কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


'নিরপেক্ষতার' গায়ে হলুদ


 রফিকুল ইসলাম | ২৬ নভেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৪:৫০ | মত-দ্বিমত 



কবি আবু হেনা মোস্তফা কামাল এর মতে, 'হয় বাঘ, কিংবা বাঘ নয়, সৌখিন বাঘ বলে কিছু নেই।' সাংবাদিকতা মানে যা সত্য, যা কঠিন, যা মানুষের জানা দরকার তা তুলে ধরা- যে কোনো মূল্যে। সাংবাদিকতা কখনই আর অন্য দশটি পেশার মতো নয়। এর দায়িত্ব ও চরিত্র খুবই প্রকাশ্য, স্পষ্ট। নিষ্ঠা মরা সাপ পেটানো নয়।

নিজের পত্রিকায় ছাড়াও ঢাকার মূলধারার কয়েকটি প্রভাবশালী প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকায় লেখি। যদিও এ পর্যন্ত কোনো আর্টিকেল বা নিবন্ধই অপ্রকাশিত থাকেনি, তবু বর্তমান বাস্তবতায় মত প্রকাশের স্বাধীনতার বিষয়ে একটি অনুগল্পের অবতারণা না করলেই নয়।

আইনের তাড়া খেয়ে এক ব্যাঙের পালিয়ে বেড়ানো দেখে দ্বিগুণ বেগে ছুটতে শুরু করল এক উট। অকারণে উটের ছুটা দেখে আশেপাশের লোকজন জিজ্ঞেস করল, 'কি ভাই উট! আইন তাড়াচ্ছে ব্যাঙ, তুমি বেহুদা দৌড়াচ্ছ ক্যান?'

প্রত্ত্যুতরে উট বলল, ক্যান নয়! আইন হচ্ছে পরিচ্ছন্ন লিখিত অন্ধ এক ঝুট। যদি ধরে ফেলে প্রমাণ করতে বছর কেটে যাবে 'ব্যাঙ ছিলাম, না উট!'

সমাজে যখন দ্রুত পরিবর্তন ঘটে তখন সমাজের সবক্ষেত্রে অসঙ্গতি পরিলক্ষিত হয়। সংস্কৃতির বস্তুগত উপাদানসমূহ যত স্বাচ্ছন্দ্যে ও দ্রুত পরিবর্তন হয়, অবস্থাগত উপাদানসমূহ তত সহজ ও দ্রুত হয় না। ফলে বস্তুগত উপাদানসমূহের সাথে অ-বস্তুগত উপাদানসমূহের পরিবর্তনজনিত অসঙ্গতি দেখা দেয়।

রাষ্ট্র্র ও সরকারসহ সামাজিক নিয়ন্ত্রণের বাহনগুলোর অসঙ্গতির চিত্র তুলে ধরার ক্ষেত্রে কতিপয় গণমাধ্যমের পক্ষে নিরপেক্ষতার রূপ দিতে বলা মানে অতিভক্তিতে নিরপেক্ষতার গায়ে হলুদ মাখা বৈ কিছু নয়। সরকারের অতি গুণবিচারী এসব গণমাধ্যম পটপরিবর্তনের পটভূমিতে নিরপেক্ষতার ঢালপালা ছেটে 'পক্ষ' হুঙ্কারে চেনা বামনের অচেনা রূপ পরিগ্রহ সময়ের অপেক্ষা কেবল।

লেখালেখি নিয়েও রয়েছে বিড়ম্বনা। বর্তমানকে চিনতে প্রসঙ্গত এক দশক আগে আমার পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়া ছাড়াও গুরুত্ববিচারে আরও কয়েকটি শীর্ষ পত্রিকায় একটি আর্টিকেল দেয়া হয়। কিন্তু ইঁনারা তা প্রকাশে অপারগতা প্রকাশ করেন। ক'দিন বাদে বহুল আলোচিত বিচিন্তা'র খ্যাতিমান সম্পাদক মিনার মাহমুদ (বিতর্কিত বিখ্যাত লেখিকা তসলিসা নাসরিনের সাবেক স্বামী) এক ম্যাসেজে আমাকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, আপনার 'রাজনীতিতে কান্না সংস্কৃতি: নতুন বছরের নতুন অতিথি' শীর্ষক আর্টিকেলটি দৈনিক জনকণ্ঠের অনলাইনে উপসম্পাদকীয় বিভাগে পড়েছি। বুঝেনইতো! দীর্ঘদিন আমেরিকায় অপ্রত্যাশিত জীবন কাটিয়ে দেশে ফিরে পত্রিকাটি ফের বের করেছি মাত্র। হ্যাঁ ভাই, আমার পত্রিকায় লিখবেন অবশ্যই।'

বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর ঢাকার সংবাদপত্রে নতুন বৈচিত্র্য আসে দু'পৃষ্ঠাব্যাপী উপসম্পাদকীয় প্রকাশের ক্ষেত্রে। এই দিকটি আগে এ দেশের পত্রিকায় যে সম্পূর্ণ অনুপস্থিত ছিল তা নয়, তবে এর ব্যাপকতা ছিল সীমাবদ্ধ। বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর উপসম্পাদকীয় লেখার পরিধি বিস্তৃত হয়। উপসম্পাদকীয়ের বিষয় বৈচিত্র্য ও মতবাদের ভিন্নতার কারণে বিভিন্ন পাঠক এই শ্রেণির রচনার প্রতি আকৃষ্ট হন। পত্রিকার সম্পাদকরাও বিভিন্ন আদর্শবাদে বা রাজনৈতিক মতে বিশ্বাসী লেখকদের একত্রে মত প্রকাশের সুযোগ দিতেন। পত্রিকার সম্পাদক ও লেখকদের মধ্যে মত প্রকাশগত স্বাধীনতার দিকটি স্বীকৃতিলাভ করে।

নিবন্ধে বা প্রবন্ধে কোনকিছু প্রকাশ করার একজন লেখকের স্বাধীনতা নেই, এই মত গ্রহণযোগ্য নয়। প্রবন্ধের কোনো বক্তব্য ব্যক্তিবিশেষের অপছন্দ হলে তিনি তার প্রতিবাদ করতে পারেন- এটাই তাঁর যেমন মত প্রকাশের স্বাধীনতা, ঠিক একইভাবে একজন লেখকও নিজের মত স্বাধীনভাবে প্রকাশে সক্ষম।

বাকস্বাধীনতা স্বাধীন দেশের মানুষের অর্জিত অধিকার। একজন মানুষের স্বাধীনভাবে মত প্রকাশের যে স্বাধীনতা আছে, তা হরণ করা বা তার ওপর আঘাত করার অর্থ হলো ব্যক্তি স্বাধীনতার পরিধি সঙ্কুচিত করে দেয়া। একজনের অধিকারের ওপর আঘাত করার অর্থ অন্যকেও প্রতিঘাত সহ্য করা- যার ফলাফল হলো অনিবার্য সংঘাত। নিজের অধিকার সম্পর্কে একজন সচেতন মানুষ কখনও অন্যের অধিকারের ওপর হস্তক্ষেপ করতে পারে না। সহনশীলতা ও পারস্পরিক শ্রদ্ধা গণতন্ত্রের মৌলিক আদর্শ।

দেশে সৎ ও সাহসী সম্পাদক যে নেই তা কিন্তু নয়, তবে আকালিক। কারণ তাঁরা কোনো না কোনো শৃঙ্খলে বাধা। কখনো মালিকের পুঁজির কাছে, কখনো নিজের কিংবা মালিকের রাজনৈতিক বিশ্বাসের কাছে, কখনো সেল্ফ সেন্সরশীপে, কখনোবা নিছক আসক্ত হরপ্রসাদ শাস্ত্রীর 'তৈল' প্রবন্ধে। আর তখনই মন আলোড়িত করে একুশে গানের রচয়িতা কালজয়ী লেখক ও কলামিস্ট আবদুল গাফ্ফার চৌধুরীর অপ্রিয় সত্যবচনটি- 'আগে রাজনীতিকরা সাংবাদিকদের পথ মাড়াতেন, হালে সাংবাদিকরা পদ মাড়ায়।'

সদ্যপ্রয়াত 'গেদুচাচা' খ্যাত আজকের সূর্যোদয় পত্রিকার কালজয়ী সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা খোন্দকার মোজাম্মেল হক বলতেন, 'নিরপেক্ষ' হলুদের প্রতিশব্দ। সত্য-মিথ্যার মাঝখানে কোনো পক্ষ থাকলে সত্য দ্বিখণ্ডিত হতে বাধ্য।

লক্ষীন্দরের ভেলার মতো উঁনার পত্রিকার সম্পাদকীয় নীতি-গতি স্রোতের বিপরীতে। 'লেখালেখির জন্য প্রধান সম্পাদক ব্যতীত কাউকে দায়ী করা যাবে না'- সম্পাদকীয় পৃষ্ঠায় উৎকীর্ণ এ লেখা সম্পাদকীয় নীতি ও তাঁর দুর্দান্ত তেজস্বী সাংবাদিকতারই সাক্ষী, যা আমাদের মধ্যেও সঞ্চারিত হয়েছিল। পত্রিকার স্লোগান, 'ভালো হোক মন্দ হোক আমরা সত্যকথা লিখবো' অঙ্গীকারে উঁনি 'Facts are secret commands are free, news is based fiction isn't news' বলে একটা বিশ্বাসে ছেড়ে দিতেন সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক-কলামিস্টদের।

লেখালেখিতে কখনই পাঠকের তালুতে বসতে চাওয়া অনুচিত। বসতে হবে আস্থার জায়গাটিতে। বেশ কয়েকজন সম্পাদকের অধীনে সাংবাদিকতা করেছি। কিন্তু সততায়, সাহসে কি নিষ্ঠায় 'গেদুচাচা'র সমকক্ষ জুটেনি। 'গেদুচাচার খোলাচিঠি' কলামটি যখন চালু করেন, তখন জেনারেল এরশাদের স্বৈরাচারী শাসনামল। সে সময় বিশেষ করে বিবিসির সাংবাদিক আতাউস সামাদ, ভয়েস অব আমেরিকার সাংবাদিক গিয়াস কামাল চৌধুরী, সাপ্তাহিক যায়যায়দিনের সম্পাদক শফিক রেহমান, সাপ্তাহিক বিচিন্তার সম্পাদক মিনার মাহমুদ ও প্রথিতযশা সাংবাদিক বর্তমানে মানবজমিন পত্রিকার প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরীরা যখন নানানভাবে ভীষণ হয়রানি ও জেল-জুলুমের শিকার শুধু নয়, অনেকের পত্রিকা বন্ধ করে দিয়ে পাঠানো হয়েছিল নির্বাসনেও।

লেখার ক্ষেত্রে নিরপেক্ষতার তাড়া খেলে মিস করি বিরল মহৎপ্রাণ যুগন্ধর গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব কুরআন শরীফসহ তিনটি আসমানি কিতাবের ওপর পাণ্ডিত্যের অধিকারী 'গেদুচাচা'কে। অমর্ত্যলোকে তোমার দিদার নসিব করাইও মা'বুদ।

# রফিকুল ইসলাম: জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক ও কলামিস্ট, সহযোগী সম্পাদক, আজকের সূর্যোদয়, ঢাকা। ২৬/১১/২০২০।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর