কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় আমনে কৃষকের হাসি


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ৫ ডিসেম্বর ২০২০, শনিবার, ৬:৩৮ | কৃষি 



কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলায় এ বছর আমন ধানের ভালো ফলন হয়েছে। রোগবালাই ও পোকামাকড়ের আক্রমণ কম হওয়ায় এবং শ্রমিক সংকট না থাকায় কৃষকেরা নির্বিঘ্নে তাদের উৎপাদিত ধান ঘরে তুলতে পেরেছেন।

ধানের বর্তমান বাজার দরও ভালো। খড়ও বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। এতে কৃষকরা বেশ খুশি।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরে এ উপজেলায় আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ১০হাজার ৮১০হেক্টর জমি। এর মধ্যে আবাদ হয়েছে ১০হাজার ৯৬৫হেক্টর জমি। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি।

রোগবালাই ও পোকামাড়কের আক্রমণ কম হওয়ায় এবার আমনের ভালো ফলন হয়েছে। বিঘা প্রতি ২০থেকে ২২মণ ধান পাওয়া গেছে।

বর্তমান বাজার দরও বেশ ভাল রয়েছে। কৃষকেরা তাদের উৎপাদিত ধানের ন্যায্য মূল্য পাবেন। এতে করে কৃষকদের মধ্যে ধান চাষে আগ্রহ বাড়ছে।

এছাড়া বোরো মৌসুমে হাইব্রীড ধান চাষের জন্য উপজেলার চার হাজার কৃষককে বিনামূল্যে বীজধান ও ৩৫০ কৃষককে বিনামূল্যে সার ও বীজ সহায়তা করা হয়েছে। এতে করে এ উপজেলায় বোরো মৌসুমেও ব্যাপক আবাদ হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বাজার ঘুরে জানা গেছে, বর্তমান বাজারে আমন ধান (মোটা) বিক্রি হচ্ছে মণ প্রতি এক হাজার ৫০টাকা থেকে ১১শ’ টাকা দরে আর চিকন ধান বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ১১শ’ থেকে ১২শ’ টাকা দরে।

অপরদিকে বিঘা প্রতি খড় বিক্রি হচ্ছে চার হাজার ৫০০ টাকা থেকে পাঁচ হাজার টাকা দরে।

উপজেলার আাদিত্যপাশা গ্রামের রুসমত আলী জানান, এ বছর তিনি আমন ব্রি ধান-৮০ জাতের আবাদ করেছেন। এতে তিনি বিঘা প্রতি ফলন পেয়েছেন ২০মণ। ধান ও খড়ের বাজার ভালো থাকায় তিনি লাভবান হওয়ার আশা করছেন।

আলাউদ্দিন নামের একজন ধান চাষী বলেন, আমন মৌসুমে তিনি ব্রি ধান-৯৩ জাতের আবাদ করে বেশ লাভবান হয়েছেন। এতে করে আগামিতে ধান চাষে তার আগ্রহ বেড়েছেও বলে জানিয়েছেন।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. হামিমুল হক সোহাগ বলেন, এবার আমন মৌসুমে নতুন নতুন জাত ব্রি ধান-৭৫, ব্রি ধান ৮৫, ব্রি ধান-৯৩, ব্রি ধান-৯৪ ও সুগন্ধি ব্রি ধান-৯০ চাষ করে ফলন ভাল পাওয়ায় কৃষকরা বেশ লাভবান হয়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. সাইফুল হাসান আলামিন বলেন, ধান চাষে কৃষকদের পর্যাপ্ত পরামর্শ ও সহযোগিতা করা হয়েছে। রোগ বালাই ও পোকামাকড়ের আক্রমণ কম হওয়ায় এবছর আমনের বেশ ফলন হয়েছে। বাজার দরও ভালো থাকায় কৃষকেরা বেশ লাভবান হবেন। এতে করে ধান চাষে তাদের আগ্রহ বাড়ছে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর