কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে করোনা টিকা নিতে স্বতঃস্ফূর্ততা, প্রতিদিনই বাড়ছে নিবন্ধন ও গ্রহণকারীর সংখ্যা


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, সোমবার, ১০:১৪ | সম্পাদকের বাছাই  


কিশোরগঞ্জে গত ৭ ফেব্রুয়ারি করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ এর টিকাদান কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়। মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের মেয়ে কিশোরগঞ্জ-১ (সদর-হোসেনপুর) আসনের সংসদ সদস্য ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি নিজে প্রথম টিকা নিয়ে জেলা পর্যায়ে টিকা কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।

এমপি লিপি’র উদ্বোধনের পর পর একে একে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের পরিচালক ডা. এহসানুল হক, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি পিপি শাহ আজিজুল হক, জেলা উইমেন চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি ফাতেমা জোহরা আক্তার, জেলা বিএমএ সাধারণ সম্পাদক ডা. আব্দুল ওয়াহাব বাদল সহ জেলায় সর্বমোট ৫৮৭ জন টিকা গ্রহণ করেন।

এরপর গত ৮দিনে জেলায় মোট ১১ হাজার ৪৮৫ জন টিকা নিয়েছেন। এই সময়ে টিকা নেয়ার জন্য নিবন্ধন করেছেন ১৯ হাজার ৫৫২ জন।

বর্তমানে প্রতিদিন জেলায় গড়ে দেড় হাজার মানুষ টিকা নিচ্ছেন আর নিবন্ধন করছেন দুই হাজারেরও বেশি।

সর্বশেষ রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) জেলায় মোট চার হাজার ৩৬৭ জন নিবন্ধন এবং এক হাজার ৩৬৭ জন টিকা গ্রহণ করেছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান এসব তথ্য নিশ্চিত করে জানান, গত ২৯ জানুয়ারি কিশোরগঞ্জে ৯৬০০০ ডোজ করোনা ভাইরাসের টিকা পৌঁছে। এসব টিকা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের নির্দিষ্ট কোল্ডরুমে নির্ধারিত তাপামাত্রায় সংরক্ষণ করার পর সিভিল সার্জন অফিস থেকে জেলার ১৩টি উপজেলাতে পাঠানো হয়।

বর্তমানে জেলা সদরে ১৭টি এবং অন্য ১২টি উপজেলার ৩৬টি কেন্দ্রসহ মোট ৫৩টি কেন্দ্রে টিকা দেয়া হচ্ছে।

এছাড়া ইউনিয়ন পর্যায়ে ১০৮টিসহ মোট ১১০টি টিকাদান কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। নির্দেশনা পাওয়ার পর পরই এসব কেন্দ্রে টিকাদান কার্যক্রম শুরু করা হবে।

খোঁজ নিয়ে ও সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, করোনাভাইরাসের টিকাদান কার্যক্রম শুরুর আগে টিকা নিয়ে মানুষের মাঝে নানা ধরনের দ্বিধাদ্বন্দ্ব কাজ করছিল। এ পরিস্থিতিতে সিভিল সার্জনের কার্যালয় এবং জেলা বিএমএ টিকাদানে উদ্ধুদ্ধকরণ কর্মসূচি শুরু করেন।

৭ ফেব্রুয়ারি টিকাদান কার্যক্রম উদ্বোধনের পরও নিয়মিতভাবে এই উদ্ধুদ্ধকরণ কর্মসূচির অংশ হিসেবে জেলার প্রত্যন্ত হাওরের ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলাসহ প্রায় প্রতিটি উপজেলায় লিফলেট বিতরণও জারি গান গেয়ে মানুষকে করোনা টিকা গ্রহণের জন্য উদ্বুদ্ধ ও সচেতন করা হচ্ছে।

এছাড়া টিকাদান কেন্দ্রগুলোতে স্পট নিবন্ধন চালু রাখা হয়েছে। ফলে দিন দিনই নিবন্ধন ও টিকা গ্রহণের সংখ্যা বাড়ছে।

শহরের ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল ও শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ প্রায় সবকটি কেন্দ্রেই টিকা নিতে নিবন্ধন করা মানুষ লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে টিকা নিচ্ছেন।

এছাড়া অনেকেই নিবন্ধনের জন্য এসব টিকাদান কেন্দ্র ছাড়াও শহরের বিভিন্ন কম্পিউটার ও অনলাইন সার্ভিসের দোকানে ভিড় করছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, টিকাদান কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর দিন যতই যাচ্ছে টিকা নিতে মানুষের আগ্রহ ততই বাড়ছে। প্রথম ধাপে পাওয়া টিকার চালান দিয়ে ৪৫ হাজারের মতো মানুষকে টিকা দেয়া যাবে।

এই চালানের টিকাদান কার্যক্রম শেষ হওয়ার আগেই করোনা টিকার দ্বিতীয় চালান এসে যাবে বলে তারা আশা করছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর