কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বিয়ের পিঁড়িতে বসা হলো না শওকতের


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ৮ ডিসেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার, ১১:৫৩ | সম্পাদকের বাছাই  


সাত দিন পর বিয়ে হওয়ার কথা ছিল তার। সেজন্য ছুটিও মঞ্জুর হয়েছিল। কথা ছিল বাড়িতে যাবেন। বিয়ের পিঁড়িতে বসবেন। কিন্তু কপালে তা আর হয়ে উঠলো না। চিরতরে না ফেরার দেশে পাড়ি জমালেন তিনি।

একটি দুর্ঘটনা সব স্বপ্ন কেড়ে নিল তার। বাবা-মায়ের একমাত্র পুত্রসন্তান এ যুবকের ভাগ্যে এমনটাই ঘটলো।

মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) রাত ৭টার দিকে কিশোরগঞ্জ-ঢাকা সড়কের পাকুন্দিয়া উপজেলার চণ্ডিপাশা কুইরাবন এলাকায় এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান ওই যুবক।

হতভাগ্য এ যুবকের নাম শওকত আলী (২৪)। তিনি জামালপুর জেলার মেলান্দহ উপজেলার মধ্যেরচর গ্রামের জয়নাল আবেদীনের ছেলে।

তিনি পাকুন্দিয়া পল্লী বিদ্যুতের আওতাধীন কোদালিয়া উপকেন্দ্রের লাইনম্যান হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

পাকুন্দিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শ্যামল মিয়া জানান, শওকত আলী নামের পল্লী বিদ্যুতের ওই লাইনম্যান মোটরসাইকেল যোগে কিশোরগঞ্জের উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন।

রাত ৭টার দিকে পাকুন্দিয়া-কিশোরগঞ্জ সড়কের চণ্ডিপাশা কুইরাবন এলাকায় পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে ছেড়ে আসা একটি টমটমের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এতে গুরুতর আহন হন মোটরসাইকেল চালক ওই লাইনম্যান। মুমূর্ষ অবস্থায় স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে ২৫০ শয্যার কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

৭ দিন পর ওই লাইনম্যানের বিয়ের দিন ধার্য্য ছিল বলে জানিয়েছেন তার সহকর্মীরা। সেজন্য ছুটিও মঞ্জুর হয়েছিল।

নিহত ওই লাইনম্যানের সহকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এমনটাই জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তা শ্যামল মিয়া।

এদিকে শওকত আলীর মর্মান্তিক মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে তার সহকর্মীদের মাঝে।

পাকুন্দিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সারোয়ার জাহান বলেন, নিহতের মরদেহ কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে রয়েছে। ঘাতক টমটমটিকে জব্দ করা হয়েছে। এর চালক পলাতক রয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর