কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে কর্মরত/অবসরপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা পুলিশ সদস্যদের সংবর্ধনা


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৬ ডিসেম্বর ২০২০, বুধবার, ৪:২১ | সম্পাদকের বাছাই  


কিশোরগঞ্জে কর্মরত/অবসরপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা পুলিশ সদস্যদের সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) দুপুরে পুলিশ লাইন্সে জেলা পুলিশের আয়োজনে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার)।

অনুষ্ঠানে সিআইডির সাবেক অতিরিক্ত ডিআইজি আব্দুল কাহার আকন্দসহ জেলার বাসিন্দা মোট ৩৫ জন কর্মরত/অবসরপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা পুলিশ সদস্যকে সংবর্ধনা দেয়া হয়।

এ সময় জেলা পরিষদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট মো. জিল্লুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট মো. কামরুল আহসান শাহজাহান, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট এম এ আফজল, কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মিজানুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) তাহিয়াত আহমেদ চৌধুরী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) অনির্বান চৌধুরী, সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইব্রাহীম হোসেন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মো. আসাদ উল্লাহ, সাবেক ডেপুটি কমান্ডার মো. আবদুল মান্নান, সাবেক ডেপুটি কমান্ডার বাসির উদ্দিন ফারুকী, কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক পিপিএম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সংবর্ধিত অতিথির বক্তৃতায় সিআইডির সাবেক অতিরিক্ত ডিআইজি আব্দুল কাহার আকন্দ মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের স্মৃতিচারণ করেন এবং সবাইকে কাজে-কর্মে ও চেতনায় মুক্তিযুদ্ধকে প্রকাশের তাগিদ দেন।

সভাপতির বক্তৃতায় পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে পুলিশের পক্ষ থেকে প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলা হয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব রক্ষায় পুলিশ বাহিনী সব সময়ে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা পালন করে আসছে।

বাংলাদেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য যতবার চেষ্টা করা হয়েছে, পুলিশ তা জীবনবাজি রেখে প্রতিহত করেছে।

করোনাকালেও বাংলাদেশ পুলিশ মানুষের পাশে থেকে বৈশ্বিক এই মহামারী মোকাবিলায় অত্যন্ত প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করে চলেছে।

পুলিশ সুপার আরো বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। তাদের বীরোচিত অবদানের জন্যেই আমরা পেয়েছি লাল-সবুজের গর্বিত পতাকা। তাই আমরা রাষ্ট্রের যত বড় কর্মকর্তাই হই না কেন, তাদের ত্যাগের কাছে এটা কিছুই না। মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানের মাধ্যমেই আমাদের মধ্যে দেশপ্রেম জাগ্রত করতে হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর