কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সিটকিনি খুলে ঘরে ঢুকে চুরির কসরত, দৌড়ে-অস্ত্র দেখিয়েও রেহাই পেলো না নিশিকুটুম্ব


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৪ নভেম্বর ২০২০, বুধবার, ৬:৩৮ | করিমগঞ্জ  


সিটকিনি খুলে ঘরে ঢুকল চোর। তারপর জাজিমের নিচ থেকে চাবি নিয়ে খুলল স্টিলের আলমারি। আলমারি খোলার শব্দে ঘুম ভেঙে গেল গৃহকর্ত্রীর। আর সেটাই কাল হল। তার চিৎকার চেঁচামেচিতে জেগে ওঠল গৃহকর্তা।

ওমনি পড়িমড়ি করে ঘর থেকে লাফ দিল চোর। গৃহকর্তাও পিছন পিছন ‘চোর, চোর’ বলে দিল দৌড়। এর মধ্যেই পাড়ার লোকও জেগে ওঠল। বাইরে উঠোনে উঠোনে বিদ্যুতের আলো। আর যায় কোথায় নিশিকুটুম্ব!

অবস্থা বেগতিক বুঝে কোমর থেকে ধারালো অস্ত্র বের করে ভয় দেখানোর চেষ্টা করল। এরপর পালানোর জন্য আবার দিল দৌড়।

তবে অপরিচিত এলাকা হওয়ায় পথ খুঁজে পাচ্ছিল না। শেষমেশ অস্ত্রসমেতই ধরা পড়ল চোর।

ঘটনাটি করিমগঞ্জ উপজেলার গুনধর ইউনিয়নের খয়রত গ্রামের। মঙ্গলবার (৩ নভেম্বর) দিবাগত গভীর রাতে গ্রামের হাজী ইদ্রিস ভূঞার ছেলে মুদি ব্যবসায়ী মুখছেদুল মমিন সবুজ ভূঞার ঘরে চুরি করতে গিয়ে এভাবেই ধরা পড়ে এক চোর।

পরে গৃহকর্তার বাড়ির বারান্দায় এনে হাত-পা বেঁধে গণধোলাই দেয়া হয় তাকে। গণধোলাইয়ে চোর জানায়, খয়রত গ্রামেরই তার এক বন্ধু-চোর তাকে ভাড়া করে নিয়ে এসেছিল এখানে চুরি করতে। তার কাজ চুরি করার আগে তাকে ঘর দেখিয়ে দেয়া।

এরপর ভোরে গ্রামের ওই চোরকেও ধরে এনে বাঁধা হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ। বুধবার (৪ নভেম্বর) সকাল ১০টায় ওই দুই চোরকেই থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

গ্রামের চোরের নাম মো. নাজমুল ইসলাম (৩৮)। সে মৃত রুস্তম আলীর ছেলে। ইউনিয়নে সে ইয়াবাখোর হিসেবে চিহ্নিত। এলাকায় ঘটি-বাটি বদনা চুরির অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

আর ভাড়াটিয়া চোরের নাম মো. উজ্জল মিয়া (৩৬)। সে সুতারপাড়া ইউনিয়নের উত্তর গণেশপুর গ্রামের মৃত হাফিজ আলীর ছেলে। তার নামে করিমগঞ্জ থানায় পাঁচটি মাদক মামলা আছে। চামড়াঘাট এলাকায় ছেঁচড়া চোর হিসেবে সে পরিচিত।

জানা গেছে, মঙ্গলবার (৩ নভেম্বর) দিবাগত রাত দুইটার দিকে খয়রত গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী আব্বাস আলীর বসতঘরে ঢুকে, ঘরে থাকা ড্রামের তালা খুলে আড়াই হাজার টাকা, একটি মোবাইল সেট ও একটি টর্চ লাইট চুরি করে তারপর একই গ্রামের পার্শ্ববর্তী বাড়ি সবুজ ভূঞার ঘরে চুরি করতে এসেছিল ওই চোরেরা। রাত আড়াইটার দিকে দৌড়িয়ে ধরা হয় উজ্জল মিয়াকে।

গ্রামের লোকজন জানান, চুরি করার সময় ইয়াবা বড়ি খেয়ে মত্ত অবস্থায় ছিল উজ্জল মিয়া। এর জন্য বেশি দৌড়াতে পারছিল না সে। ধরার পর তার পকেট থেকে ৬পিছ ইয়রা বড়িও পাওয়া যায়।

উজ্জলের তাড়া খাওয়া দেখে নাজমুল কিছুক্ষণ একটি ঘুপচিতে লুকিয়েছিল। পরে বাড়িতে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। উজ্জলের দেয়া তথ্য অনুযায়ী ভোরে নাজমুলকে ধরে এনে বাঁধা হয়।

দুই চোর ধরার খবর পেয়ে একনজর তাদের দেখার জন্য এলাকার শত শত লোক হাজী ইদ্রিস ভূঞার বাড়িতে এসে ভিড় জমান।

করিমগঞ্জ থানার ওসি মো. মমিনুল ইসলাম জানান, চোর ধরার খবর পেয়ে সকালেই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। ধৃত দুজনই ইয়াবা আসক্ত চোর। এ ব্যাপারে চোরদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর