কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


জনপ্রিয় ফুল কলকে


 লেখা ও ছবি: নূর আলম গন্ধী | ৯ মার্চ ২০২১, মঙ্গলবার, ১:০২ | রকমারি 


কলকে আমাদের দেশে পরিচিত ও জনপ্রিয় ফুল। এর অন্যান্য পরিচিত নাম- কলকি, পীত করবী, সুগন্ধী কুসুম, হলদে কলকি, কড়ি ফুল, চায়না করবী ইত্যাদি।

এ ফুলের নাম বিভ্রাট লক্ষ্য করা য়ায়। অধিকাংশ মানুষ একে করবী ফুল হিসেবে চিনেন যা ভুল। এটা মূলত কলকে ফুল।

ইংরেজি নাম Yellow oleander, Mexican oleander, Lucky Nut Tree। এর আদিনিবাস দক্ষিণ আমেরিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। পরিবার Apocynaceae, উদ্ভিদতাত্ত্বিক নাম Thevetia peruvina।

আকর্ষণীয় ও সৌখিন এ ফুল গাছ বাগানের সৌন্দর্য বিকাশে বিশেষ ভুমিকা রাখে। মাঝারি মানের উচ্চতা বিশিষ্ট চিরসবুজ ফুল গাছ। গাছের উচ্চতা গড়ে ৩ থেকে ৫ মিটার হয়ে থাকে।

কাণ্ড গোল, কাঠ নরম মানের, চামড়া মসৃণ, রঙে হাল্কা ধুসর। এর পত্রবহুল শাখা-প্রশাখা বেশ ঝোপালো যা ছায়াসুনিবিড় ও সুশ্রী।

পাতার রং গাঢ় সবুজ, চিকন, সরু ও অগ্রভাগ সূচালো যা দেখতে চিরল। পাতা লম্বায় ১০ থেকে ১৫ সেন্টিমিটার এবং চওড়ায় ২ সেন্টিমিটার হয়ে থাকে।

এর গাছের পাতা, কাণ্ড, শাখা ও মূলের কোথাও আঁচড় লাগলে দুধের মতো সাদা ও আঠালো কষ বের হয়।

প্রায় সারা বছর ধরে এর ফুল ফোটে। তবে গ্রীষ্ম, বর্ষা ও শরৎ ঋতুতে অধিক পরিমাণে ফুল ফোটতে দেখা যায়।

ফুলে রয়েছে মিষ্টি সুগন্ধ। নমনীয় কোমল ৫টি পাপড়ির সমন্বয়ে সৃষ্ট কলকে ফুল। তবে এর ফুলের পাপড়িগুলো প্যাঁচানো ও একটি অন্যটির সাথে যুক্ত থাকে।

ফুল লম্বায় প্রায় ১০ সেন্টিমিটার। এর ফুল হুক্কার কলকের আকৃতি দেখায় বলে ফুল কলকে ফুল নামে নামকরণ হয়েছে।

রয়েছে রং বাহারি ফুল। আমাদের দেশে এ ফুলের উজ্জ¦ল হলুদ, কমলা ও সাদা রঙের ফুল ফোটতে দেখা যায়। তবে সবচেয়ে বেশি দেখা যায় হলুদ রঙের ফুল।

গাছের শাখা-প্রশাখার অগ্রভাগে পাতার ফাঁকে উঁকি দেয় ফুল। ফুটন্ত ফুল গাছ দেখতে অত্যন্ত আকর্ষণীয় ও মনোরম।

ফুল শেষে গাছে ফল ধরে। ফল জোড়ায় জোড়ায় ধরে। ফলের দুই প্রান্ত ঢালু তবে মাঝের অংশ উঁচু থাকে।

ফলের ভেতর থাকে বীজ। প্রতি ফলে ২টি বীজ থাকে। এর ফল ও বীজ বিষাক্ত। পাকা ও পরিপক্ক ফলের রং ফ্যাকাসে বাদামি হয়।

বীজ ও ডাল কাটিং এর মাধ্যমে এর বংশ বিস্তার করা যায়। কলকে ফুলের রয়েছে ভেষজ নানান গুণাগুণ।

বিষাক্ত বিধায় এর বিভিন্ন অংশ ব্যবহারে সতর্ক থাকতে হবে। এ ফুল গাছের বাকল, পাতা, মূল ও বীজ বিভিন্ন রোগের ঔষধ হিসেবে ব্যবহার হয়ে থাকে। এর ছালে কার্ডিওএকটিভ ও গ্লাইকোসাইড থাকে। পাতা ও বীজে গ্লাইকোসাইড রয়েছে।

মূলের ছাল থেকে তৈরি পেষ্ট চর্মরোগনাশক, পাতার পেষ্ট চুলকানিতে কাজ করে। এর বীজ চূর্ণ পেস্ট বাত ব্যথার স্থানে লাগালে বাত ব্যথা ও ফোলা কমে।

উঁচু থেকে মাঝারি ভূমি ও প্রায় সব ধরণের মাটি ও পরিবেশে এ ফুল গাছ জন্মে। আর্দ্র থেকে ভেজা মাটি ও হালকা ছায়াযুক্ত স্থানে এরা নিজেদের মানিয়ে নিতে পারে।

গাছ বেশ কষ্টসহনশীল। আমাদের দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বাগান, স্কুল, কলেজ, অফিস প্রাঙ্গণ, পার্ক, উদ্যান ও বাসা-বাড়িতে এ ফুল গাছ চোখে পড়ে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর