কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সারা দেশের লাইসেন্সবিহীন ফার্মেসী-ক্লিনিক বন্ধ করে দেয়া হবে: স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নান


 মো. জাকির হোসেন, হোসেনপুর | ১৪ নভেম্বর ২০২০, শনিবার, ৬:২৪ | হোসেনপুর 


‘স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতিবাজরা অনেক ক্ষমতাবান। কিন্তু তাদের এ ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়। এসব দুর্নীতিবাজরা রাজনৈতিক পরিচয় ব্যবহার করে নেতাদের সাথে ঘুরে ও ছবি তোলে নিজেদের স্বার্থ হাসিলে ব্যস্ত থেকে দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করছে। যদি তারা দেশকে ভালবাসতো, তাহলে কিছু পরিবর্তন আসতো।’

শনিবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সম্মেলন কক্ষে হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্য কর্মীদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য সচিব মো. আবদুল মান্নান এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমরা আমাদের পেশার পরিচয় দিতে চাই না, পেশাকে পুঁজি করে রাজনীতির মাধ্যমে ফায়দা ঠিকই নেই, কিন্তু পেশাদারিত্বের মর্যাদা রাখি না। চাকুরি করে নিজের গায়ের পোশাকের পরিচয় দিতে লজ্জা পাই।

নার্সরা তাদের পেশার পরিচয় দিতে লজ্জা পায়। অথচ পৃথিবীর যত মহামানব আছেন, তাঁদের মৃত্যু হয়েছে নার্সদের কোলে। এর চেয়ে মহৎ পেশা আর কী হতে পারে।

এসময় তিনি স্বাস্থ্যখাতের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির চিত্র তুলে ধরে বলেন, সারা দেশে লাইসেন্সবিহীন ফার্মেসী ও ক্লিনিক যেগুলো রয়েছে, সেগুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, একটি এমআরআই মেশিনের দাম ৭২ কোটি টাকা, একটি সিটিস্ক্যান মেশিনের দাম ১৮ কোটি  টাকা যা সরকারি হাসপাতালে কিছু দিন ব্যবহার করার পরই নষ্ট দেখিয়ে বিক্রি করে দেওয়া হয়। অথচ এগুলোই আবার  বেসরকারি হাসপাতালগুলো নামমাত্র দামে কিনে নিয়ে যুগের পর যুগ চালিয়ে যাচ্ছেন।

আমি জানি যারা অবৈধভাবে কামাই রোজগার করেন, তারা অনেক ক্ষমতাবান কিন্তু তাদের এ ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়।

স্বাস্থ্য খাতে সরকার বেতন দিচ্ছে ১২৩ পার্সেন্ট। আমাদের দেশের সরকারি ড্রাইভাররাও কামলা রাখেন। কেননা তাদের আরো কয়েকটি বাড়ি রয়েছে বরং তার নিজের জন্য আরো ৩/৪ জন করে ড্রাইভার রাখেন।

তিনি চিকিৎকদের উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনাদের সাদা এপ্রন মর্যাদার প্রতীক। উন্নত দেশের চিকিৎসক ভুল চিকিৎসা করলে রোগীর কাছে ক্ষমা চান। এতে রোগী অন্তত মৃত্যুর আগ পর্যন্ত চিকিৎসকের কথায় শান্তি পান। গ্রামের সাধারণ মানুষজন কোন অন্যায় করেন না। তাদের প্রতি কোন অবিচার করবেন না।

তিনি আরো বলেন, আমি কিশোরগঞ্জ জেলার সন্তান, কাজেই প্রথমে আমার নিজ জেলাকে দুর্নীতিমুক্ত রাখতে চাই।

মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন হোসেনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নাছিরুজ্জামান।

এতে অন্যদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান, হোসেনপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এএসএম জাহিদুর রহমান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ওয়াহিদুজ্জামান, হোসেনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মতবিনিময় সভার আগে স্বাস্থ্য সচিব মো. আবদুল মান্নান হোসেনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বিভিন্ন ওয়ার্ড পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি হাসপাতালের রোগীদের সাথে কথা বলে তাদের চিকিৎসা সেবার ব্যাপারে খোঁজ নেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর