কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


দুরন্ত শিশুটির জীবন প্রদীপ নিভিয়ে দিল ঘাতক অটোরিকশা


 বিশেষ প্রতিনিধি | ১৭ নভেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার, ১০:৪৬ | নিকলী  


ছোট্ট শিশু মোস্তাকিম। বয়স ১০-১১। ছিল লেখাপড়ায় মনোযোগী, খেলাধুলায়ও দুর্বার। ফুটবল খেলা ছিল তার প্রথম পছন্দের। খেলতো নতুন খেলা সেপাকটাকরো। করতো নিয়মিত অনুশীলন। জুনিয়র হয়েও বড়দের দলে তাই অনায়াসে জায়গা করে নিতো সে।

কিন্তু বিধি বাম! কুঁড়ি থেকে বিকশিত হওয়ার আগেই আকস্মিক এক ঝড়ে চিরদিনের জন্য থেমে গেছে সে। দুরন্ত এই শিশুটির জীবন প্রদীপ নিভিয়ে দিয়েছে ঘাতক এক অটোরিকশা।

মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) বিকালে কিশোরগঞ্জের নিকলী-সরিষাপুর রাস্তায় ঘটে মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনাটি। মাতাল অবস্থায় অটোরিকশা চালাতে গিয়ে চালক চাপা দেয় বাই-সাইকেলসহ মোস্তাকিমকে। এতে বাই-সাইকেল থেকে ছিটকে রাস্তায় পড়ে মোস্তাকিম।

কচি দেহ সামলাতে পারেনি সেই আঘাত। লুটিয়ে পড়ে রাস্তাতেই। দ্রুত উদ্ধার করে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মোস্তাকিমকে মৃত ঘোষণা করেন।

মোস্তাকিম নিকলী উপজেলার জারইতলা ইউনিয়নের আঠারবাড়ীয়া গ্রামের সাইদুর রহমানের ছেলে। সে আঠারবাড়ীয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র ছিল।

স্থানীয় সূত্র জানায়, মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) বিকালে মোস্তাকিম বাই-সাইকেল নিয়ে রাস্তায় ঘুরতে বের হয়। রাস্তা দিয়ে বাই-সাইকেল চালানোর সময় আঠারবাড়ীয়া মোড় থেকে জারইতলা যাওয়ার পথে বেপরোয়া গতির একটি অটোরিকশা মোস্তাকিমকে চাপা দেয়।

এতে বুকে আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে ঘটনাস্থলেই লুটিয়ে পড়ে সে। দ্রুত স্থানীয়রা উদ্ধার করে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু ততক্ষণে মোস্তাকিমের প্রাণপাখিটা উড়ে গেছে দূরে, বহুদূরে- যেখান থেকে চাইলেই আর ফিরে আসা যায় না।

দুরন্ত মোস্তাকিমের এমন মৃত্যুতে শোক নামে পুরো এলাকায়। পরিবার আর স্বজনদের কান্না আর আহাজারিতে ভারি হয়ে ওঠে এলাকার পরিবেশ। মোস্তাকিমের এমন চলে যাওয়া কাঁদায় সবাইকে।

রাত ৯টায় মোস্তাকিমের প্রিয় স্কুল মাঠেই (আঠারবাড়ীয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে) তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে এলাকার সামাজিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর