কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করিমগঞ্জে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে শিক্ষক নেতার ওপর হামলা, শিক্ষকদের বিক্ষোভ


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৪ নভেম্বর ২০২০, বুধবার, ৫:৫১ | করিমগঞ্জ  


কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি শামসুল হক ফরহাদকে মারধর করে জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার (৩ নভেম্বর) বিকেলে উপজেলার নেয়াবাদ ইউনিয়নের কাজী (নিকাহ রেজিস্ট্রার) তাজুল ইসলাম মরুফ ওই অফিসের কর্মকর্তাদের সামনে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তার ওপর চড়াও হন।

এ ঘটনায় জড়িত মারুফকে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বুধবার (৪ নভেম্বর) দুপুরে প্রাথমিক শিক্ষকরা বিক্ষোভ সমাবেশ করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে স্মারকলিপি দিয়েছেন।

অন্যদিকে আহত শিক্ষক নেতাকে করিমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

জানা গেছে, করিমগঞ্জ উপজেলা প্রথামিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি শামসুল হক ফরহাদ বালিয়া উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ছিলেন। তাঁর পরের সভাপতি ছিলেন গোলাম মোস্তাফা।

ওই বিদ্যালয়ে নিকাহ  রেজিস্ট্রারের (কাজী) তাজুল ইসলাম মারুফের স্ত্রী জেবুন্নেছা আক্তার ধর্মীয় শিক্ষক হিসেবে বর্তমানে কর্মরত আছেন। অভিযোগ রয়েছে, তার নিয়োগ ও এমপিওভুক্তি দুটোই জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে হয়েছে। বিদ্যালয়ের আরেক সভাপতি গোলাম মোস্তফার সহযোগিতায় এসব জাল-জালিয়াতি সম্পন্ন হয়।

বিষয়টি নিয়ে সাবেক সভাপতি শামসুল হক ফরহাদ ২০০৪ সালে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডে অভিযোগ করেছিলেন। এর পর উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, জেলা শিক্ষা অফিসারসহ সংশ্লিষ্টরা বেশ কয়েকবার অভিযোগের তদন্ত করেন।

প্রতিবারই নিয়োগ ও এমপিওভুক্তিতে সংশ্লিষ্টরা জাল-জালিয়াতির প্রমাণ পেলেও অদৃশ্য কারণে ওই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বহু বছর ধরে এই জালিয়াতির পেছনে লেগে থাকায় শিক্ষক নেতা ফরহাদের ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন ধর্মীয় শিক্ষকের স্বামী মারুফ।

মঙ্গলবার (৩ নভেম্বর) এসব বিষয়ে কথা বলতে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয়ে যান শিক্ষকনেতা ফরহাদ। এ সময় সেখানে গিয়ে হাজির হন ধর্মীয় শিক্ষক জেবুন্নেছার স্বামী মারুফ।

সেখানে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মারুফ হামলা চালান ফরহাদের ওপর। এতে নাক ফেটে যাওয়াসহ মারাত্মকভাবে আহত হন তিনি। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। বর্তমানে সেখানে তাঁর চিকিৎসা চলছে।

এ বিষয়ে করিমগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শাহজাহান সিরাজ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তাঁর টেবিলের সামনেই বসা ছিলেন দুজন। হঠাৎ দেখি ফরহাদকে আক্রমণ করে বসেন মারুফ। এ ধরণের আচরণ কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।

বিষয়টি নিয়ে অভিযুক্ত তাজুল ইসলাম মারুফের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাঁর ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

এদিকে বুধবার (৪ নভেম্বর) উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সমিতির আহত সভাপতি বাদী হয়ে তাজুল ইসলাম মারুফকে আসামি করে করিমগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেছেন বলে জানিয়েছেন করিমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মমিনুল ইসলাম।

করিমগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাদিউল ইসলাম বলেন, একটা সরকারি অফিসের ভেতরে একজন শিক্ষকের ওপর হামলা চালানোর ঘটনাটি শিক্ষকরা কিছুতেই মেনে নিতে পারছে না। আমরা শিক্ষক সমাজের পক্ষ থেকে অভিযুক্ত কাজীকে দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচার দাবি করছি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর