কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


একজন আদর্শিক জননেতার প্রস্থান ও আমাদের শূন্যতা


 সিরাতুল মুস্তাকিম | ৮ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ২:৩৪ | মত-দ্বিমত 


চলে গেলেন কাটিয়াদীর রাজনৈতিক গুরু জননেতা মোঃ আব্দুল ওয়াহাব আইনউদ্দিন। উনাকে যারা চিনেন, তারা জানেন উনি রাজনৈতিক নেতা এবং মানুষ হিসেবে কেমন ছিলেন। উনি তার দলের আদর্শের প্রতি কতটুকু অবিচল এবং নিবেদিতপ্রাণ ছিলেন তা তার দলের নেতা-কর্মীরা ভালো বলতে পারবেন।

একজন নেতা হিসেবে জনগণ যা প্রত্যাশা করেন তিনি তেমনই ছিলেন। তিনি ছিলেন প্রকৃত আদর্শিক জননেতা।

আমার সৌভাগ্য হয়েছিল উনার কাছাকাছি গিয়ে উনার ব্যক্তিত্ব সম্পর্কে কিছুটা জানার। উনার এলাকার একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে আমি উনার থেকে যে ভালোবাসা পেয়েছি, ব্যক্তি আইনউদ্দিনকে আমি যেমন দেখেছি, এর কিছুটা আমি কৃতজ্ঞতার সাথে উল্লেখ করছি।

উনার সাথে আমার পরিচয় ৯০ এর দশকের মাঝামাঝি। তখন আমি তৎকলীন কটিয়াদী পাইলট বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে সদ্য ভর্তি হয়েছি।

তিনি তখন স্কুল গেটের সামনে একটা দোকানের পিছনে ছোট একটা রুমে থাকতেন। আসবাবপত্র বলতে একটা চৌকি আর একটা ছোট আলমারি ছিলো। মাঝে মাঝে স্কুলের পুকুরে উনাকে গোসল করতে দেখতাম। এত বড় নেতার সহজ-সরল জীবনযাপনে আমি অবাক হতাম।

একদিন উনার সামনে দিয়ে স্কুলে যাওয়ার সময় তিনি আমার নাম ধরে ডাকলেন। শুধু ডাক নাম না, পুরা নাম সহ। আমি অবাক হলাম ও কিছুটা লজ্জা পেয়ে উনার কাছে গেলাম।

উনি আমার পড়াশোনার বিষয়ে খোঁজ-খবর নিলেন। সেই থেকে শুরু। আমি বুঝতে পারলাম উনি শুধুমাত্র একটি রাজনৈতিক দলের নেতা নন, উনি তার চেয়ে বেশি কিছু।

মানুষকে আকর্ষণ করার ক্ষমতা তার এত বেশি ছিলো যে, আমার মত একটা কিশোর ছেলেও সেদিন তার ব্যক্তিত্বে মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিলাম।

তারপর থেকে উনার কাছে যখন যেতাম মুগ্ধ হয়ে শুনতাম উনার রাজনৈতিক অভিজ্ঞতার কথা। কঠিন মুহূর্ত কিভাবে পার করেছেন, সেসব শুনে তা থেকে অনুপ্রেরণা পেতাম। উনাকে যতই দেখতাম, ততই নতুন করে আবিস্কার করতাম, নতুন কিছু শিখতাম।

২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচনের সময় থেকে আমার বাবার সাথে উনার চলাফেরা। আমার বাবা উনার থেকে বয়সে কিছুটা বড়। সেজন্য তিনি আমার আব্বাকে ভাই ডাকতেন, তাই আমি ও আমার ভাইয়েরা উনাকে কাকা ডাকতাম। উনি আমার আম্মাকে বোন ডাকতেন।

প্রতি বছর ঈদে আমাদের পরিবারের সবার জন্য পোষাক পাঠাতেন। আমার মায়ের হাতের রান্না তিনি খুব পছন্দ করতেন। আমাদের বাসা থেকে খাবার পাঠালে উনার বাসায় উপস্থিত সবার সাথে শেয়ার করে খেতেন।

আমি যদি সামান্য কোন উপহার উনাকে দিতাম, তিনি খুবই খুশি হতেন। সেটা সবাইকে দেখাতেন। সাথে সাথে চোখের সামনে যা পেতেন আমাকে দিয়ে দিতেন।

চিকিৎসা, পড়াশোনা, চাকরি সহ যেকোনো কাজে ঢাকা আসলে তিনি বাসের ফ্রি ভি,আই,পি পাসের ব্যবস্থা করে দিতেন। আমি ঢাকা গিয়েছি, অথচ উনার সাথে দেখা করে পাস না নিয়ে যাইনি জানলে তিনি রাগ করতেন।

কটিয়াদীর যত ছাত্র তার কাছে যেতো সবার জন্য তিনি এই ব্যবস্থা করতেন। উনার বক্তব্য ছিল, বাস ভাড়ার টাকাটা বেঁচে গেলে তা দিয়ে সে ঢাকা গিয়ে অন্তত ১ দিনের খাবার খরচ চালাতে পারবে।

পড়াশোনা শেষ করার পর চাকরীর বিষয়ে উনার সাথে পরামর্শ করতে গিয়েছি। তিনি চাকরীর সুবিধার জন্য নিজ হাতে প্রশংসাপত্র লিখে দিয়েছিলেন। সরকারি চাকরীর যত ভাইভা দিয়েছি, সবগুলোর জন্য তিনি সুপারিশ করিয়েছিলেন।

বিভিন্ন সরকারি চাকরীর জন্য দল-মত, ধর্ম-বর্ণ, শত্রু-মিত্র নির্বিশেষে এলাকার যারাই উনার কাছে যেতেন, তাদের সবার জন্য পুলিশ ভেরিফিকেশন সহ উনার সাধ্য অনুযায়ী বিভিন্ন দিক থেকে তিনি সুপারিশ করেছেন।

কারো উপকার করতে তিনি কখনো কার্পণ্য করতেন না। বেকার অবস্থায় যখন খুব হতাশায় থাকতাম, তখন তিনিই আমাকে সান্ত্বনা দিতেন। ডেকে নিয়ে হাতে জোর করে হাত খরচের টাকা গুজে দিতেন। বলতেন, ভালোভাবে পড়াশোনা কর, ধৈর্য্য ধর, আল্লাহ্ একটা ব্যবস্থা করবেনই। আর আমিতো আছিই।

২০১৯ সালের শুরুতে এক শীতের রাতে আমাদের বাসায় মেহমান থাকায় ঘুমানোর জায়গা সংকুলন হচ্ছিলো না। কাকা কোন ভাবে এটা জানতে পেরে ফোনে বললেন, সবাইকে নিয়ে আমার বাসায় চলে আসো।

ভেবেছিলাম, উনার বউ-বাচ্চা নেই তাই বাসায় থাকার জায়গা খালী পড়ে আছে, এজন্য যেতে বলছেন। স্ত্রী-কন্যা নিয়ে চলে গেলাম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের জন্য বরাদ্দকৃত সরকারি বাসায়।

উনার বাসায় গিয়ে বুঝলাম আমার ধারণা ভুল। বাসা অনেক বড় হলেও ঘুমানোর জন্য ১টা বেডরুম তৈরি করা ছিল। অন্য একটা বেডরুম জনগণের দেওয়া উপহার সামগ্রীতে ভরা। সেটাতে কোন খাট ছিল না।

তিনি নিজের বেডরুম আমাদের জন্য ছেড়ে দিয়ে উপহার দিয়ে ভরা রুমের এক পাশে ফ্লোরে বিছানা পেতে নিজে শুতে গেলেন। আমি ও আমার স্ত্রী লজ্জায় পড়ে যাই।

এই পরিস্থিতি দেখে সেখানে উপস্থিত আমার এক বন্ধু আমাদেরকে তার বাসায় নিয়ে যেতে চায়। সেখানে থাকতে আমাদের কোন কষ্ট হবে না নিশ্চিত হয়ে তিনি আমাদের যেতে দেন। সেদিন বুঝেছিলাম উনাকে কেন ত্যাগী নেতা বলা হয়।

পারিবারিক কত সমস্যায় তিনি আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন তার কোন হিসেব নেই। কোন বিপদ বুঝতে পারলেই তিনি সামনে ঢাল হয়ে দাঁড়াতেন। আমরাও তাই যেকোনো পারিবারিক সমস্যা খুলে বলতাম অনায়েসে। তিনি মনোযোগ দিয়ে শুনতেন। পারলে সমাধান করতেন অথবা সুপরামর্শ দিতেন।

আত্মীয় হতে হলে রক্তের সম্পর্কের চেয়ে আত্মার সম্পর্ক বেশি জরুরী, তা আমি উনার কাছে থেকেই শিখেছি।

২০২০ সালে করোনার কারণে লকডাউন শুরু হলে আমি পরিবার নিয়ে ঢাকায় আটকা পড়ি। তখন একমাত্র আইন উদ্দিন কাকাই ফোন করে খোঁজ নিয়েছিলেন। জিজ্ঞেস করেছিলেন, কোন সমস্যা হচ্ছে কি-না, হলে জানাতে।

শুধু আমি না, আমার ধারণা আমার মত অন্য সবারই খোঁজ নিয়েছিলেন তিনি। আমাদের পরিবারের যেকোনো অনুষ্ঠান, জন্ম-মৃত্যু, বিয়েতে সবসময় উপস্থিত থাকতেন।

হঠাৎ করেই আমার বিয়ের কথা হয়েছিলো। আমি অপ্রস্তুত ছিলাম। উনার সাথে পরামর্শ করতে গেলাম। তিনি বললেন, সম্বন্ধ ভালো, বিয়ে করে ফেল। কোন দরকার হলে আমি আছি। আমি আর কোন চিন্তা না করে বিয়ে করে ফেলি। উনি যথারীতি আমার বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন।

আমার মেয়ের জন্মের পর তাকে দেখতে আসলেন। মেয়েকে কোলে নেওয়ার পর সে কান্না শুরু করে দিলো। কাকা মজা করে বললেন, আমি কালো বলে আমাকে পছন্দ করতেছে না।

উনার প্রতি অনেকের অভিযোগ ছিল যে, তিনি নরম মানুষ। শক্ত ভাবে কাউকে কিছু বলতে পারেন না। আসলে উনি চাইতেন না কাউকে দুঃখ দিতে। কেউ অপরাধ করে তার কাছে এলেও তিনি চেষ্টা করতেন তাকে শাস্তির হাত থেকে বাঁচানোর জন্য। এলাকার মানুষ, তাই কাউকে শাস্তি দেওয়ার পক্ষে তিনি ছিলেন না।

সমঝোতা আর শান্তির পক্ষে ছিলেন সবসময়। কেউ উনার সাথে বেয়াদবি করলে বা পেছনে গালাগালি করলে তিনি জানতেন, বুঝতেন কিন্তু কাউকে পাল্টা জবাব দিতেন না। ক্ষমা করে দিতেন সবাইকে।

ক্ষমতাসীন দলের বড় পদে এত বছর থাকলেও কারো কাছ থেকে কোন অনৈতিক সুবিধা নেননি। থাকার জন্য একটা ঘরও করতে পারেননি। শেষ বেলায় অনেকের অনুরোধে ঘর তৈরি শুরু করলেও শেষ করে যেতে পারেননি। জনগণের ঘরেই তিনি তার জীবনের বেশিরভাগ সময় কাটিয়ে দিয়েছিলেন।

জনসেবায় সময় দিতে দিতে নিজের প্রতি তাকানোর সময় পাননি। তাই বিয়ে করে নিজের পরিবার তৈরি করেননি। কাটিয়াদীর জনগণকেই নিজের পরিবার মনে করতেন।

নিজ এলাকা/নিজ এলাকার বাইরের অনেককেই তিনি ব্যক্তিগতভাবে চিনতেন। সবার খোঁজ খবর রাখতেন। উনার একটু সহযোগিতায় কারো যদি সামান্য উপকারও হয়, তাতে তিনি তৃপ্তি পেতেন। নেতা বা জনপ্রতিনিধি থেকে জনগণ এটাই আশা করে। এজন্যই তিনি জনগণের হৃদয়ের গভীরে প্রবেশ করতে পেরেছিলেন।

আজীবন কাটিয়াদীর মানুষকে তিনি দিয়ে গেছেন নিঃস্বার্থভাবে। কোন পদ বা ক্ষমতা উনার কাছে গুরুত্বপূর্ণ ছিলো না। জনগণের উপকার করাটাই উনার কাছে গুরুত্বপূর্ণ ছিল। তাই ক্ষমতায় থাকা বা না থাকা উভয় সময়েই তিনি সমান জনপ্রিয় ছিলেন।

আসলে উনি যা চাইতেন, তা উনি পেয়ে গিয়েছিলেন। সেটা হচ্ছে, মানুষের ভালোবাসা। জীবিত থাকতে পেয়েছেন এবং মৃত্যুর পরেও পাবেন।

২০২০ সালের কোরবানি ঈদের কয়েকদিন পর উনার সাথে দেখা করতে যাই। উনি নিজ হাতে প্লেটে করে পিঠা নিয়ে আসলেন আমার জন্য। সেখানে উপস্থিত অন্যদের বললেন, তোরা খেয়েছিস, সে আগে আসেনি, সে খাইনি, তাই তাকে দিতেসি। সেদিন আমি বুঝেছিলাম কাউকে সন্মান দিলে নিজের সন্মান কমে না, বরং বাড়ে।

জানতাম না সেটাই হবে উনার সাথে আমার শেষ দেখা। ২০২০ সালের শেষ দিকে কয়েকবার কটিয়াদী গিয়েও উনার সাথে দেখা করিনি সময়ের অভাবে। ভেবেছি পরের বার দেখা করবো। কিন্তু পরের বারের দেখাটা ঢাকায় এমন অপ্রত্যাশিতভাবে হবে আশা করিনি। আইসিইউতে শেষ বারের মত উনাকে দেখি। শ্বাস নিচ্ছিলেন বেশ জোরে জোরে। পরদিন শেষ নিঃশ্বাসটা ফেললেন।

সবার মত আমিও চিন্তা করতাম, উনার বউ- বাচ্চা নেই। তাই শেষ বয়সে সেবা-যত্ন কে করবে। আল্লাহ্-তাআলা এভাবে তার সমাধান করবেন, চিন্তা করতে পারিনি। আল্লাহর পরিকল্পনা মানুষের চিন্তা-ভাবনার বাইরে। তাই কঠিন হলেও এটা মেনে নেওয়া ছাড়া আমাদের আর কিছু করার নেই। সুমহান আল্লাহ্ উনাকে মাফ করে জান্নাতবাসী করুন।

উনার মৃত্যুতে কাটিয়াদীর রাজনৈতিক অঙ্গন যেমন নেতা হারিয়েছে, তেমনি অনেক পরিবারও তাদের অভিভাবক হারিয়েছে। এই মুহূর্তে রাজনৈতিক অঙ্গনে উনার মত ত্যাগী নেতার খুব প্রয়োজন ছিল। উনার মৃত্যু আমাদের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি। উনার শূণ্যতা কখনো পূরণ হবার নয়।

শারীরিকভাবে উনি আমাদের মাঝে নেই। তবে জনগণের হৃদয়ে তিনি অমর হয়ে থাকবেন। কাটিয়াদীর জনগণ তার অবদান আজীবন কৃতজ্ঞ চিত্তে মনে রাখবে। কীর্তিমানের মৃত্যু নেই।

# সিরাতুল মুস্তাকিম, কটিয়াদী পূর্ব পাড়া, কটিয়াদী, কিশোরগঞ্জ।

Email: mustakim.ktd@gmail.com Facebook: https://www.facebook.com/mustakim.ktd


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর