয়েছে এর সবগুলো আমার আগে থেকেই পড়া রয়েছে। প্রিয় শিক্ষক আবু খালেদ পাঠান স্যার পড়িয়ে দিয়েছেন, যেনো সৎ ও দায়িত্বশীল নাগরিক হয়ে রাষ্ট্রে বসবাস করতে কোন অসুবিধা না হয়। এটাই বুঝি একজন শিক্ষকের আসল যোগ্যতা, তাঁর সাফল্য ও শিক্ষা পেশার মূল প্রতিপাদ্য।

আমরা আজ নৈতিকতা বিবর্জিত এক অস্থির সমাজে দুঃসহ বসবাস করছি। নেতিবাচক সংবাদ প্রতিদিন আমাদের ব্যথিত করে। ঘুষগ্রহণ, লুটতরাজ, জবরদখল, স্বেচ্ছাচারিতা সমাজে নিত্য নৈমিত্তিক বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। নৈতিক আদর্শে বলিয়ান হওয়ার পরিরর্তে মানুষ পেশীশক্তি কে তার উন্নয়নের পথ হিসেবে বেছে নিচ্ছে। এমনকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্ররাও ক্রমশ: জড়িয়ে পড়ছে মাদক সেবন, সহিংসতা ও ধর্ষণের মতো অতি লজ্জাস্কর নোংরা অসামাজিক কর্মকাণ্ডে। ক্ষমতায়ন ও অপ্রতিরোধ্য দুর্বৃত্তায়ন প্রতিষ্ঠার জন্য তারা সংগ্রহ করছে রাজনৈতিক পরিচয়, কলুষিত করছে সমাজ ও রাষ্ট্র।

সমাজের এই নেতিবাচক পরিবর্তনের মুল কারণ আদর্শহীনতা, নৈতিকতা বিবর্জিত উপার্জন, পরিবার, সমাজ ও প্রতিষ্ঠানে নৈতিকতা চর্চা ও নৈতিক শিক্ষার অভাব। একজন অসৎ ব্যক্তির দ্বারা যেমন সত্য, ন্যায় প্রতিষ্ঠা কিংবা তার নিজ সন্তানকেও সদুপদেশ দেয়া সম্ভব নয়, তেমনি অর্থের লোভ কখনোই একজন সৎ ও সুনাগরিককে বিপথগামী করতে পারে না। পরিবার, সমাজ ও প্রতিষ্ঠানে নৈতিক শিক্ষাপ্রাপ্ত ব্যক্তি কখনো মাদকসেবন, সহিংসতা কিংবা ধর্ষণের মতো ঘৃণ্য পাপাচারে লিপ্ত হতে পারে না।

এখনই সময় ভবিষ্যৎ প্রজন্মের স্বার্থে নেতিবাচক সামাজিক প্রবণতাগুলো রুখতে হবে। এজন্য সুশিক্ষার পাশাপাশি আমাদের পূর্বপুরুষের জীবনাচরণ থেকেও শিক্ষা নিতে হবে। এক সময় এদেশে ছাত্র-যুবকেরা সাহিত্যচর্চা, শরীরচর্চা এবং চরিত্রগঠনের নিমিত্তে সংগঠিত হয়ে সামাজিক উন্নয়নের জন্য সংঘ বা ক্লাব গঠন করতো। দরিদ্র পিতার কন্যার বিয়ের আয়োজন করতো স্থানীয় যুবসমাজ। স্কুলে নৈতিক বিষয় পড়ানো হতো, " সকালে উঠিয়া আমি মনে মনে বলি, সারাদিন আমি যেনো ভালো হয়ে চলি।"

দুর্ভাগ্য আমাদের যুবকেরা আজ সংগঠিত হচ্ছে মাদকসেবন, জুয়া, সহিংসতা এবং ধর্ষণের মতো গর্হিত কাজের প্রবৃত্তি নিয়ে। এর দায় তাদের পিতা-মাতা, পরিবার, শিক্ষক, প্রতিষ্ঠান, সমাজ ও রাষ্ট্রকে নিতে হবে। পরিবারের নৈতিকতা বিবর্জিত আর্থিক আয় এবং প্রাচুর্য, পেশীশক্তির উত্থান এর জন্য অনেকাংশে দায়ী।

পিতা-মাতা, শিক্ষক, সমাজ, রাষ্ট্র সকলকেই আজ ভাবতে হবে। আমাদের অবশ্যই ঘুরে দাঁড়াতে হবে, প্রজন্মের কাছ দায় শোধতে ফিরে যেতে হবে পূর্বপুরুষের আদর্শিক অতীতে। শিক্ষককে আত্মোপলব্ধি করতে হবে ছাত্রকে তিনি কি শিক্ষা দিচ্ছেন, প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নৈতিকতা উন্নয়ন কেন্দ্র গঠন করে ছাত্রদের সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠার উৎসাহ দিবেন শিক্ষক।

প্রিয় শিক্ষক আবু খালেদ পাঠান স্যারের ব্রত নিয়ে জীবিকার জন্য পেশার পাশাপাশি জাতি বিনির্মাণে অগ্রণী ভুমিকা রাখতে হবে সকল শিক্ষককে। কেননা পিতা-মাতার পর শিক্ষকের আদর্শ আজীবন ধারণ করেন তার ছাত্র।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর