কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে কারা কোয়ার্টারে প্রেমিকা বধূকে নির্যাতনে হত্যার অভিযোগে কারাগারে কারারক্ষী


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৩১ ডিসেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৭:২৭ | বিশেষ সংবাদ 


মুঠোফোনে পরিচয়, পরিচয় থেকে প্রেম। যৌতুকলোভী কারারক্ষী প্রেমিকের ছলনায় পড়ে সংসারও পেতেছিলেন স্নাতক পড়ুয়া রুমা (২০)। কিন্তু স্বামী সংসারই যে কাল হয়ে দাঁড়াবে, জানা ছিল না হতভাগ্য এই তরুণীর। বিয়ের মাত্র দেড় বছরের মাথায় যৌতুকের বলি হতে হয়েছে তাকে।

কারারক্ষী স্বামী মো. খায়রুলের (২৫) উপর্যুপরি নির্যাতনে স্বামী-সংসার বুঝার আগেই পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়েছে মিষ্টি মেয়েটি। গত মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) রাতে মুমূর্ষু রুমাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পর এমন অভিযোগ করে মামলা দায়ের করেছেন মেয়েটির মা।

নিহত রুমা আক্তার কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার পূর্ব মণ্ডলভোগ গ্রামের মো. আব্দুল মান্নানের মেয়ে।

অন্যদিকে কারারক্ষী মো. খায়রুল টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলার বাইপাইল ছোট্ট গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে ও কিশোরগঞ্জ জেলা কারাগারের কারারক্ষী (নং- ৫১৮৯)।

বুধবার (৩০ ডিসেম্বর) রাতে স্ত্রী হত্যার অভিযোগে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় দায়ের করা মামলায় কারারক্ষী মো. খায়রুলকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (৩১ ডিসেম্বর) আদালতে পাঠানোর পর কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শহীদুল ইসলাম তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। পরে সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় তাকে কিশোরগঞ্জ জেলা কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

পরিবারের অভিযোগ, বিয়ের পর কারারক্ষী স্বামী খায়রুলের সাথে কিশোরগঞ্জ জেলা কারাগারের কোয়ার্টারে ওঠেন রুমা। কিন্তু স্বামীসুখ যেন কপালে ছিলো না তার।

বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের জন্য রুমাকে নানাভাবে নির্যাতন শুরু করেন খায়রুল। এক পর্যায়ে মেয়ের সুখের কথা ভেবে পরিবার খায়রুলকে একটি মোটর সাইকেল কিনে দেয়।

এরপর কিছুদিন রুমার উপর অত্যাচার-নির্যাতন বন্ধ থাকলেও সম্প্রতি তিন লাখ টাকা দাবি করেন খায়রুল। কিন্তু এই টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানানোয় রুমার উপর আবারো নেমে আসে নির্যাতনের খড়গ।

এ পরিস্থিতিতে গত ২২ ডিসেম্বর রাতে কারারক্ষী খায়রুল চড়াও হন স্ত্রী রুমার উপর। মারধর করে সংজ্ঞাহীন করেন রুমাকে।

খবর পেয়ে রাতেই রুমার মা ছিনু বেগম কিশোরগঞ্জে এসে তাকে উদ্ধার করে ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে প্রথমে কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সেখানেও অবস্থার অবনতি হলে মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) রাতে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। ঢাকায় নেওয়ার পথে রুমা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

পরে বুধবার (৩০ ডিসেম্বর) ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে লাশের ময়নাতদন্ত করা হয়।

রাতে রুমার মা ছিনু বেগম বাদী হয়ে কারারক্ষী মো. খায়রুলকে আসামি করে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় কটিয়াদী থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার পরিদর্শক (কমিউনিটি পুলিশিং এন্ড ইন্টিলিজেন্স) জয়নাল আবেদীন জানান, গ্রেপ্তারের পর আসামি মো. খায়রুলকে বৃহস্পতিবার (৩১ ডিসেম্বর) আদালতে পাঠানো হয়। পরবর্তিতে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে রিমান্ডের আবেদন করা হবে।

কিশোরগঞ্জ জেলা কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার বজলুর রশিদ জানান, কারারক্ষী মো. খায়রুল অসুস্থতার কারণে চিকিৎসাজনিত ছুটিতে ছিল। স্ত্রী হত্যার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ও সে গ্রেপ্তার হওয়ায় তার ব্যাপারে বিভাগীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর