কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


এক কিংবদন্তীর চির বিদায় এবং টুকরো স্মৃতি


 রাজীব সরকার পলাশ | ৩১ ডিসেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ২:২১ | মত-দ্বিমত 


বাংলা-১৪২৫। নববর্ষের প্রথম দিন। কটিয়াদী  উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে প্রতি বছর আনন্দ র্যা লীর আয়োজন করা হয়। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী আমাদের পরিবার পরিকল্পনা অফিসের ১০ জন পরিদর্শক একসাথে এক রঙের পাঞ্জাবী, পায়জামা পড়ে র্যা লীতে অংশগ্রহণ করবো।

সকাল ৮টা। সকল প্রস্তুতি শেষে র্যা লীর অপেক্ষায় কটিয়াদী সরকারি কলেজ মাঠে। এর মধ্যে অনেক লোকসমাগম হয়ে গেল। তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইসরাত জাহান কেয়া স্যারও চলে এলেন।

একই কালার হওয়ায় অনেকেই এলেন আমাদের সাথে ছবি তুলতে। কয়েকজন কর্মকর্তাও এলেন।

তৎকালীন উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহাব আইন উদ্দিন একটু আড়ালে দাঁড়িয়ে আছেন। ওনার কাছে গিয়ে বললাম, 'কাকা, আসেন সবাই একটা ছবি তুলি।'

মজা করে বললেন, 'আমার তোমডার কালারের পাঞ্জাবী নাই, আমারে কি আর তোমডার লগে মিলবো?'

বলে হাসতে হাসতে আমাদের সাথে দাঁড়ালেন।

এর পরের বছর বাংলা-১৪২৬ সালের নববর্ষের ৪ দিন আগ আব্দুল ওয়াহাব আইন উদ্দিন স্যারের বাসভবনে একটি পাঞ্জাবীর মাপ আনতে একতা টেইলার্সের খোকন ভাইকে পাঠানো হয়। যথারীতি তৈরি শেষে ওনার বাসায় নিয়ে যাই। বেশ আনন্দিত হন তিনি। পরের দিন ওই পাঞ্জাবী পড়ে একসাথে ফটোসেশন করি।

এরপর থেকে আমাদের আমন্ত্রণে কোন অনুষ্ঠানে গেলেই তিনি ওই পাঞ্জাবীটি পড়ে যেতেন।

গত ১৮-১৯ দিনের মতো হবে। ওনার বর্তমান বাসভবনের সামনের কনফেকশনারীতে বসে কফি খাচ্ছিলাম আমি আর আমার শ্যালক 'সৈকত'। দরজা খুলতেই হঠাৎ চোখে চোখ পড়ে গেল।

পরে তাঁর রুমে ঢুকতেই বসতে বললেন। আমাদের রসগোল্লা দিতে বললেন। পরিচয় করালাম শ্যালককে।

বলতেই তাকে জিজ্ঞেস করলেন, বাড়ি কি! ইটনা? এলংজুড়ী না?

আমি হতবাক, ৫ বছর পরেও ওনি আমার শ্বশুরবাড়ীর ঠিকানা পর্যন্ত মনে রেখেছেন? সেখানেই ছিল আমার সাথে সবশেষ আলাপন।

তৃণমূলের পুঙ্খানুপুঙ্খ তথ্য ছিল ওনার নখদর্পণে। উপজেলার কোন পরিবারের নূন্যতম ১ জন লোককে হলেও নাম ধরেই চিনতেন। শুধু রাজনৈতিক ব্যক্তি নন, এর বাইরেও ওনি কাউকেই শুদ্ধ পরামর্শ ছাড়া কোন কুপরামর্শ দিতে শুনিনি।

কারও বিপদে, কষ্টে ব্যথিত হয়েছেন। ভালোবাসতেন ধনী, গরীব, কৃষক, শ্রমিক, জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সর্বক্ষণ রাজনীতির চর্চা করে গেছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানে চেতনায় বিভোর ছিলেন সর্বক্ষণ।

ছোট, বড় এমন কোন আমন্ত্রণ বা দাওয়াত ছিল না যা তিনি রক্ষা করেননি। ধর্ম, ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির গহীণে তাঁর বিচরণ প্রতিটি বক্তব্যে ছিল লক্ষ্যণীয়। একবার শোনাতেই মনে রাখার ক্ষমতাটা ছিল প্রখর।

তাঁর শাণিত বজ্রকন্ঠে বক্তব্য শুনতে শ্রোতা, দর্শক সবসময় অপেক্ষায় থেকেছেন। মগজে রেখেছিলেন মানব, মহামানব, কবি, মনীষী থেকে শুরু করে পরিচিত সাধারণ মানুষের জীবন বৃত্তান্ত। মূল্যায়ণ করেছেন মেধাবীদের। শ্রদ্ধাভাজনদের শুধু শ্রদ্ধা, নয় কুর্নিশ পর্যন্ত করতে দেখেছি।

সংহিসতাকে অপছন্দ করেছেন সবসময়ই। তাই হয়ত রাজনৈতিক দলীয় বিরোধ কখনো প্রকাশ পায়নি। ভিন্ন রাজনৈতিক মতাদর্শ ব্যক্তিদের মূল্যায়ন এবং সম্মান ছিল তার সহজাত বৈশিষ্ট্য।

উপজেলা চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে বরাদ্ধকৃত পাজেরো গাড়িটি রেখেও ওনাকে মোটরসাইকেলে চড়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যেতে দেখেছি। অনেক সুযোগ, সুবিধা পেয়েও তিনি তা নেননি।

ওনার মত এমন ধৈর্য্য, সহনশীল ব্যক্তি কমই দেখেছে কটিয়াদী উপজেলার মানুষ। কিছু মানুষ যারা অগোচরে অনেক কিছুই বললেও, পরক্ষণেই ওনার সাথে বসে আড্ডা দিতেন। কারো সাথে উচ্চস্বরে কথা বলতে শুনিনি কখনো।

তৃণমূল থেকে উপজেলার অধিকাংশ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের কাছে দুঃখ, কষ্ট বলার শেষ ঠিকানা হিসেবে একমাত্র তিনিই ছিলেন।

বিভিন্ন সময় রাজনীতির ক্রান্তিকালে রাজপথে সোচ্চার থেকেছেন। রেখেছেন বলিষ্ট কন্ঠের তেজীয় ভাষণ।

বর্তমান মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদেরও প্রিয়জন ছিলেন এই রাজনীতিক। মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শোকবার্তা জানিয়েছেন ওনার মৃত্যুতে।

রাজনীতিকে একমাত্র সম্বল করে অবিবাহিত থেকে নিজ গৃহে পরবাসের মতোই থেকেছেন শেষ পর্যন্ত। অনেকেই মনে করতেন, বিয়ে না করার কারণে ওনার খুব কষ্টেই যাবে জীবনের শেষ সময়টুকু। অথচ তারও প্রয়োজন পড়েনি।

সহিষ্ণু আচরণ তাঁর জনপ্রিয়তাকে বাড়িয়ে দিয়েছিল। ওনার এরকম বৈশিষ্ট্যের মানুষ কটিয়াদীর রাজনীতির অঙ্গনে অদ্বিতীয় উদাহরণ।

এ উপজেলার মানুষ এই রাজনৈতিক কিংবদন্তীকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ রাখবে আজন্মকাল।

# রাজীব সরকার পলাশ, সংস্কৃতি কর্মী, কটিয়াদী, কিশোরগঞ্জ।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর