কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনার অভিজ্ঞতা


 মো. শফিকুল ইসলাম শফিক | ১০ মার্চ ২০২১, বুধবার, ১১:৫০ | রকমারি 


গত ১০ ফেব্রুয়ারি কোভিড-১৯ প্রথম ডোজ টিকা নিলাম। টিকা নেওয়ার রাতে প্রচণ্ড জ্বর আসে, কম্বল-লেপ দিয়েও শীত লাগছিলো। রাতেই নাপা এক্সট্রা খেয়ে নিলাম, ভোর রাতে জ্বর একটু থেমে গেল।

পরদিন শক্রবার জ্বর জ্বর লাগছে, নাপা চালিয়ে যাই। শনিবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত একটু একটু জ্বর আসে আর শরীর ব্যথা।

ভাবলাম, টিকা নেওয়ার জন্য হয়তো এমনটি হচ্ছে। আমার সাথে আরো অনেকের একই মতামত, হয়তো টিকার রিয়েকশন।

মঙ্গলবার জানতে পারলাম আমার অফিসের ৩জন সহকর্মী করোনায় আক্রান্ত। বুধবার কর্তৃপক্ষের নির্দেশে করোনা টেস্ট দিলাম। বৃহস্পতিবার সিভিল সার্জন অফিস থেকে জানানো হলো আমার করোনা পজিটিভ।

অফিসের ডাক্তারের পরামর্শ মতো ঔষধ খাওয়া শুরু করলাম। কিশোরগঞ্জ শহরে আলাদা রুমে আছি। বাচ্চাদের গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে আমি আর আমার স্ত্রী বাসায়, দুইজন দুই রুমে।

পরদিন সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে ড্রয়িংরুমের ভেসিনে হাতমুখ, দাঁত ব্রাশ করার জন্য গেলাম.... আর কিছু মনে নেই!

পরে শুনলাম, আমি যখন সেন্সলেস হয়ে মেঝেতে পড়ে গেলাম, আমার ওয়াইফ তখন ছিলো পাশের রুমে। কাজের মহিলা মাহমুদার মা চিৎকার দিয়ে নাকি আমার ওয়াইফকে বললো, ভাইতো পড়ে গেছে। শুনলাম শুধু সেন্সলেস নয়, দাঁতীও লেগেছিল। এমনকি কাপড়চোপড় নষ্ট করে ফেলেছিলাম। আমি কিছুই বলতে পারি না।

যাক্, আমার ওয়াইফ মাহমুদার মাকে তাড়াতাড়ি চলে যেতে বলে, এইজন্য যে এটা সংক্রামক রোগ। কিন্ত সে জীবনের মায়া ছেড়ে আমার সেন্স ফেরানোর জন্য চেষ্টা করে অনেকক্ষণ পর সফল হয় এবং আমার ছোটবোন শিরিনকে ফোনে আসতে বলে।

তারপর সোজা শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ইউনিটে ভর্তি। দীর্ঘ ৯ দিন হাসপাতালের ৫১১১ নং কেবিনে। ইতোমধ্যে আমার স্ত্রী পাপিয়া সুলতানাও করোনা পজিটিভ। কে কাকে সেবা করবো!

একদিন রাত ২টায় মনে হলো কিছুই খাওয়া হয়নি আমাদের। আমার তখন মনে হলো, না খেলেতো শক্তি হারিয়ে ফেলবো।

পাপিয়াকে ডেকে তুললাম, সে তখন খুবই কাতর, শ্বাসকষ্ট আছে। তবু অনেক চেষ্টা করে খাওয়ার চেষ্টা করলাম দু'জনে।

এই শহরে আমার চার বোনের বসবাস, মা, বড়-ছোট বোন, শাশুড়ি নানান মজাদার খাবার পাঠায়, টেংরা মাছ, শুটকির তরকারি, দেশি মুরগির তরকারি আরো কত কি। এগুলো আমার পছন্দের খাবার!

চিকেন সুপ, বিভিন্ন ফল... কিন্ত কোন স্বাদ বা গন্ধ নেই,কখনো কয়লার মতো আবার কখনো খুবই তিতা লাগে খাবারে, খেতে পারি না।

গোসল নেই ৭ দিন যাবৎ তাও মনে নেই। সাতদিন না একদিন গেল হাসপাতালে তা আমি বুঝতে পারিনি। সময় কিভাবে যায়, সকাল বিকাল কিছুই বুঝি না।

কেমন যেন কষ্ট হয়! যখন ঘুমাই তখন মনে হয় আর জীবিত না হলেই আরাম, ভালো হতো। জীবনের স্বাদ নেই, পৃথিবীর প্রতি মায়া নেই, সন্তানসহ আপনজনের প্রতিও মায়া নেই।

কে কে যেন আমাকে দেখতে গেলো মনে করতে পারি না। মোবাইলে ফোন আসে, খুবই বিরক্তিকর লাগে, ধরিনা তবে চিনতে পারি কে ফোন দিলো।

নয়দিনই দুইবার ডাক্তারের টিম আর সার্বক্ষণিক নার্সের তদারকি ভুলতে পারবো না। নার্স প্রতিদিন নাভিতে একটা ইনজেকশন দিতো অত্যন্ত দক্ষতার সাথে খুঁজেই পেতাম না। ঔষধগুলো সম্ভবত ১৫/১৬ টি সুন্দর করে একটি একটি করে আলাদা আলাদা ভাবে আমাদের টেবিলের কোনায় রেখে যেতো, যাতে ভুল না হয়।

একদিন বিভিন্ন পরীক্ষার সাথে সিটি স্ক্যান করানো হলো, রেজাল্ট মুটামুটি ভালো, তবে লাঞ্চে ইফেক্ট। আমিতো ভয় পেয়ে গেলাম। ইতিপূর্বে আমার অফিসের একজন স্বনামধন্য মার্কেটিং ডাইরেক্টর ওবায়েদ স্যার করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। আমি তখন শুনেছি, লাঞ্চে আক্রান্ত হওয়ায় তিনি মারা গেছেন।

আরো তিনজন সহকর্মীর মধ্যে খবর পেলাম একজন বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় আছেন আর দুইজন বাসায় থেকেই ভালোর দিকে।

যাক্, পাপিয়ার শরীর তেমন খারাপ হয়নি। সাতদিন পর আবারো করোনার টেস্ট দিয়েছি। আলহামদুলিল্লাহ, করোনা নেগেটিভ এসেছে, নাকে ঘ্রাণ পাচ্ছি।

অক্সিমিটারে বারবার চেক করি আমি, প্রায়ই ৯০/৯১ পাই। এটা জানি, ৯০ এর নিচে হলেই অবস্থা খারাপ হবে। না, ইনশাআল্লাহ ৯০ এর নিচে যায়নি।

তবে ৮ম দিনে কেন যেন বাঁচতে ইচ্ছে করে না, সন্তানসহ কারো প্রতি মায়া বা আগ্রহ হয় না, একদম ভালো লাগে না। মাথায় কিছুই ঢুকে না। কেমন আছন্ন ভাব!

আলহামদুলিল্লাহ ২৮ তারিখে আমার বাসায় যাওয়ার জন্য বলতেছিলো ডাক্তার। কিন্তু পাপিয়া কি এখনো পজেটিভ? পরীক্ষা দেওয়া হয়েছে সকালে, সন্ধার পরপরই মোবাইলে মেসেজ করোনা নেগেটিভ।

তড়িঘড়ি করে বড় বোনকে খবর দিলো আসতে। রাত ৮টার মধ্যে বাসায় ফিরলাম। অস্বস্তি কমে না, মাথায় যে কি ঢুকছে কিছু ভালো লাগে না।

এখনো শরীর খুবই দূর্বল লাগে, খেতে ভালো লাগে, এখন আস্তে আস্তে সবই ভালো লাগছে।

আমার অফিসের কর্তৃপক্ষ, সহকর্মী যারা সাহস যুগিয়েছেন, দোয়া করেছেন সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। আর স্বজন, বন্ধু ও শুভাকাঙ্ক্ষী সহ যারা আমার খবর নিয়েছেন, ফোন করেছেন, ধরতে পারিনি সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমি বেঁচে আছি, ইনশাআল্লাহ।

অনেকেই আমার কাছে জানতে চান, টিকা নেওয়ার পরেও আমি কেন আক্রান্ত হলাম? আসলে আমি সম্ভবত টিকা নেওয়ার আগেই আক্রান্ত হই। আর টিকা নেওয়ায় একটা নির্দিষ্ট মেয়াদে কার্যকর হয়, ডোজও দুটি।

পরিশেষে একটা কথা বলবো। কারো শরীরে জ্বর বা শরীর ব্যথা হলে বিষয়টি সাধারণভাবে না নিয়ে সরকারি হাসপাতালে করোনা টেস্ট করুন। রেজাল্ট পজিটিভ আসলে সাথে সাথেই ঔষধ সেবন করলে আমার বিশ্বাস করোনায় কাবু করতে পারবে না।

তাই অবহেলা নয়, সচেতন হতে হবে, মাস্ক পড়ুন এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন।

# মো. শফিকুল ইসলাম শফিক, সভাপতি, চরটেকী উচ্চ বিদ্যালয়, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর